বাংলা নিউজ > টুকিটাকি > Cancer research new findings: ওষুধের সঙ্গে এই থেরাপি প্রয়োগ করলে কমবে ক্যানসারে মৃত্যুর হার, দাবি গবেষণায়

Cancer research new findings: ওষুধের সঙ্গে এই থেরাপি প্রয়োগ করলে কমবে ক্যানসারে মৃত্যুর হার, দাবি গবেষণায়

এটির উপস্থিতিতে শরীরের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা টিউমার কোষকে আরও মারাত্মকভাবে আক্রমণ করতে পারে (Pixabay)

Cancer research new findings suggests exosome can activate t cell which attacks cancer cell: এক্সট্রাসেলুলার ভেসিকল বা এক্সোসাম কোষে কোষে বার্তা বহন করে। এটি রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতার টি কোষকে সক্রিয় করে তোলে। এই টি কোষই টিউমার কোষকে আক্রমণ করে।

ক্যানসার চিকিৎসায় কার্যকরী হয়ে উঠতে পারে চেকপয়েন্ট ইনহিবিটর থেরাপি। সুইডেনের নতুন গবেষণায় এমন তথ্যই উঠে এল এবার। অন্যান্য ওষুধের সঙ্গে এই থেরাপি প্রয়োগ করলে কমে যেতে পারে ক্যানসারে মৃত্যুর হার। 

গবেষকদের কথায়, সুইডেন এক্সট্রাসেলুলার ভেসিকলের সাহায্যেই কার্যকরী হয়ে উঠছে এই চিকিৎসা। এক্সট্রাসেলুলার ভেসিকল একটি বিশেষ ধরনের পর্দার বুদবুদ কোষ। এটির উপস্থিতিতে শরীরের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা টিউমার কোষকে আরও মারাত্মকভাবে আক্রমণ করতে পারে। এর ফলেই দুর্বল হয়ে পড়ে ক্যানসার কোষ। 

বিশেষজ্ঞদের কথায়, ভেসিকলটি রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতার সঙ্গে যুক্ত টি কোষকে উত্তেজিত করে তোলে। টি কোষের কাজ শরীরের কোথাও বিজাতীয় পদার্থ ঢুকে ক্ষতি করতে চাইলে তাকে ধ্বংস করে ফেলা। এক্ষেত্রে টি কোষকে উত্তেজিত করে তোলে এই ভেসিকল। উত্তেজিত হওয়ার ফলে টি কোষটি সরাসরি ক্যানসারের টিউমার কোষকে খুঁজে বার করে। এরপরেই শুরু হয় ক্যানসার প্রোটিনকে ধ্বংস করার প্রক্রিয়া। ক্যানসার প্রোটিনই ক্যানসার কোষকে বেড়ে উঠতে সাহায্য করে। ফলে এটিকে ধ্বংস করতে পারলেই ক্যানসারকে প্রতিহত করা সম্ভব।

সম্প্রতি সুইডেনের কারোলিনস্কা ইনস্টিটিউটে এই গবেষণা করা হয়। ইঁদুরের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতার উপরেই প্রাথমিকভাবে পরীক্ষানিরীক্ষা চালানো হয়। ইঁদুরের টি কোষ থেকে তৈরি ভেসিকল বিশেষভাবে প্রয়োগ করা হয়‌ ক্যানসার চিকিৎসার জন্য। দেখা যায়, ভেসিকলের উপস্থিতিতে টি কোষ সক্রিয় হয়ে উঠেছে। এরপরেই ক্যানসার কোষগুলিকে দ্বিগুণ শক্তিতে আক্রমণ করছে টি কোষ। তবে ঠিক কী কারণে ভেসিকল টি কোষকে উত্তেজিত করে তুলছে, তা জানতে এখন পরীক্ষা-নিরীক্ষা চালাচ্ছেন বিজ্ঞানীরা। দেখা গিয়েছে, কিছু রোগীদের জন্য এই থেরাপি ভালো কাজ করলেও অনেকের ক্ষেত্রে অবস্থার উন্নতির একেবারেই সামান্য।

গবেষণায় দেখা গিয়েছে, এক্সোসাম বা এক্সট্রাসেলুলার ভেসিকল নামে পরিচিত গোলাকার ন্যানোকোষগুলি সবসময় একটি নির্দিষ্ট পথ মেনে চলে। বিজ্ঞানীদের ধারণা, ভেসিকলগুলি টিউমার কোষকে রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতার আক্রমণের উপযুক্ত করে তোলে। এর ফলে ইমিউনোথেরাপি আরও সক্রিয়ভাবে কাজ করে।

এক্সট্রাসেলুলার ভেসিকল শরীরের বার্তাবাহক হিসেবে কাজ করে। এটি এক কোষ থেকে অন্য কোষে বার্তা বয়ে নিয়ে যায়। এর উপস্থিতিতেই টি কোষ খবর পায় কোথায় রয়েছে টিউমার কোষ। এরপর টি কোষই সক্রিয় হয়ে আক্রমণ করে ক্যানসার কোষকে। বর্তমানে এক্সট্রাসেলুলার ভেসিকল নিয়েই আরও গবেষণা করতে চলেছেন বিজ্ঞানীরা‌। এটির কাজ করার কায়দা ধরা গেলে একাধিক ক্যানসারের চিকিৎসা করাও সহজ হবে বলে মনে করা হচ্ছে।

বন্ধ করুন