বাংলা নিউজ > টুকিটাকি > Plastic Recycling: আফ্রিকায় প্লাস্টিক রিসাইক্লিং করে শরণার্থীদের আয়, পরিবেশ রক্ষায় বড় উদ্যোগ

Plastic Recycling: আফ্রিকায় প্লাস্টিক রিসাইক্লিং করে শরণার্থীদের আয়, পরিবেশ রক্ষায় বড় উদ্যোগ

প্লাস্টিক নিয়ে বড় উদ্যোগ (DW)

Plastic Recycling: সরকারের উদাসীনতা সত্ত্বেও বেসরকারি উদ্যোগে সামান্য হলেও যে পরিবর্তন আনা সম্ভব, উগান্ডার এক প্রতিষ্ঠান তা দেখিয়ে দিচ্ছে। 

সরকারের উদাসীনতা সত্ত্বেও বেসরকারি উদ্যোগে সামান্য হলেও যে পরিবর্তন আনা সম্ভব, উগান্ডার এক প্রতিষ্ঠান তা দেখিয়ে দিচ্ছে৷ বেড়ে চলা প্লাস্টিক বর্জ্য পুনর্ব্যবহারের এক কর্মসূচি শরণার্থীদের আয়েরও সুযোগ দিচ্ছে৷

উগান্ডার শরণার্থী শিবিরে জীবনযাত্রা মোটেই সহজ নয়৷ কিন্তু ডোরিস কাভিরা অর্থ উপার্জনের এক নতুন পথ খুঁজে পেয়েছেন৷ তিনি গোটা ক্যাম্প জুড়ে পড়ে থাকা প্লাস্টিকের বোতল সংগ্রহ করেন৷ এমনকী যে ছোট একফালি জমিতে তিনি কিছু শাকসবজির চাষ করেন, সেখানেও এমন বোতল পড়ে থাকে৷ তিনি এক রিসাইকেল কোম্পানির কাছে সেই প্লাস্টিক বোতল বিক্রি করেন৷ ডোরিস জানালেন, ‘আমি মাসে প্রায় ২৪ ইউরো রোজগার করি৷ ক্রেতা প্লাস্টিকের বস্তা ওজন করেন৷ আমি ২৪ ইউরো পাই, তবে বস্তা ভারি হতে হবে।’

ডোরিস প্রায় আট বছর আগে গণপ্রজাতন্ত্রী কঙ্গোর যুদ্ধকবলিত নর্থ কিভু প্রদেশ থেকে পালিয়ে আসেন৷ তিনি উগান্ডায় বসবাসরত প্রায় ১৭ লাখ শরণার্থীদের একজন৷

বেশিরভাগ শরণার্থী প্রতিবেশী দেশ দক্ষিণ সুদান, গণপ্রজাতন্ত্রী কঙ্গো এবং বুরুন্ডি থেকে এসেছেন৷ এই সব দেশ সংকট ও গৃহযুদ্ধে জর্জরিত৷ ফলে উগান্ডায় আফ্রিকা মহাদেশের সবচেয়ে বেশি শরণার্থী বাস করেন৷ তাঁদের দৈনন্দিন প্রয়োজন মেটানো বিশাল এক চ্যালেঞ্জ।

ডোরিস কাভিরা উগান্ডার পশ্চিমে কিয়াংওয়ালি শরণার্থী বসতিতে নতুন করে জীবন শুরু করছেন৷ তাঁর বাগানের কাছেই বর্জ্য সংগ্রহের এক কেন্দ্র রয়েছে৷ বিক্রির বাবদ আয় তাঁর মোবাইল অ্যাকাউন্টে পয়েন্ট হিসেবে জমা হয়৷ তিনি সেই পয়েন্ট দিয়ে দোকানে কিছু কিনতে পারেন অথবা নগদ টাকা তুলতে পারেন৷শ রণার্থী ও ইকোপ্লাস্টাইল সংস্থার এজেন্ট হিসেবেমোরেস বাংগা বলেন, ‘মানুষ আরো প্লাস্টিক আনলে আমাদের পরিবেশের উপকার হয়৷ প্লাস্টিক পরিবেশের শ্বাসরুদ্ধ করে৷ প্লাস্টিক মাটির উর্বরতা ধ্বংস করে দেয়, মাটি তার উর্বরতা হারায়৷ আমরা প্লাস্টিক সংগ্রহের কাজ চালিয়ে গেলে মাটি আবার উর্বরতা ফিরে পাবে।’

