বাংলা নিউজ > বায়োস্কোপ > শ্রাবন্তীকে রাজনীতির ময়দানে স্বাগত জানালেন তৃণমূলের রাজ চক্রবর্তী
ইকুয়েশন কী বদলাবে? 
ইকুয়েশন কী বদলাবে? 

শ্রাবন্তীকে রাজনীতির ময়দানে স্বাগত জানালেন তৃণমূলের রাজ চক্রবর্তী

  • সহকর্মী তথা প্রতিবেশী শ্রাবন্তীর সঙ্গে সুসম্পর্কই বজায় রাখতে আগ্রহী রাজ চক্রবর্তী!

আদরের ‘গিন্টু’কে রাজনীতির আঙিনায় বরণ করে দিলেন রাজ চক্রবর্তী। মতাদর্শ আলাদা, দল অন্য- কিন্তু তা বলে পুরোনো সম্পর্ক তো মুছে ফেলা যায় না! তাই সৌজন্যতা দেখালেন পরিচালক। সদ্য বিজেপিতে যোগ দেওয়া শ্রাবন্তীকে শুভেচ্ছা জানিয়ে টুইট করলেন তৃণমূলের সৈনিক রাজ চক্রবর্তী। 

ঠিক আট দিনের ব্যাবধানে রাজনীতির মাঠে সরাসরি নেমে পড়েছেন দুজনে। শ্রাবন্তী-রাজের সুসম্পর্কের কথা টলিপাড়ার কারুর অজানা নয়। তাঁরা শুধু সহকর্মী, এমনটা নয়, রাজ-শ্রাবন্তী প্রতিবেশীও বটে। আরবানা আবসনেই থাকেন দুজনে। রাজনৈতিক মহলে জল্পনা তুঙ্গে রাজের বিপরীতে নাকি ভোটে লড়তে পারেন শ্রাবন্তী। তখন সেই প্রশ্ন জাগছিল, তবে কি এদের সম্পর্কের সমীকরণ বদলে যাবে?

ঘাস ফুল আর পদ্ম শিবিরে যতই দ্বন্দ্ব থাক, সব বিরোধ ভুলে ‘মিষ্টি’ গিন্টুর জন্য (শ্রাবন্তীর ডাকনাম) রাজদা টুইটারে বার্তা- ‘আমার শুভ কামনা সঙ্গে রয়েছে’। সোমবার বিজেপির পতাকা হাতে তুলে নেওয়ার চব্বিশ ঘন্টা পর টুইটারে শ্রাবন্তী লেখেন, ‘গতকাল থেকে জীবনের এক গুরুত্বপূর্ণ অধ্যায় শুরু হল। তাই আপনাদের কাছে নত মস্তকে আশীর্বাদ কামনা করছি। একজন মা এবং নারী হিসেবে চাইব আমাদের সবার সন্তান যেন ‘সোনার বাংলা’ তে বড় হয়ে উঠুক’। এই টুইট রি-টুইট করেই শুভেচ্ছা জানান রাজ।

গত, ২৪ ফেব্রুয়ারি হুগলির সাহাগঞ্জে গিয়ে তৃণমূলের পতাকা তুলে নেন রাজ চক্রবর্তী। দীর্ঘদিন ধরেই তৃণমূল ঘনিষ্ঠ বলেই পরিচিত রাজ, গত দু-বছর ধরে ফিল্ম ফেস্টিভ্যালের চেয়ারম্যান পদের দায়িত্বও সামলাচ্ছেন তিনি।

গত ২৪ ফেব্রুয়ারি হুগলির সাহাগঞ্জে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের হাত থেকে তৃণমূলের পতাকা তুলে নেন সায়নী ঘোষ, মনোজ তিওয়ারি, রাজ চক্রবর্তী, জুন মালিয়া, কাঞ্চন মল্লিক, সুদেষ্ণা রায়-সহ একঝাঁক তারকা। (ছবি সৌজন্য তৃণমূল কংগ্রেস)
গত ২৪ ফেব্রুয়ারি হুগলির সাহাগঞ্জে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের হাত থেকে তৃণমূলের পতাকা তুলে নেন সায়নী ঘোষ, মনোজ তিওয়ারি, রাজ চক্রবর্তী, জুন মালিয়া, কাঞ্চন মল্লিক, সুদেষ্ণা রায়-সহ একঝাঁক তারকা। (ছবি সৌজন্য তৃণমূল কংগ্রেস)

রাজের এই বার্তা সাফ বুঝিয়ে দিচ্ছে রাজনীতির ময়দানে বিরোধী দলের খিলাড়ি হলেও সহকর্মীদের সঙ্গে সুসম্পর্ক বজায় রেখেই চলতে চান তিনি। 

 

 

বন্ধ করুন