বাংলা নিউজ > টুকিটাকি > Gay couple will become parents: জলদিই একরত্তি শিশুর অভিভাবক হতে চলেছেন সমকামী যুগল, জানালেন ইনস্টাগ্রামে

Gay couple will become parents: জলদিই একরত্তি শিশুর অভিভাবক হতে চলেছেন সমকামী যুগল, জানালেন ইনস্টাগ্রামে

তাঁরাই এদিন ইনস্টাগ্রামে জানান, পরিবারে ছোট্ট সদস্য আসতে চলেছে তাঁদের। (Instagram)

Gay couple went viral in 2019 will become parents soon: ২০১৯ সালে বিয়ে করেন দুই সমকামী পুরুষ। ইনস্টাগ্রামে সে ছবি রীতিমতো ঝড় তুলেছিল। এবার তাদের কোল আলো করে আসছে একরত্তি শিশু।

সালটা ছিল ২০১৯। হঠাৎই সোশ্যাল মিডিয়ায় ভাইরাল হয়ে যান দুই পুরুষ। তাঁদের মধ্যে একজন দিল্লির বাসিন্দা তেলেগুভাষী, অন্যজন ছিলেন গুজরাটি আমেরিকান। ভারতীয় বিয়ের রীতি মেনেই মহা ধুমধাম করে বিয়ের আয়োজন করেন তাঁরা। পরস্পর পরস্পরকে ভালোবেসে শুভ পরিনয়ে আবদ্ধ হন দুজনে। তিন বছর আগে বিয়ের সাজে দুই সমকামী পুরুষের ছবি সমাজ মাধ্যমে রীতিমতো ঝড় তুলেছিল।

সমাজের প্রচলিত রীতিনীতির পথে না হেঁটে কিছুটা আলাদা পথে হাঁটার জন্য নেটিজেনদের মধ্যে উঠেছিল সমালোচনার ঝড়। তবে ওর মধ্যেই অনেকে প্রশংসা করেছিলেন এমন অভিনব সাহসী পদক্ষেত্রের জন্য। এবার সেই সমকামী যুগলই নিয়ে এলেন তাদের সন্তান হওয়ার খবর। তাদের ইনস্টাগ্রাম প্রোফাইলে ভেসে উঠল সেই সুখবরের কথা। একইসঙ্গে নিজেদের আনন্দের কথাও নেটিজেনদের সঙ্গে ভাগ করে নিলেন দুজনে।

অমিত শাহ ও আদিত্য মাদিরাজু। একজন দিল্লির বাসিন্দা ও অন্যজন আমেরিকান। দুজনেই বিয়ের গাঁটছড়া বাঁধেন কোভিডের আগের বছর অর্থাৎ ২০১৯ সালে। তাঁদের বিয়ের ছবি নেট দুনিয়ায় আসার সঙ্গে সঙ্গেই ভাইরাল হয়ে যায়। তাঁরাই এদিন ইনস্টাগ্রামে জানান, পরিবারে ছোট্ট সদস্য আসতে চলেছে তাঁদের। তবে অপেক্ষাটা যে দীর্ঘ ছিল তাও স্বীকার করে নিচ্ছেন তাঁরা। একরত্তি সদস্যকে সংসারে আনার আগে নানা কাঠখড় পোড়াতে হয়েছে তাঁদের। অবশেষে মিলেছে সাফল্য। এদিন ইন্সটাগ্রামে এই সুখবর ভাগ করে নেওয়ার পাশাপাশি তাঁরা একটি আল্ট্রাসোনোগ্রাফির রিপোর্টও তুলে ধরেন। একটি স্ক্যান করা ছবিতে দেখা যায়, গর্ভের মধ্যে রয়েছে বহুপ্রতীক্ষিত ভ্রুণ। এই রিপোর্টই আনন্দের খবর বয়ে এনেছে দুজনের সংসারে। পোস্টের ক্যাপশনে যুগল লেখেন, ‘এখনও পর্যন্ত সে এসে পৌঁছায়নি আমাদের কাছে। তবে দুই বছরের প্রার্থনার পর অবশেষে আমরা তার সাড়া পেয়েছি। নেটিজেনদের উদ্দেশ্যে তাঁরা লেখেন, আপনাদের ভালোবাসাতেই শেষ পর্যন্ত এমন জায়গায় পৌঁছানো সম্ভব হয়েছে। আপনাদের অফুরান ভালোবাসা ও সমর্থনের জন্য অসংখ্য ধন্যবাদ। আমাদের কাছে সত্যিই এটা অনেক।’

ইনস্টাগ্রামে এদিন পোস্টটি আসার সঙ্গে সঙ্গেই শুভেচ্ছাবার্তায় ভরে উঠতে থাকে। অসংখ্য লাভ রিয়্যাক্টে ভরে ওঠে যুগল ও রিপোর্টের ছবি। একইসঙ্গে ছোট্ট সদস্যের জন্যও অসংখ্য শুভকামনা জানান নেটিজেনরা। সুস্থভাবে সে পৃথিবীর আলো দেখুক, এমন শুভ কামনা জানাতে থাকেন শুভার্থীরা।

 

 

 

বন্ধ করুন