উদ্যোগপতি হিসেবে ফ্র্যাংক কামুগিয়িশা-র মনে প্লাস্টিককে ব্যবসায় রূপান্তরিত করার আইডিয়া এসেছিল৷ তিনি ও তাঁর টিম এক অ্যাপ সৃষ্টি করে এক বছর আগে দুটি জায়গায় সেই কর্মযজ্ঞ চালু করেছিলেন৷ উগান্ডার পূর্বে জিনজা এবং পশ্চিমে এই রিফিউজি ক্যাম্পে ইকোপ্লাস্টাইল সংস্থা সেই উদ্যোগের সূচনা করেছে৷ ফ্র্যাংক বলেন, ‘আমাদের মতে, দশ লাখেরও বেশি শরণার্থী ব্যবসা হিসেবে রিসাইক্লিং-এর কাজ করবেন, এমনটা অবশ্যই সম্ভব৷ প্লাস্টিক রিসাইক্লিং থেকে তারা দিনে এক ডলার আয় করতে পারেন৷ ফলে পরিবেশও অনেক সাফ হয়ে যাবে৷ আমরা সেটা করতে পারলে আমরা এক ঢিলে তিন পাখি মারতে পারি৷ অর্থাৎ মানুষ, গ্রহ ও সমৃদ্ধির প্রতি মনোযোগ দিতে পারি।’

ক্যাম্প থেকে বর্জ্য প্লাস্টিক কাম্পালা শহরের কাছে কোম্পানির কারখানায় নিয়ে আসা হয়৷ সেখানে প্লাস্টিক টুকরো করে গলিয়ে ছাদের টাইলে রূপান্তরিত করা হয়৷ প্রচলিত মাটির টাইলের তুলনায় সেই টাইল বেশ হালকা এবং উৎপাদন ব্যয়ও কম৷ তাতে নানা রং যোগ করা যায়৷ এমনকি সেগুলি প্রাকৃতিক মাটি বা কংক্রিটের রংয়েরও হতে পারে৷ কাম্পালার অনেক বাসার ছাদে ইতোমধ্যেই এমন টাইল বসানো হয়েছে৷ ফ্র্যাংক কামুগিয়িশা জানান, ‘আমরা একশোভাগ প্লাস্টিক বর্জ্য দিয়ে সেগুলি তৈরি করি৷ সেগুলির রং ইটের মতো লাল, দেখতে প্রচলিত মাটির টাইলের মতো৷ কিন্তু সেগুলির ওজন দুই গুণ কম৷ ভাঙার কোনো সম্ভাবনা নেই৷ নির্মাণের ব্যয়ও কমিয়ে দেয়।’

গত বছর এই কোম্পানি পাঁচ লাখ কিলোরও বেশি ওজনের প্লাস্টিক বোতল রিসাইকেল করেছে৷ এমন ছোট এক কোম্পানির জন্য সেটা যথেষ্ট বড় কর্মযজ্ঞ৷ কিন্তু সেই সংখ্যা পরিবর্তন আনার ক্ষেত্রে অতি নগন্য৷ কারণ সে দেশে বছরে প্রায় দুই লাখ বিশ হাজার টন প্লাস্টিক বর্জ্য সৃষ্টি হয়৷ এখনো পর্যন্ত উগান্ডার সরকার প্লাস্টিক বর্জ্য কমানোর কোনো পরিকল্পনা করে নি৷ জাতীয় স্তরে কোনো রিসাইক্লিং সিস্টেম না থাকায় পরিবেশ বিশেষজ্ঞরা অত্যন্ত হতাশ৷ মাকেরেরে বিশ্ববিদ্যালয়ের পরিবেশবিদ জোয়েল কিনোবে বলেন, ‘উগান্ডায় তিন শতাংশেরও কম প্লাস্টিক রিসাইকেল করা হয়৷ বাকি অংশ পরিবেশের কোলে ফেলে দেওয়া হয়।’

এর ফলে গোটা দেশজুড়ে প্লাস্টিক বর্জ্য বড় সমস্যা হয়ে উঠেছে৷ সাধারণত স্থানীয় স্তরের সংগঠনগুলি পরিবর্তন আনার চেষ্টা করছে৷ কিয়াংওয়ালি রিফিউজি ক্যাম্পে কেয়ার ইন্টারন্যাশানাল নামের এনজিও ইকোপ্লাস্টাইল সংস্থার সহায়তায় প্লাস্টিক পুনর্ব্যবহারের উদ্যোগ নিচ্ছে৷

