বাংলা নিউজ > বায়োস্কোপ > মিমির কাছে ভালোবাসার প্রকৃত মানে কী ? ব্যাখ্যা করলেন নায়িকা
মিমি চক্রবর্তী (ছবি-ইনস্টাগ্রাম)
মিমি চক্রবর্তী (ছবি-ইনস্টাগ্রাম)

মিমির কাছে ভালোবাসার প্রকৃত মানে কী ? ব্যাখ্যা করলেন নায়িকা

  • ভালোবাসার প্রকৃত স্বরূপ ব্যাখ্যা করলেন মিমি চক্রবর্তী। 

'আজকের যুগে মানুষ ভালোবাসে, কিন্তু প্রেম করে কি ?' এই প্রশ্নটাই ছুঁড়ে দিয়েছেন অভিনেত্রী মিমি চক্রবর্তী। জানতে চেয়েছেন অনেকেই ভালোবাসেন,কিন্তু তার মাশুল গোনেন কজন ? সম্প্রতি নিজের সোশ্যাল মিডিয়া পেজে একটি ভিডিও আপলোড করেছেন যাদবপুরের অভিনেত্রী সাংসদ। সেখানেই জীবনে প্রেম, ভালোবাসা সম্পর্কে একগুচ্ছ প্রশ্ন রেখেছেন নায়িকা, দিয়েছেন উত্তরও। 

ভিডিওতে দুই ধরণের লুকে ধরা দিয়েছেন অভিনেত্রী। কখনও একবিংশ শতকের আধুনিকা বঙ্গ নারীর বেশে আবার পরক্ষনেই কিছুটা রেট্রো লুকে- সাদা শাড়ি,কালো ব্লাউজ,কপালে ছোট্ট টিপ।গম্ভীর অথচ দৃপ্ত অথচ সৌম্য মুখ ভঙ্গিমায় মোহময়ী মিমি দুই অবতারেই। মিমির দ্বিতীয় লুকটি হল তাঁর আসন্ন ছবি ড্রাকুলা স্যারের। পুজোয় মুক্তি পাচ্ছে এই ফিল্ম। যার প্রমোশ্যানাল ভিডিয়োয় ধরা দিলেন তারকা।

মিমির মতে আজকের ব্যস্ত জীবনে আমরা ছুটে চলেছি সর্বদাই , কিন্তু হয়তো অনেকেই জানে না তাঁদের লক্ষ্য আসলে কী!  নায়িকার মতে-'ভালোবাসা মানুষকে অপেক্ষা করতে শেখায়। যতই কমপ্লিকেডেট হোক না কেন মানুষ প্রেমে তো পড়ে'। 

যুগের পরিবর্তনে ভালোবাসার স্বরূপ বদলাতে পারে,কিন্তু প্রেম বদলায় না। আবার ভালোবাসা একেকজনের কাছে আলাদা আলাদা রূপে প্রতিভাত হয়। ‘অমলের কাছে ভালোবাসার মানে সংগ্রাম আর আমার কাছে ভালোবাসার মানে অমল। সময়-সমাজ আমাদের আলাদা করতে চেয়েছে। কিন্তু পেরেছে কি?'

ড্রাকুলা স্যার ছবিতে অমলের চরিত্রে অভিনয় করছেন অনির্বাণ ভট্টাচার্য। এই প্রথম অনির্বানের সাথে জুটিতে মিমি। ছবি পরিচালনায় দেবালয় ভট্টাচার্য। 

১৯৭১ এর মুক্তিযুদ্ধের প্রেক্ষাপট ছবির অর্ধেক অংশ জুরে রয়েছে, বাকি কাহিনি আজকের-২০২০'র। ক্যানাইন দাঁত রয়েছে স্কুল মাস্টার রক্তিমের। তাই ছাত্ররা ডাকে তাঁকে ডাকে 'ড্রাকুলা স্যার' বলে। রক্তিমের অতীতে কি লুকিয়ে আছে রক্তমাখা কোনো অধ্যায়? মঞ্জরীও  ফিরে এসেছে একাত্তরের স্মৃতি নিয়ে। রক্ত,রহস্য,রোম্যান্স- তিনের ককটেলে কিছুদিন আগেই সামনে এসেছে ড্রাকুলা স্যারের ট্রেলার। 

২১ অক্টোবর, ষষ্ঠীর দিন মুক্তি পাবে এই ছবি। প্রযোজনায় ভেঙ্কটেশ ফিল্মস।

বন্ধ করুন