বাংলা নিউজ > টুকিটাকি > Covid 19: করোনার হাত থেকে কীভাবে সুস্থ রাখবেন আপনার সন্তানকে?
করোনার হাত থেকে কীভাবে সুস্থ রাখবেন আপনার সন্তানকে।  (unicef.org)
করোনার হাত থেকে কীভাবে সুস্থ রাখবেন আপনার সন্তানকে।  (unicef.org)

Covid 19: করোনার হাত থেকে কীভাবে সুস্থ রাখবেন আপনার সন্তানকে?

  • বাচ্চাদের শরীরেও থাবা বসাচ্ছে করোনা ভাইরাস। দেখে নিন সাবধান থাকতে কী কী করবেন!

করোনার দ্বিতীয় ঢেউ আছড়ে পড়েছে ভারতে। এবার সংক্রমিত হচ্ছে বাড়ির ছোট ছোট সদস্যরাও। স্বভাবতই অভিভাবকদের মনে সবসময় একটা ভয় কাজ করছে। কীভাবে সুস্থ রাখা সম্ভব বাড়ির ছোট্ট সদস্যটিকে। মহামারীর হাত থেকে শিশুদের সুস্থ রাখতে বেশ কিছু বিষয় অবশ্যই মাথায় রাখুন। 

যদি বাচ্চার জ্বর, গলা ব্যথার মতো উপসর্গ থাকে তাহলে কী করণীয়?

  • প্রথমেই আপনার শিশুর যিনি চিকিৎসক (Child Pediatrician)-এর সঙ্গে কথা বলুন। আপনার শিশুর মধ্যে কী কী উপসর্গ চোখে পড়ছে তা জানান। যদি চিকিৎসক মনে করেন তবে করোনা পরীক্ষার পরামর্শ দেবেন। এযথা ভয় পাবেন না।
  • আপনার সন্তানকে যতটা সম্ভব আরাম করতে দিন ও বেশি করে জল-জাতীয় খাবার দিন। জলের বদলে দিতে পারেন গরম স্যুপ, ফলের রস।  স্তন্যপান করার অভ্যাস থাকলে এই সময় আরও বেশি করে স্তন্যপান করান।
  • সবসময় খেয়াল রাখুন শ্বাসকষ্ট হচ্ছে কি না। চাইল্ড অক্সিমিটারের সাহায্যে শরীরের অক্সিজেন লেভেল চেক করুন। যদি মনে হয় শরীরে অক্সিজেনের মাত্রা কমছে, সঙ্গে সঙ্গে হাসপাতালে নিয়ে যান।

কী কী সাবধানতা মেনে চলবেন?

  • এখানে -ওখানে হাত দেওয়া, সমস্ত জিনিস মুখে দেওয়া, মাসিক পরতে না চাওয়া প্রায় সব বাচ্চাই করে থাকে। য়াই সবার আগে ওকে পরিস্থিতির গুরুত্ব বোঝান। বুঝিয়ে বলুন নিয়ম মেনে না চললে কী সমস্যা হতে পারে।
  • খাবার আগে ওর সঙ্গে আপনিও পাত ধুয়ে নিন। আপনাকে হাত ধুতে দেখলে নিজেও উৎসাহ পাবে।
  • মাস্ক পরতে না চাইলে বলে দিন বাইরে যাওয়া বন্ধ। সুন্দর রঙিন মাস্ক পাওয়া যায় বাচ্চাদের। সেগুলো কিনে দিন।
  • ওর খেলনা, জামা-কাপড়, কাথা, বিছানার চাদর ডেটল জাতীয় অ্যান্টিসেপটিক লিকুইড দিয়ে ধুয়ে নিন।
  • বাচ্চা যেই ঘরে থাকে সেখানে বাইরের কাওকে ঢুকতে দেবেন না। বাড়িতে কারও শরীর খারাপ লাগলে বা ঠান্ডা লাগলে অন্তত কিছুদিন বাচ্চার থেকে দূরে থাকতে অনুরোধ করুন। মায়ের ক্ষেত্রে দূরে থাকা সম্ভব না হলে, বাচ্চার কাছে গেলেই মাস্ক পরে নিন।
  • বর্তমানে বাড়ির বাইরে থেকে কাওকে বাড়িতে প্রবেশের অনুমতি না দেওয়াই ভালো। নিজেও অন্যের বাড়ি যাওয়া থেকে বিরত থাকুন।

    তথ্যসূত্র: https://www.narayanahealth.org

বন্ধ করুন