ক্যাম্পে এই উদ্যোগের খবর ছড়িয়ে পড়ার ফলে এক হাজারেরও বেশ শরণার্থী ‘ট্র্যাশ ফর ক্যাশ' কর্মসূচিতে অংশ নিচ্ছেন৷ এমন কর্মসূচির ফলে পরিবর্তন লক্ষ্য করছে সেই এনজিও৷ কেয়ার ইন্টারন্যাশানালের উগান্ডা শাখার প্রতিনিধি অ্যাফ্রিকান মুহাংগি বলেন, ‘গত তিন মাসে আমরা ১৩ টন পর্যন্ত প্লাস্টিক সংগ্রহের কাজ দেখেছি৷ এটা সত্যি বিশাল পরিমাণ বটে৷ শুধু পরিবেশ থেকেই প্লাস্টিক সরিয়ে ফেলা হচ্ছে না, সংগ্রহকারী, এগ্রিগেটর ও প্লাস্টিক রিসাইক্লিং কর্মীদের উপর আমদের বিনিয়োগের সুফলও দেখতে পাচ্ছি।’

প্রণোদনা হিসেবে অ্যাপ-টির কল্যাণে এখন রিসাইক্লিং-এর জন্য আরো প্লাস্টিক বর্জ্য সংগ্রহ করা হচ্ছে৷ ফ্র্যাংক কামুগিয়িশা যখনই কিয়াংগোয়ালিতে যান, সবাই তাঁকে অ্যাপ-টির ব্যবহার দেখানোর অনুরোধ করেন৷ অনেক শরণার্থীর জন্য সামান্য আয়ও বড় পরিবর্তন আনতে পারে৷ শরণার্থী ও প্লাস্টিক সংগ্রহকারী নোয়েলা সুবিরা বলেন, ‘এই ক্যাম্পে বেশিরভাগই একা মা রয়েছে৷ আমরা আর স্বামীদের সঙ্গে থাকি না৷ তারা শিশুসহ আমাদের ত্যাগ করেছে৷ কিন্তু এই ব্যবসা আমাদের সাহায্য করেছে, কারণ প্রতিদিন সকালে আমাদের কিছু করার আছে৷’

ফ্র্যাংক কামুগিয়িশা ও ডোরিস কাভিরা নতুন এক পথে পাড়ি দিয়েছেন৷ সেই উদ্যোগের সুফলও পাওয়া যাচ্ছে৷ উদ্যোগপতি হিসেবে ফ্র্যাংক অন্যান্য সংগঠনের সঙ্গেও যোগাযোগ করছেন৷ অন্যান্য রেফিউজি ক্যাম্পেও নিজের কর্মসূচি চালু করতে চান তিনি৷

হিলারি আইসেসিগা, ইয়ুলিয়া মিলকে/এসবি

(বিশেষ দ্রষ্টব্য : প্রতিবেদনটি ডয়চে ভেলে থেকে নেওয়া হয়েছে। সেই প্রতিবেদনই তুলে ধরা হয়েছে। হিন্দুস্তান টাইমস বাংলার কোনও প্রতিনিধি এই প্রতিবেদন লেখেননি।)

টুকিটাকি খবর

Latest News

অন্য নারীতে মগ্ন স্বামী! দু-মাসের শিশু কোলে 'তিন তালাক' দুবাইয়ের রাজকুমারীর মোদীর স্লোগান ‘বদলে’ মালব্যকে পাশে পেলেন শুভেন্দু! খাদের দিকে ঠেললেন সুকান্ত? সারা দিনের কোন সময়ে সহবাসের জন্য সবেচেয়ে ভালো? কী বলছে বিজ্ঞান থানার ভেতরই মার শরীরে আগুন ধরালেন যুবক, কারণ জানলে চমকে যাবেন Video: জমি কেড়েছে মাফিয়া! অভিযোগে কালেক্টরের দফতরে হতাশ কৃষক যা করলেন 'আম্বানিদের বিয়েতে বোমা পড়বে',আতঙ্ক ছড়িয়ে গ্রেফতার ইঞ্জিনিয়র, কে তিনি? Video: কাশ্মীরের ডাল লেকে মহরম ঘিরে কিছু দৃশ্য একনজরে ছবিতে লালের চিহ্নমাত্র নেই, তবু কোকাকোলার ক্যানটি লালই দেখাচ্ছে! কেন জানেন ৩৫ বছর পর, কার্গিল নায়ক প্রাক্তন মেজর জেনারেলের পুত্র বসলেন পিতার রেখে যাওয়া পদে শাহরুখের নায়িকাকে ঘিরে হাজারো নগ্ন শরীর, বাড়ি ফিরে বাথরুমে দৌড়ালেন সুচিত্রা!

Copyright © 2024 HT Digital Streams Limited. All RightsReserved.