বাড়ি > > ২০২১-এর মেগা আইপিএল নিলাম পিছিয়ে দিলে মন্দ হবে না, ধারণা নাইট CEO-র
বেঙ্কি মাইসোরের সঙ্গে হেমাঙ্গ আমিন। ছবি- আইপিএল।
বেঙ্কি মাইসোরের সঙ্গে হেমাঙ্গ আমিন। ছবি- আইপিএল।

২০২১-এর মেগা আইপিএল নিলাম পিছিয়ে দিলে মন্দ হবে না, ধারণা নাইট CEO-র

  • মাত্র সাড়ে চার মাস সময়ে নতুন করে দল গড়া কঠিন বলেই মেনে নেন বেঙ্কি মাইসোর।

করোনা মহামারির জন্য আগামী বছরের মেগা আইপিএল নিলাম পিছিয়ে দেওয়ায় সায় রয়েছে কলকাতা নাইট রাইডার্সের। কেকেআর সিইও বেঙ্কি মাইসোর ইএসপিএনকে স্পষ্ট জানিয়েছেন যে, বর্তমান পরিস্থিতির কথা বিবেচনা করে এমন সিদ্ধান্ত নেওয়া হলে সেটা মন্দ হবে না।

২০২১-এর আইপিএলের আগে ফ্র্যাঞ্চাইজিদের ঢেলে সাজাতে হবে স্কোয়াড। হাতে গোনা কয়েকজনকে রিটেন করে বাকি ক্রিকেটারদের মেগা নিলামের জন্য ছেড়ে দিতে হবে। করোনা মহামারির জন্য চলতি বছরের আইপিএল পাঁচ মাসেরও বেশি সময় পিছিয়ে গিয়েছে। তবে পরের বছরের আইপিএল অনুষ্ঠিত হবে যথা সময়ে। অর্থাৎ, ইন্ডিয়ান প্রিমিয়র লিগ ফিরে যাবে এপ্রিল-মে মাসের উইন্ডোয়।

এই অবস্থায় চলতি বছরের ফাইনাল ম্যাচ ও আগামী বছরেরে উদ্বোধনী ম্যাচের মধ্যে সাড়ে চার মাস সময় থাকবে ফ্র্যাঞ্চাইজিদের হাতে। এত কম সময়ের মধ্যে নতুন করে দল গড়ার জন্য প্রস্তুতি নেওয়া কঠিন হয়ে দাঁড়াবে আইপিএল দলগুলির পক্ষে।

সেকারণেই আগামী বছরের মিলাম এক বছরের জন্য পিছিয়ে দেওয়ার কথা ভাবছে বিসিসিআই। একই স্কোয়াড নিয়ে দলগুলিকে আরও একবছর আইপিএলে মাঠে নামার অনুমতি দিতে পারে ভারতীয় ক্রিকেট বোর্ড।

এ প্রসঙ্গে নাইট সিইও বেঙ্কি মাইসোর জানান যে, তিনিও শুনেছেন এমন সম্ভাবনার কথা। ক্রিকেটারদের বাড়তি একবছর ধরে রাথতে হলে আর্থিক চুক্তি নিয়ে জটিলতা দেখা দেওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে। তবে বৃহত্তর দৃষ্টিকোণ থেকে বিবেচনা করলে এমন সিদ্ধান্ত যথাযথ হতে পারে বলে দাবি মাইসোরের।

তিনি বলেন, ‘অমিও শুনেছি এমন সম্ভাবনার কথা। করোনা মহামারি নিয়ে বর্তমান অবস্থার কথা মাথায় রাখলে এমন চিন্তা-ভাবনা মন্দ নয়। এবছরের ফাইনাল ও পরের আইপিএলের শুরুর আগে আমরা নিতান্তই কম সময় হাতে পাব।’

আইপিএলে ভারতীয় কোচেদের অনুপস্থিতি নিয়ে অনিল কুম্বলের করা মন্তব্যকেও সমর্থন করেন বেঙ্কি। তবে তিনি মনে করছেন যে, অদূর ভবিষ্যতে ইন্ডিয়ান প্রিমিয়র লিগে ভারতীয় কোচেদের আরও বেশি করে দেখতে পাওয়া কেবল সময়ের অপেক্ষা। 

নাইট সিইও বলেন, ‘আমি পড়েছি কুম্বলের বক্তব্য। আমি সেটাকে সমর্থন করি। তবে বিদেশি কোচেদের ক্ষেত্রে সুবিধা হল, বিদেশি লিগে ক্রিকেটার হিসেবে খেলার অভিজ্ঞতা রয়েছে ওদের। বিসিসিআই এখনও ভারতীয় ক্রিকেটারদের বিদেশি লিগে খেলার অনুমতি দেয় না। যদিও ছবিটা অবশ্যই বদলাবে। আমাদের দলেই তাকিয়ে দেখুন। অভিষেক নায়ার সহকারী কোচ। ও কেকেআরের অ্যাকাডেমিও চালায়। ও অসাধারণ। ভারতীয় ক্রিকেটারদের নিয়ে ওর পরিষ্কার ধারণা রয়েছে।’

বন্ধ করুন