বাড়ি > বায়োস্কোপ > ভাইরাল মহেশ-রিয়ার ৮ জুনের হোয়াটসঅ্যাপ চ্যাট, ওইদিন সুশান্তের বাড়ি ছাড়েন অভিযুক্ত নায়িকা
ভাইরাল হল রিয়া-মহেশ ভাটের হোয়াটসঅ্যাপ চ্যাট 
ভাইরাল হল রিয়া-মহেশ ভাটের হোয়াটসঅ্যাপ চ্যাট 

ভাইরাল মহেশ-রিয়ার ৮ জুনের হোয়াটসঅ্যাপ চ্যাট, ওইদিন সুশান্তের বাড়ি ছাড়েন অভিযুক্ত নায়িকা

  • মহেশ ভাটের পরামর্শেই সুশান্তের সঙ্গে ব্রেক-আপের সিদ্ধান্ত নিয়েছিলেন রিয়া চক্রবর্তী। হোয়াটসঅ্যাপ চ্যাটে উঠে এল সেই ইঙ্গিত। 

সুশান্ত সিং রাজপুতের মৃত্যুর তদন্তে বৃহস্পতিবারই মুম্বই পৌঁছেছে সিবিআইয়ের বিশেষ তদন্তকারী দল। এই দিনই সুশান্তের মৃত্যু তদন্তে চাঞ্চল্যকর নতুন মোড় এল। এদিন ইন্টারনেটে ফাঁস হয়ে গেল ৮ই জুন মহেশ ভাট ও রিয়া চক্রবর্তীর হোয়াটসঅ্যাপ চ্যাট। এইদিনই সুশান্তের ফ্ল্যাট ছেড়ে বেরিয়ে আসেন রিয়া। যার ঠিক ৬ দিনের মাথায় উদ্ধার হয় সুশান্তের দেহ।

ইন্ডিয়া টুডের তরফে মহেশ-রিয়ার এই গোপন মেসেজর হদিশ খুঁজে বার করা হয়েছে। যে মেসেজে স্পষ্টভাবেই দেখা যাচ্ছে সুশান্তের সঙ্গে সম্পর্ক শেষ করবার ইঙ্গিত। এবং এই সম্পর্ক ভেঙে ফেলবার ব্যাপারে রিয়াকে উপদেশ দিয়েছিলেন মহেশ ভাট। কী রয়েছে সেই হোয়াটসঅ্যাপ মেসেজে?

রিয়া লেখেন, 'আয়শা (জলেবি ছবিতে রিয়ার চরিত্রের নাম) মুভস অন..স্যার, মন ভারাক্রান্ত তবে একটা স্বস্তি'। এরপর রিয়া রিয়া যোগ করেন, ‘আমাদের শেষ (ফোন) কলটা আমার ঘুম ভাঙিয়ে দিয়েছে। তুমি আমার স্বর্গদূত, তুমি ছিলে,তুমি আছ এবং তুমিই থাকবে’।

জবাবে মহেশ ভাট জানান, পিছন ফিরে তাকিও না। সেটাই সম্ভবপর যা অবশ্যম্ভাবী। আমার অনেক ভালোবাসা তোমার বাবাকে। উনি আজ নিশ্চয় একজন খুশি মানুষ'। এর উত্তরে রিয়া লেখেন, অবশেষে একটু সাহস খুঁজে পেলাম, আর সেইদিন তুমি আমার বাবাকে নিয়ে ফোনে যা বলেছিলে সেটা আমাকে শক্ত হতে সাহায্য করেছে আমার বাবার জন্য। উনিও তোমাকে অনেক ভালোবাসা পাঠিয়েছেন, ধন্যবাদ সবসময় এতটা স্পেশ্যাল হওয়ার জন্য। 

এরপর সড়ক ২-র পরিচালক লেখেন, ‘তুমি আমার সন্তান।আমার হালকা লাগছে’। এরপর রিয়া মেসেজ করেন, ‘আহ..কোনও শব্দ নেই স্যার। সেটাই সেরা ইমোশন যা আমি তোমার জন্য অনুভব করি’। মহেশ ভাট এরপর লেখেন, ‘তুমি সাহাসী..তার জন্য ধন্যবাদ’।

