বাংলা নিউজ > টুকিটাকি > Diet to Keep Kidney Fit: কিডনি সুস্থ রাখতে ডায়েটে এই খাবারগুলি রাখতে একদমই ভুলবেন না! বিশেষজ্ঞের পরামর্শ একনজরে
কিডনি সুস্থ রাখতে কেমন ধরনের খাবার খাওয়া উচিত? দেখে নেওয়া যাক। ছবি সৌজন্য-Pixabay

Diet to Keep Kidney Fit: কিডনি সুস্থ রাখতে ডায়েটে এই খাবারগুলি রাখতে একদমই ভুলবেন না! বিশেষজ্ঞের পরামর্শ একনজরে

  • কিডনি সুস্থ থাকলে শরীরের সার্বিক উন্নতি ঘটে। ফিটনেস বিশেষজ্ঞ বিজয় টক্কর এই বিষয়টি নিয়ে বেশ কয়েকটি টিপস দিচ্ছেন। তিনি জানান দিচ্ছেন, কোন কোন ধরনের খাবার ডায়েট চার্টে রাখলে, কিডনি সুস্থ থাকতে পারে।

আমাদের সার্বিক ফিটনেসের একটা বড় দিক হল কিডনি। কিডনির জটিলতা বাড়লে শরীরের বিভিন্ন দিকের সমস্যা বেড়ে যায়। তবে বিশেষজ্ঞরা বলছেন, কিডনিকে সুস্থ রাখা খুব একটা কঠিন কাজ নয়। যদি সঠিক নিয়ম মেনে, সঠিক ডায়েট চার্ট মেনে রোজ খাওয়া দাওয়া করা যায়, তাহলে কিডনি সুস্থ থাকতে বাধ্য। আর কিডনি ফিট হলেই সার্বিক ফিটনেটেসের অনেকটা দিক হয়ে যায়। কিডনি সুস্থ থাকলে হাড় থাকে মজবুত, রক্ত চাপ থাকে নিয়ন্ত্রণে, সাধারণ হিমোগ্লোবিন নির্দিষ্ট পরিমাণের মধ্যে থাকে। ফিটনেস অন্তঃপ্রনর বিজয় টক্কর এই বিষয়টি নিয়ে বেশ কয়েকটি টিপস দিচ্ছেন। তিনি জানান দিচ্ছেন, কোন কোন ধরনের খাবার ডায়েট চার্টে রাখলে, কিডনি সুস্থ থাকতে পারে।

কিডনির জন্য ডায়েট চার্ট:

- জল পান করার পরিমাণ বাড়াতে হবে। সাধারণ ৭ থেকে ৮ গ্লাস জল নিত্যদিন প্রয়োজন। এটি কিডনি ও শরীরের সার্বিক সুস্থতার জন্য প্রয়োজন।

-উচ্চ প্রোটিন, কিডনির সমস্যাকে আরও বাড়িয়ে দিতে পারে। কিডনিত স্টোন থেকে শুরু করে যদি বিভিন্ন রকমের সমস্যা থাকে, তাহলে প্রোটিন জাতীয় খাবার বেশি খাওয়া থেকে বিরত থাকুন। এক কিলোগ্রামের হিসাবে প্রতিদিন ১ গ্রাম প্রোটিন খেলে তা কার্যকরী ফল দিতে পারে।

- প্রসেসড, রিফাইন্ড খাবার থেকে বাঁচুন। এই ধরের খাবারে চিনির পরিমাণও অনেক সময় বেশি থাকে। সুগারের সমস্যা শরীরে বগু ধরনের জটিলতা বাড়ায়। প্রসেসড ফুড থেকে সমস্যা বাড়ে কিডনির। ফলে গাছ পাকা জিনিস, বা টাটকা সবজি পেলে , তা খাওয়ার দিকে ঝুঁকতে পারেন।

-যে সমস্ত ফলে ভিটামিন সি রয়েছে সেই সমস্ত খাবার খাওয়া উচিত। শসা, কলা জাতীয় খাবার কিডনি সুস্থ রাখতে ভাল খাবার।

- কম ফ্যাটের ডেয়ারি প্রোডাক্ট কিডনি সুস্থ রাখতে ভাল খাবার। এছাড়াও শস্য জাতীয় খাবার, সবজি শরীরের পক্ষে ভাল।

- খাবারে সোডিয়ামের পরিমাণ কম রাখা জরুরি। এছাড়াও বাড়ির বাইরে তৈরি মিষ্টির দিকে না ঝুঁকে বাড়িতে বানানো কম মিষ্টি খেলে তা উপকার দিতে পারে।

বন্ধ করুন