বাংলা নিউজ > টুকিটাকি > Singapore: সিঙ্গাপুরে দ্বিতীয় সর্বোচ্চ পর্যটক ভারতীয়রা! সংখ্যা ছাপিয়ে গিয়েছে চিনকে

Singapore: সিঙ্গাপুরে দ্বিতীয় সর্বোচ্চ পর্যটক ভারতীয়রা! সংখ্যা ছাপিয়ে গিয়েছে চিনকে

সিঙ্গাপুরে ভিড় বাড়ছে ভারতীয় পর্যটকদের  (Photo by Roslan RAHMAN / AFP) (AFP)

পরিসংখ্যান বলছে, কোভিডের আগে ভারতীয় পর্যটকদের চেয়েও চিনা পর্যটকদের ভিড় সবচেয়ে বেশি ছিল সিঙ্গাপুরে। ২০২২ সালে সিঙ্গাপুরে নভেম্বর পর্যন্ত ভারতীয় পর্যটকদের সংখ্যা ছিল ৬১২,৩০০। যেখানে সিঙ্গাপুরে সাধারণ পর্যটকররা গড়ে ৫.১৯ দিন থাকেন বলে পরিসংখ্যান বলছে, সেখানে ভারতীয় পর্যটকরা সিঙ্গাপুরে থাকছেন ৮.৬১ দিন।

সিঙ্গাপুরের মাটিতে পা রাখা সর্বোচ্চ সংখ্য়ক পর্যটক কোন দেশ থেকে আসেন, তা নিয়ে সদ্য একটি রিপোর্ট প্রকাশ্যে এসেছে। সেখানে দেখা গিয়েছে দেশের নিরিখে এই তালিকায় দ্বিতীয় ভারত। ভারতীয় পর্যটকদের ভিড় এই দেশে সর্বোচ্চের তালিকার সংখ্য়ায় দ্বিতীয়। সিঙ্গাপুরে ভারতীয় পর্যটকদের ভিড় ছাপিয়ে যাচ্ছে চিনা পর্যটকদেরও।

পরিসংখ্যান বলছে, কোভিডের আগে ভারতীয় পর্যটকদের চেয়েও চিনা পর্যটকদের ভিড় সবচেয়ে বেশি ছিল সিঙ্গাপুরে। ২০২২ সালে সিঙ্গাপুরে নভেম্বর পর্যন্ত ভারতীয় পর্যটকদের সংখ্যা ছিল ৬১২,৩০০। যেখানে সিঙ্গাপুরে সাধারণ পর্যটকররা গড়ে ৫.১৯ দিন থাকেন বলে পরিসংখ্যান বলছে, সেখানে ভারতীয় পর্যটকরা সিঙ্গাপুরে থাকছেন ৮.৬১ দিন। এরপরই রয়েছেন ইন্দোনেশিয়া, মালয়েশিয়া, অস্ট্রেলিয়ার পর্যটকরা। ২০২২ সালে সিঙ্গাপুরে নভেম্বর পর্যন্ত ইন্দোনেশিয়ার পর্যটক ছিলেন, ৯৮৬,৯০০ জন, মালয়েশিয়া থেকে ছিলেন ৪৯৫৪৭০ জন, অস্ট্রেলিয়ায় ৪৭৬৪৮০ জন ছিলেন। বলা হচ্ছে, কোভিড পরবর্তী সময়ে ২০২২ সালই সিঙ্গাপুরের জন্য সবচেয়ে ভালো সময় ছিল পর্যটকরদের নিরিখে। 

করোনা অতিমারীর আগে সিঙ্গাপুরে প্রায় সারা বছরই পর্যটকদের ভিড় লেগে থাকত। সেই সময় বিশ্বর পঞ্চম পর্যটনস্থল হিসাবে উঠে আসে সিঙ্গাপুরের নাম। ২০১৯ সালে সেখানে ১৯.১ মিলিয়ন পর্যটকের আনাগোনা ছিল। কোভিডের আগে সিঙ্গাপুরে সবচেয়ে বেশি পর্যটক ছিলেন চিন থেকে। তার সংখ্যা ছিল ৩.৬ মিলিয়ন। এদিকে, সিঙ্গাপুর মনে করছে, চিনের লকডাউন কেটে যাওয়ায় সেদেশে বাড়তে পারে পর্যটকদের ভিড়। তবে সঙ্গে রয়েছে কোভিড কাঁটার আতঙ্কও। প্রসঙ্গত, চিন জুড়ে এই মুহূর্তে ব্যাপকভাবে ছড়াতে শুরু করেছে কোভিড। তারই মাঝে নাগরিকদের জোরালোন আন্দোলনের জেরে চিন লকডাউন শিথিল করে দেয়। এরপর থেকে চিন ঘিরে হু হু করে ছড়িয়ে পড়ে করোনা। 

 

 

 

 

 

 

 

 

বন্ধ করুন