বাংলা নিউজ > টুকিটাকি > দুধ গরম না ঠান্ডা, কোনটি শরীরের জন্য বেশি উপকারী? জেনে নিন চিকিৎসকের মতামত
দুধ গরম খাবেন না ঠান্ডা!
দুধ গরম খাবেন না ঠান্ডা!

দুধ গরম না ঠান্ডা, কোনটি শরীরের জন্য বেশি উপকারী? জেনে নিন চিকিৎসকের মতামত

  • সবারই উচিত প্রতিদিন অন্তত এক গ্লাস করে দুধ খাওয়া। এতে হাড় ও মাংসপেশি শক্ত হয়।

আপনার যদি রোজ দুধ খাওয়ার অভ্যাস থাকে, তাহলে আপনার মনে এই প্রশ্ন আসতেই পারে, কোন দুধ শরীরের জন্য বেশি উপকারি? ঠান্ডা দুধ খেলে বেশি উপকার আসবে নাকি গরম দুধ খেলে। ক্যালসিয়াম, ভিটামিন সি, পটাশিয়ামের গুণ রয়েছে দুধে। সঙ্গে এটির আরও নানা ধরনের উপকারিতাও রয়েছে। 

বেশিরভাগ মানুষ গরম দুধ খাওয়া পছন্দ করলেও, অনেকে আবার ঠান্ডা দুধ খেতেই বেশি ভালোবাসেন। ডায়েট এক্সপার্ট ডা. রঞ্জনা সিং-এর মতে, দুধ ঠান্ডা হোক বা গরম দুটোই উপকারি। দুই ধরনের দুধ একেক ধরনের উপকার নিয়ে আসে। আসলে আপনি দুধ গরম খাবেন না ঠান্ডা, তা পুরোপুরি নির্ভর করে ঋতুর ওপর। 

অনেকেই দুধ খেতে পছন্দ করেন না। কিন্তু সবারই উচিত প্রতিদিন অন্তত এক গ্লাস করে দুধ খাওয়া। এতে হাড় ও মাংসপেশি শক্ত হয়। গরমের সময় ঠান্ডা দুধ খেলে শরীর ঠান্ডা থাকে। এটি পরিপাকতন্ত্রকেও ঠান্ডা রাখে। অন্য দিকে, রাতে দুধ খেয়ে ঘুমনোর অভ্যাস থাকলে শীতের সময় গরম দুধ অবশ্যই খাবেন। এটি শরীরকে গরম রাখে ও ঠান্ডা লাগার হাত থেকে বাঁচায়। 

গরম দুধের উপকারিতা

ডা. রঞ্জনা সিং মনে করেন দুধ গরম থাকলে তা খুব সহজেই হজম করা যায়। হজম সংক্রান্ত সমস্যা, পেট খারাপ, গ্যাস থেকে দূরে থাকতে গরম দুধ পান করুন। ঘুমোতে যাওয়ার আগে গরম দুধ পান করলে ঘুম ভালো হয়, কারণ দুধে থাকা অ্যামিনো অ্যাসিড সেরোটোনিন ও মেলাটোনিন-কে নিয়ন্ত্রণ করে শরীরকে বিশ্রাম দিতে সাহায্য করে। 

ঠান্ডা দুধের উপকারিতা

ডা.  সিং-এর মতে ঠান্ডা দুধ পান করলে শরীর ক্যালসিয়াম বেশি মাত্রায় গ্রহণ করতে সক্ষম হয়। এমনকী, অ্যাসিডের সমস্যা হলে ঠান্ডা দুধ পান করলে খানিকটা আরাম মিলতে পারে। শুধু তাই নয়, এর মধ্যে ইলেকট্রোলাইটস থাকায় এটি শরীরের আদ্রতাও বজায় রাখতে সাহায্য করে। তবে, ঘুমোতে যাওয়ার আগে ঠান্ডা দুধ না খাওয়াই ভালো। এতে হজমের সমস্যা দেখা দিতে পারে। সঙ্গে কফ, সর্দি-কাশির সমস্যাও হতে পারে।

বন্ধ করুন