বাংলা নিউজ > টুকিটাকি > কন্ডিশনার ব্যবহারের সময় এই ভুলগুলো করছেন না তো?
সঠিক কন্ডিশনারে পান নরম আর মসৃণ চুল। (ছবি-সংগৃহিত)
সঠিক কন্ডিশনারে পান নরম আর মসৃণ চুল। (ছবি-সংগৃহিত)

কন্ডিশনার ব্যবহারের সময় এই ভুলগুলো করছেন না তো?

শ্যাম্পু নিয়ে আমরা যতটা খুতখুতে, কন্ডিশনার নিয়ে তেমনটা একদমই নই। দেখে নিন কী করবেন!

রেশমের মতো নরম আর মসৃণ চুল কে না চায়! আর তাই শ্যাম্পু করার পর চুলের আদ্রতা ধরে রাখতে কন্ডিশনার ব্যবহারের কথা বলে থাকেন বিশেষজ্ঞরা। এতে চুলের ঝলমলেভাব বজায় থাকে। তবে, মনে রাখতে হবে কন্ডিশনার ব্যবহারেরও কিছু নিয়ম রয়েছে। যা জানা না থাকলে চুলের তেমন কোনও উপকার তো হয়ই না, বরং ক্ষতিই হয়ে যায়!

ভুলেও চুলের গোড়ায় কন্ডিশনার লাগাবেন না। চুলের গোড়া থেকে এমনিতেই প্রাকৃতিক তেল উৎপন্ন হয়। এর ফলে গোড়ায় কন্ডিশনার লাগালে চুল অতিরিক্ত তেলতেলে হয়ে যাবে। চুলের মাঝামাঝি অংশ থেকে লাগানো শুরু করুন কন্ডিশনার।

বেশি কন্ডিশনার লাগানো মানেই যে চুল বেশি সিল্কি হবে, এমন ভাবা ভুল। অতিরিক্ত কন্ডিশনারের ব্যবহারে চুল চিটচিটে হয়ে যায় আর কম কন্ডিশনার ব্যবহারে তা চুলে ঠিক মতো কাজই করবে না। তাই ভালো ফলাফল পেতে চুলের ঘনত্ব ও ধরন বুঝে কন্ডিশনার ব্যবহার করতে হয়।

অনেকেই তাড়াহুড়ো করে, কন্ডিশনার লাগানোর প্রায় সঙ্গেসঙ্গেই চুল ধুয়ে নেয়। এতে কন্ডিশনারের উপকারিতাই পাবেন না। তাই চুলে কন্ডিশনার লাগিয়ে অন্তত ৪ থেকে ৫ মিনিট অপেক্ষা করুন। তারপর ধুয়ে ফেলুন। ডিপ কন্ডিশনিং এর ক্ষেত্রে মিনিট ১৫ রাখুন। তবে এক্ষেত্রে অবশ্যই শাওয়ার ক্যাপ পরে নেবেন।

শ্যাম্পু নিয়ে আমরা যতটা খুতখুতে, কন্ডিশনার নিয়ে তেমনটা একদমই নই। কিন্তু, শ্যাম্পুর মতো চুলের ধরন বুঝে কন্ডিশনার নির্বাচন করাও জরুরি। চুল পাতলা হলে হালকা কন্ডিশনার ব্যবহার করা উচিত। মনে রাখতে হবে পাতলা চুলে নিয়মিত ‘ডিপ কন্ডিশনার’ ব্যবহার, চুলের অকারণ ওজন বাড়ায়। তাই  চুলের ধরন বুঝেই এবার থেকে কন্ডিশনার বাছাই করুন।

বন্ধ করুন