মহাভারতের শেষদিনের শ্যুটিংয়ে আবেগপ্রবণ সকল কলাকুশলী
মহাভারতের শেষদিনের শ্যুটিংয়ে আবেগপ্রবণ সকল কলাকুশলী

হাপুস নয়নে কাঁদছেন অর্জুন,দ্রৌপদীরা, মহাভারতের শেষদিনের শ্যুটিংয়ের ভিডিয়ো ভাইরাল

  • লকডাউনের জেরে পর্দায় ফিরেছে বিআর চোপড়ার মহাভারত।দূরদর্শনের পাশাপাশি বেসরকারি চ্যানেলেও সম্প্রচারিত হচ্ছে এই ধারাবাহিক।

হাপুস নয়নে কেঁদে চলেছেন অর্জুন,দ্রৌপদীরা। সোশ্যাল মিডিয়ায় আপতত ভাইরাল এই ভিডিয়ো।লকডাউনের জেরে টেলিভিশনের পর্দায় ফিরেছেন মহাভারত-শুধু দূরদর্শনের পর্দায়ই নয় বেসরকারি চ্যানেলগুলিতেও সম্প্রচারিত হচ্ছে বিআর চোপড়ার এই পৌরানিক কাহিনি নির্ভর ধারাবাহিক। স্মৃতির সরণি বেয়ে অনেকেই ফিরে গেছেন আশির দশকের একদম শেষলগ্নে। মানে জিয়া নস্ট্যাল আর কি! নতুন প্রজন্মও ফের একবার টেলিভিশনের পর্দায় দেশের অন্যতম ক্লাসিক এই ধারাবাহিক দেখবার সুযোগ পাচ্ছে। এবার মহাভারতের শেষদিনের শ্যুটিংয়ের একটি ভিডিয়ো সামনে এসেছে। যেখানে দেখা গেল সজল চোখে টিম মহাভারত। শুধু কাস্টদের চোখেই নয়, শেষ দিনের শ্যুটিংয়ে চোখের কোণে জল চিকচিক করছে পরিচালক থেকে স্পট বয় সবার।

নীতিশ ভরদ্বাজ যিনি শ্রীকৃষ্ণের চরিত্রে অভিনয় করেছিলেন তাঁকে দেখা গেল অর্জুন’কে(ফিরোজ খান)সান্ত্বনা দিতে। চোখ গিয়ে অনবরত জল গড়িয়ে পড়ছিল রূপা গঙ্গোপাধ্যায়েরও। তবুও পর্দার দ্রৌপদীও অর্জুনকে সান্ত্বনা দিতে এগিয়ে গেলেন। এই ধারাবাহিকে ভীষ্মের চরিত্রে অভিনয় করেছিলেন মুকেশ খান্না। তাঁর চরিত্রের মৃত্যু আগেই ঘটে গিয়েছিল, তবে শেষদিনের শ্যুটিংয়ে হাজির হয়েছিলেন তিনিও। কারণ এই ঐতিহাসিক মুহূর্তের সাক্ষী থাকতে চেয়েছিল সকলেই। 

ভিডিয়োয় দেখা মিলল ইমোশ্যানাল বিআর চোপড়া এবং তাঁর পুত্র তথা যৌথ পরিচালক রবি চোপড়ারও। এতবছর পরেও শুধু মহাভারত ধারাবাহিক দর্শকদের মন জয় করছে তা নয়, এই ভিডিয়ো দেখে রীতিমতো ইমোশ্যানাল নেটপাড়ার বাসিন্দারাও। 

প্রসঙ্গত ১৯৮৮ সালের ২রা অক্টোবর থেকে ১৯৯০ সালের ২৪ জুন পর্যন্ত দূরদর্শনের পর্দায় সম্প্রচারিত হয়েছিল ৯৪ এপিসোডের এই ধারাবাহিক। প্রতি রবিবার সম্প্রচারিত হত মহাভারত।

 

বন্ধ করুন