বাংলা নিউজ > টুকিটাকি > Facial eczema or atopic dermatitis: শীতকালে মুখে একজিমা মানে ভোগান্তির একশেষ, রেহাই পেতে বেছে নিন এই ঘরোয়া উপায়গুলি

Facial eczema or atopic dermatitis: শীতকালে মুখে একজিমা মানে ভোগান্তির একশেষ, রেহাই পেতে বেছে নিন এই ঘরোয়া উপায়গুলি

সহজ কিছু ঘরোয়া উপায় জানা থাকলে এর থেকে মুক্তি পাওয়া যায়। (Unsplash)

Skin care in winter home remedies to treat facial eczema or atopic dermatitis: শীতকাল মানেই একাধিক চর্মরোগ। এই সময় বায়ু শুষ্ক থাকে বলে একাধিক চর্মরোগ দেখা দেয়। তবে একজিমার মতো সমস্যা সহজ ঘরোয়া উপায়েই কমিয়ে ফেলা যেতে পারে।

শীত পড়তেই বাতাস শুষ্ক হতে থাকে। এর থেকেই একের পর এক ত্বকের সমস্যা দেখা দেয়। ত্বকের বিভিন্ন রোগগুলির মধ্যে ফেসিয়াল একজিমা বা অ্যাটপিক ডার্মাটাইটিস একটি বিশেষ প্রকৃতির চর্মরোগ। এতে মুখের ত্বক খসখসে, শুষ্ক হয়ে পড়ে। একইসঙ্গে ত্বকে চুলকানির সমস্যাও দেখা দেয়। সমস্যা গুরুতর হলে ত্বক ফেটে যায়, এমনকী রক্তপাতও হতে পারে। কেটে যাওয়া ত্বকে জীবাণুর সংক্রমণ দেখা দেয়। মুখের ত্বক শরীরের অন্যান্য অঙ্গের ত্বকের তুলনায় অনেকটাই কোমল। তাই মুখের ত্বকে এমনটা হলে সমস্যা আরও গুরুতর হয়। তবে বিশেষজ্ঞদের কথায়, সহজ কিছু ঘরোয়া উপায় জানা থাকলে এর থেকে মুক্তি পাওয়া যায়। এগুলি ত্বকের শুষ্কতা কমিয়ে ত্বকের চুলকানির সমস্যা কমায়। এছাড়া, ত্বকে জীবাণুর সংক্রমণ হতে দেয় না। দেখা গিয়েছে, এই টোটকাগুলি নিয়মিত মেনে চললে কিছু দিনেই সমস্যার সুরাহা করা সম্ভব।

আপেল সাইডার ভিনিগার: একজিমা কমাতে আপেল সাইডার ভিনিগারের প্রয়োগ ঘরোয়া টোটকা হিসেবে বেশ জনপ্রিয়। ন্যাশনাল একজিমা অ্যাসোসিয়েশনের মতে, এই ভিনিগার একজিমার লক্ষণগুলি কমাতে সাহায্য করে। তবে ব্যবহারের সময় এর পরিমাণ সম্পর্কে সচেতন থাকা জরুরি। বেশি ভিনিগার ত্বকের কোমল টিস্যুর ক্ষতি করতে পারে।

এক টেবিল চামচ আপেল সাইডার ভিনিগার এক কাপ হালকা গরম জলে মিশিয়ে তুলো দিয়ে আক্রান্ত স্থানে প্রয়োগ করতে হবে। এরপর আক্রান্ত স্থানটি একটুকরো কাপড় জিয়ে তিনঘন্টা রেখে দিতে হবে।

অ্যালোভেরা: ২০১৭ সালের একটি সমীক্ষায় দেখা গিয়েছে,এই প্রাকৃতিক ভেষজ একাধিক চর্মরোগ সারিয়ে দেয়। এছাড়াও, শরীরের অভ্যন্তরীণ রোগ কমাতেও এটি বেশ কার্যকরী।অ্যালোভেরা ক্ষতস্থান সারাতে সাহায্য করে। এছাড়াও এটি রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়িয়ে তোলে। এর অ্যান্টিব্যাকটেরিয়াল ও অ্যান্টিমাইক্রোবিয়াল গুণের জন্য এটি ফেসিয়াল একজিমার মতো সমস্যা সহজে কমিয়ে দেয়।

কোলয়েডাল ওটমিল: কোলয়েডাল ওটমিল অ্যাভেনা স্যাটিভা নামেই পরিচিত। ওটস সিদ্ধ করে এই বিশেষ উপাদানটি তৈরি করা হয়। কোলয়েডাল ওটমিল দিয়ে তৈরি লোশন ত্বকের খসখসে ও রুক্ষভাব অনেকটাই কমিয়ে দেয়। এছাড়াও এটি চুলকানি কমিয়ে একজিমা সারিয়ে তোলে।

নারকেল তেল: নারকেল তেলের মধ্যে থাকা উপকারী ফ্যাটি অ্যাসিড ত্বককে আর্দ্র রাখতে সাহায্য করে। এটি ত্বকের শুষ্কতা কমিয়ে একজিমা কমাতে সাহায্য করে। এছাড়াও, ত্বকের প্রদাহ কমায়। নতুন করে ব্যাকটেরিয়ার আক্রমণ থেকে ত্বককে রক্ষা করে।

 

এই খবরটি আপনি পড়তে পারেন HT App থেকেও। এবার HT App বাংলায়। HT App ডাউনলোড করার লিঙ্ক https://htipad.onelink.me/277p/p7me4aup

বন্ধ করুন