বাংলা নিউজ > টুকিটাকি > COVID-19 During Pregnancy: যে সব হবু মায়েদের করোনা হয়েছিল, তাঁদের সন্তানদের কোনও ভয় আছে কি? কী বলছে গবেষণা
অন্তঃসত্ত্বা অবস্থায় করোনা সংক্রমণ হলে, সন্তানের উপর তার প্রভাব কেমন পড়ে?

COVID-19 During Pregnancy: যে সব হবু মায়েদের করোনা হয়েছিল, তাঁদের সন্তানদের কোনও ভয় আছে কি? কী বলছে গবেষণা

  • মানসিক স্বাস্থ্য এবং স্নায়ুতন্ত্রের উপর করোনার প্রভাব কেমন পড়ে, তা নিয়ে দীর্ঘ দিন ধরে গবেষণা চালাচ্ছেন বিজ্ঞানীরা। এবার একটি গবেষণা আলোকপাত করল, যে সব গর্ভবতীদের করোনা হয়েছিল, তাঁদের সন্তানের স্নায়ুর উপর সেই সংক্রমণের কেমন প্রভাব পড়েছে, তা নিয়ে। 

সম্প্রতি এক গবেষণা থেকে আশঙ্কা করা হয়েছে, বিগত দু’বছরে যে সকল করোনা আক্রান্ত মহিলারা সন্তান জন্ম দিয়েছেন, সেই সন্তানদের স্নায়ুতন্ত্রের বিকাশে জটিলতা দেখা দিতে পারে। যদিও এই গবেষণা থেকে নির্দিষ্ট করে এখনই কিছু বলা সম্ভব নয় বলে মনে করছেন চিকিৎসকরা।

করোনা অতিমারির শুরু থেকেই চিকিৎসকরা মানুষের মানসিক স্বাস্থ্য ও স্নায়ুতন্ত্রে এই অতিমারির কী প্রভাব পড়তে পারে সেই বিষয় নিয়ে গবেষণা চালিয়ে যাচ্ছেন। অনেকে আশঙ্কা করছেন, যেভাবে বিংশ শতাব্দীর পোলিও অতিমারির ফলে এক প্রজন্মের শিশুরা পক্ষাঘাতগ্রস্ত হয়েছিল, করোনা অতমারি শিশুদের উপর সেই ধরনের প্রভাব রাখলেও রাখতে পারে। কিন্তু বেশিরভাগ চিকিৎসক মনে করেন, এই প্রশ্নের কোনও নির্দিষ্ট উত্তর দেওয়ার আগে আরও দীর্ঘ গবেষণা প্রয়োজন।

বিগত দুই বছরে জন্মেছে এমন মোট ৭,৭৭২ জন শিশুর উপর সমীক্ষা চালিয়েছে হাভার্ড মেডিক্যাল স্কুল। তার মধ্যে ২২২ জন শিশুর মা গর্ভবতী থাকাকালীন করোনায় আক্রান্ত হয়েছিলেন। দেখা গিয়েছে এই ২২২ জন শিশুর জন্মের ঠিক ১২ মাসের মাথায় স্নায়ুর চিকিৎসার প্রয়োজন হচ্ছে।

এই পরিসংখ্যান যথেষ্টই আশঙ্কার হলেও, অনেক বিশেষজ্ঞর মতে, এখনই আতঙ্কিত হওয়ার কারণ নেই। তাঁদের মতে এই ধরনের গবেষণার বেশ কিছু সীমাবদ্ধতা আছে। কারণ শিশুদের এই ধরনের সমস্যা নিয়ে নিশ্চিত করে কিছু বলতে হলে আরও বেশ কিছুদিন অপেক্ষা করা উচিত। উদাহরণ হিসাবে বলা যায়, কোনও শিশু অটিজমে আক্রান্ত কি না তা বোঝা যায় সেই শিশুর জন্মের দুই বছরের পরে। সুতরাং বলা যেতে পারে এই শিশুদের ক্ষেত্রে সেই সময় এখনও আসেনি।

এই গবেষণা প্রসঙ্গে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের এক বিশিষ্ট চিকিৎসক-গবেষক বলেছেন, এই গবেষণা থেকে শিশুদের স্নায়ুতন্ত্রের বিকাশের জটিলতা ও করোনা সংক্রমনের কোনও সরাসরি যোগসূত্র স্থাপন করা সম্ভব নয়।

তবে অন্যান্য চিকিৎসকরা মনে করেন, এই গবেষণা থেকে একটি বিষয় পরিষ্কার হতে পারে, সেই বিষয়টি হল টিকাকরণের ব্যাপক প্রয়োজনীয়তা। কারণ অন্যান্য গবেষণা ও কিছুটা এই গবেষণায় দেখা গিয়েছে, গর্ভবতী মহিলাদের ক্ষেত্রেও টিকা নেওয়া কতটা জরুরি। গর্ভবতী মহিলা ও তাঁর শিশু উভয়ের সুরক্ষা নিশ্চিত করতে টিকার কোনও বিকল্প নেই।

বন্ধ করুন