বাংলা নিউজ > টুকিটাকি > Prices of Fish: আর কী মাছ খাওয়া যাবে না! মাছের দাম বাড়ছে হু হু করে, কেন জানেন

Prices of Fish: আর কী মাছ খাওয়া যাবে না! মাছের দাম বাড়ছে হু হু করে, কেন জানেন

মাছের দাম আগুন।

কলকাতা-সহ পশ্চিমবঙ্গের বহু জায়গায় মাছের দাম বিপুল পরিমাণে বাড়ছে। কেন এই পরিস্থিতি জানেন? 

বাজারে মাছের দাম হু হু করে বাড়ছে। বিশেষ করে রুই-কাতলা জাতীয় মাছের দাম যেখানে পৌঁছোচ্ছে, তাতে সেটি কিছু দিনের মধ্যেই মধ্যবিত্তের নাগালের বাইরে চলে যাবে বলে আশঙ্কা। আর তার প্রভাব পড়ছে অন্য মাছের উপরও। সেগুলির দামও বাড়ছে পাল্লা দিয়ে। তবে কি এবার মাছ খাওয়া বন্ধ? এই পরিস্থিতি তৈরির কারণ কী? 

সম্প্রতি কলকাতা-সহ পশ্চিমবঙ্গের বহু জায়গার বাজারেই মাছের দাম বিপুল পরিমাণে বাড়ছে। ভারতের বিভিন্ন রাজ্যের বাজারেও বাড়ছে বড় মাছের দাম। এর কারণ কী?

পশ্চিমবঙ্গ-সহ ভারতের বহু বাজারেই মাছের জোগান যায় অন্ধ্রপ্রদেশ থেকে। সেই জোগানই এখন বিপুল পরিমাণে কমে গিয়েছে। তাই দাম বাড়ছে বলে মনে করছেন সকলেই।

কিন্তু জোগান কমে গিয়েছে কেন? জুন-জুলাই মাস মাছের প্রজননের সময়। তাই এই সময়ে বহু জায়গাতেই মাছ ধরার উপরে নিষেধাজ্ঞা থাকে। সেটি মাছের জোগান কমে যাওয়ার একটি কারণ। এছাড়াও অন্ধ্রপ্রদেশের ব্যবসায়ী সমিতি গত অর্থবর্ষের ধারবাকির টাকা দিয়ে এবার মিটিয়ে দেওয়ার দাবি করেছে। সেই কারণেও নাকি কমেছে মাছের জোগান। 

ব্যবসায়ীরা সংবাদমাধ্যমকে জানিয়েছেন, আগে পাতিপুকুর, শিয়ালদা, হাওড়া মিলিয়ে রোজ প্রায় ১০০টি মাছের ট্রাক পৌঁছোতো অন্ধ্রপ্রদেশ থেকে। গত ৪৫ দিনে সেখানে ৪০ থেকে ৪৫টি ট্রাক ঢুকেছে এ রাজ্যে। তাই বাড়ছে মাছের দাম।

কিছু দিন আগেও দেড় কেজি ওজনের রুই মাছ পাইকারি বাজারে বিক্রি হত ১২৫ থেকে ১৩০ টাকা কেজি দরে। সেটি এখন পৌঁছে গিয়েছে ১৬০ থেকে ১৬৫ টাকা কেজিতে। খুচরো বাজারে সেই রুই মাছের দাম পৌঁছে যাচ্ছে ২৫০ থেকে ৩০০ টাকা কেজি পর্যন্ত। কাতলার দাম পৌঁছে গিয়েছে ৩০০ থেকে ৪০০ টাকা কেজিতে। সব মিলিয়ে মাছের দামের কারণে মাথায় হাত ব্যবসায়ী থেকে ক্রেতা— সকলেরই। 

বন্ধ করুন