রিয়া এবার লেখেন, ‘তুমি ফের আমার ডানা মেলতে সাহায্য করলে,একই জীবনে দু’বার ঠিক ভগবানের মতো'। অপর একটি মেসেজে রিয়া লেখেন, 'ধন্যবাদ আমরা ভাগ্যকে যে তোমার সঙ্গে আমাকে মিলিয়ে দিয়েছে। তুমি ঠিক বলেছে, আমাদের দেখা হওয়াটা এই দিনের জন্যই।কোনও ছবির জন্য নয়, খুব স্পেশ্যাল কিছুর জন্য। আপনার প্রত্যেকটা শব্দ আমার কানে প্রতিধ্বনিত হয়েছে, আমার মনে আপনার নিঃশর্ত ভালোবাসার একটা গভীর প্রভাব কাজ করে'।

সুশান্তের ‘আত্মহত্যার’ কারণ খতিয়ে দেখতে মুম্বই পুলিশ মহেশ ভাটের বয়ান রেকর্ড করে। এই মামলায় মুম্বই পুলিশের তরফে মোট ৫৬ জনের বয়ান রেকর্ড করা হয়েছে। সূত্রের খবর মুম্বই পুলিশকে দেওয়া বয়ানে মহেশ ভাট জানিয়েছেন সুশান্তের সঙ্গে জীবনে দুবার তাঁর সাক্ষাত্ হয়েছে। মহেশ ভাট পুলিশকে জানান সুশান্ত নিজে থাকতেই সড়ক টুয়ের অংশ হতে চেয়েছিলেন এবং মহেশ ভাটের সঙ্গে দেখাও করেছিলেন। তাঁর দাবি মাত্র দুবার সুশান্তের সঙ্গে দেখা হয়েছে তাঁর। ২০১৮ সালে একবার এবং চলতি বছর ফেব্রুয়ারিতে সুশান্ত যখন অসুস্থ ছিল তখন নাকি তিনি দেখা করেন সুশান্তের সঙ্গে। সুশান্তের বান্দ্রার অ্যাপার্টমেন্টেই নাকি দেখা করেছিলেন মহেশ ভাট।

অন্যদিকে সুশান্তের মৃত্যুর দিনই মহেশ ভাটের দাদা মুকেশ ভাট টাইমস নাওকে দেওয়া এক টেলিফোনিক সাক্ষাত্কারে বিস্ফোরক মন্তব্য করেন। তিনি বলেন, ‘আমি দেখতে পাচ্ছিলাম, এরকম একটা কিছু আসছে।’ কীভাবে সেই ধারণা গড়ে উঠেছিল, তারও ব্যাখ্যা দেন মুকেশ।তিনি বলেন, আশিকী ২ এবং সড়ক ২-এর ‘সময় কথা বলার সময় আমার মনে হয়েছিল, সুশান্ত অত্যন্ত ডিস্টার্বড। আমার মনে আছে মহেশ আমাকে বলেছিল,'আমি আমার কেরিয়ার শুরু করেছি পারভিন ববির সঙ্গে, ও সিজোফ্রেনিয়ার শিকার ছিল।…আমার ভয় হয় যে ও পারভিন ববির রাস্তায় হাঁটছে। তাই আমি শকড নই, এটা হওয়ার ছিল'।

সুশান্তের পরিবারের তরফে অভিনেতাকে আত্মহত্যায় প্ররোচনা দেওয়া, তাঁর সঙ্গে আর্থিক প্রতারণা সহ একাধিক ধারায় অভিযোগ আনা হয়েছে রিয়া চক্রবর্তী, তাঁর পুরো পরিবার (বাবা,মা,ভাই),ম্যানেজার শ্রুতি মোদি এবং সুশান্তের হাউজ ম্যানেজার স্যামুয়েল মিরান্ডার বিরুদ্ধে। কেন্দ্রীয় সংস্থা সিবিআই এবং ইডি আপাতত এই মামলার সব দিক খতিয়ে দেখছে।

বন্ধ করুন