বাংলা নিউজ > টুকিটাকি > Monkeypox: মাঙ্কিপক্স কি কোভিড থেকে এসেছে? নাকি টিকার কারণে ছড়িয়েছে? কী বলছেন বিজ্ঞানীরা
মাঙ্কিপক্সের সঙ্গে কি করোনার যোগ আছে?

Monkeypox: মাঙ্কিপক্স কি কোভিড থেকে এসেছে? নাকি টিকার কারণে ছড়িয়েছে? কী বলছেন বিজ্ঞানীরা

  • মাঙ্কিপক্স নিয়ে নানা রকম গল্প ছড়িয়েছে সোশ্যাল মিডিয়ায়। এর ক’টি ঠিক? আদৌ কোনওটি ঠিক? জেনে নিন, সত্যগুলি কী কী। 

কোভিড ১৯ এর মতোই মাঙ্কিপক্সের উৎস ও বৈশিষ্ট্য নিয়ে সোশ্যাল মিডিয়ার বিভিন্ন জায়গায় ইতিমধ্যেই শুরু হয়েছে নানা মুখরোচক গল্প। তার কতটা সত্যি আর কতটা অলিক কল্পনা?

বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা বা WHIO-র মতে, মাঙ্কিপক্স এমন একটি প্রাণীবাহিত রোগ, যার একটি সাধারণ লক্ষণ হল, শরীরে জ্বরের উপস্থিতি। এছাড়াও শরীরে র‌্যাশ ও লিম্ফ নোড ফুলে ওঠার মতো লক্ষণও দেখা যায়।

দাবি ১: গত ২৬ মে ফেসবুক পোস্টে দাবি করা হয়, অ্যাস্ট্রাজেনেকার ভ্যাকসিন থেকে মাঙ্কিপক্সের জীবানু তৈরি হয়েছে।

প্রকৃত সত্য: কিন্তু বিশেষজ্ঞদের মতে, একথা ঠিক যে অ্যাস্ট্রাজেনেকার ভ্যাকসিন তৈরি করতে শিম্পাঞ্জির অ্যান্টিবডি ব্যবহার করা হয়েছে। কিন্তু মাঙ্কিপক্সের ভাইরাসের জন্য যে প্রজাতির শিম্পাঞ্জি দায়ী, সেই প্রজাতির অ্যান্টিবডি এই ভ্যাকসিন তৈরি করতে ব্যবহৃত হয়নি।

দাবি ২: ট্যুইটারে এক কানাডার নাগরিক দাবি করেন, মাঙ্কিপক্স থেকে যে রোগ হয় তা মূলত দাদ।

প্রকৃত সত্য: দাদ রোগের জন্য যে ভাইরাস দায়ী, সেই ভাইরাস কোনও ভাবেই মাঙ্কিপক্সের রোগের জন্য দায়ী নয়। দাদ রোগের জন্য দায়ী ভ্যারিসেলা-জোস্টার ভাইরাস।

দাবি ৩: মাঙ্কিপক্স গবেষণাগারে তৈরি একটি কৃত্রিম ভাইরাস।

প্রকৃত সত্য: এমন কোনও বৈজ্ঞানিক প্রমান পাওয়া যায়নি, যার ফলে বলা যেতে পারে মাঙ্কিপক্স একটি মানুষের তৈরি কৃত্রিম ভাইরাস। কানাডার বিশিষ্ট বিজ্ঞানি Fatima Tokhmafshan বলেছেন, ভাইরাসের ডিএনএ-র জিনোম সিকোয়েন্সিং করার পরে বলা যায়, এই ভাইরাস পরীক্ষাগারে তৈরি করা সম্ভব নয়। তাঁর মতে, এই ভাইরাসের একটি প্রকরণ পশ্চিম আফ্রিকায় পাওয়া যায়।

বন্ধ করুন