বাংলা নিউজ > টুকিটাকি > National Nutrition Week 2021: নিয়মিত খান গুড়, জেনে নিন কেন
গুড় রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বৃদ্ধি করে থাকে এবং সর্দি, কাশি থেকে শরীরকে নিরাপত্তা প্রদান করে।
গুড় রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বৃদ্ধি করে থাকে এবং সর্দি, কাশি থেকে শরীরকে নিরাপত্তা প্রদান করে।

National Nutrition Week 2021: নিয়মিত খান গুড়, জেনে নিন কেন

  • গুড়ের প্রকৃতিও মিষ্টি, তাই এটিও সীমিত পরিমাণে খাওয়া উচিত। তবে চিনির সঙ্গে গুড়ের তুলনায় করতে গেলে, গুড়কেই বেছে নিন, কারণ এতেই আসলে অধিক পুষ্টিকর উপাদান উপস্থিত।

পরিশোধিত চিনি ও গুড়ের মধ্যে বিরোধ বহুদিনের। তবে অধিকাংশ ক্ষেত্রেই চিনি জয়ী হয়। তবে চিনির পরিবর্তে গুড় ব্যবহার করার পক্ষেও একাধিক যুক্তি রয়েছে।

গুড়ের প্রকৃতিও মিষ্টি, তাই এটিও সীমিত পরিমাণে খাওয়া উচিত। তবে চিনির সঙ্গে গুড়ের তুলনায় করতে গেলে, গুড়কেই বেছে নিন, কারণ এতেই আসলে অধিক পুষ্টিকর উপাদান উপস্থিত। এখানে এমন পাঁচটি বিষয় উল্লেখ করা হল, যা জানার পর নিজের খাদ্য তালিকায় চিনির স্থানে গুড়কে অন্তর্ভূক্ত করার কথা একবার ভেবে অবশ্যই দেখবেন। চলতি বছরের জাতীয় পুষ্টি সপ্তাহের শেষ দিনে জেনে নিন কেন গুড়কে নিজের খাদ্য তালিকায় অন্তর্ভূক্ত করবেন—

১. গুড় একটি পুষ্টিকর উপজাত দ্রব্য, যা পরিশোধিত চিনি উৎপাদনের সময় সরিয়ে ফেলা হয়। গুড়ে উপস্থিত মোলাসেস একে আরও বেশি পুষ্টিগুণে সমৃদ্ধ করে তোলে।

২. গুড়ে প্রচুর পরিমাণে ভিটামিন এবং খনিজ থাকে। পরিশোধিত সাদা চিনিতে রিক্ত ক্যালরি থাকে অর্থাৎ এই ক্যালরিতে ভিটামিন, মিনারেল, প্রোটিন, ফ্যাট, ফাইবার ও অন্যান্য উপযোগী উপাদান উপস্থিতই থাকে না।

৩. পরিশোধিত চিনি ব্যক্তির রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতাকে দমিয়ে রাখে। এর ফলে দেখা দেয় নানান রোগ এবং ব্যক্তি এর মোকাবিলার ক্ষমতাও হারিয়ে ফেলে। অন্য দিকে গুড় রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বৃদ্ধি করে থাকে এবং সর্দি, কাশি থেকে শরীরকে নিরাপত্তা প্রদান করে। 

৪. গুড় খেলে হজমপ্রক্রিয়া উন্নত হয়, অ্যানিমিয়া রোধ করা যায়। এর সাহায্যে লিভারের ডিটক্সিফিকেশন সম্ভব হয়। রোগ প্রতিরোধ প্রক্রিয়াকে ভালোভাবে কাজ করতে সাহায্য করে গুড়ে উপস্থিত উপাদান। তবে চিনি আবার মেদবাহুল্য, টাইপ-২ ডায়বিটিজ, হৃদরোগ, অবসাদ, ডিমেনশিয়া, লিভারের রোগ এবং কয়েক ধরনের ক্যান্সারের কারণ হয়ে দাঁড়াতে পারে।

৫. হাই ফ্রুক্টোস কর্ন সিরাপ বা HFCS 55 এমন এক ধরনের পরিশোধিত চিনি, যাতে ৫৫ শতাংশ ফ্রুক্টোস ও ৪২ শতাংশ গ্লুকোস থাকে। তবে গুড়ে ৭০ শতাংশের বেশি সুক্রোস থাকে। পাশাপাশি এতে আইসোলেটেড ফ্রুক্টোস ও গ্লুকোস থাকে ১০ শতাংশেরও কম। এমনকি খনিজ থাকে ৫ শতাংশ।

বন্ধ করুন