বাংলা নিউজ > টুকিটাকি > State government cancer care hub: ৩৫টি বেড নিয়ে শুরু ক্যানসার কেয়ার হাব, আপাতত কলকাতা পুলিশ হাসপাতালেই

State government cancer care hub: ৩৫টি বেড নিয়ে শুরু ক্যানসার কেয়ার হাব, আপাতত কলকাতা পুলিশ হাসপাতালেই

মোট ৩৫ টি বেডের একটি ইউনিট উদ্বোধন করল ক্যানসার কেয়ার হাব (Unsplash)

State government started cancer care hub at Kolkata police hospital: শুক্রবার এই ইউনিটটির উদ্বোধন হয়। আপাতত শিশুদের ক্যানসার চিকিৎসা এখানে হবে। এমন আরও ইউনিট খোলার পরিকল্পনা রয়েছে সরকারের।

শিশুদের ক্যানসার চিকিৎসার জন্য মোট ৩৫ টি বেডের একটি ইউনিট উদ্বোধন করল ক্যানসার কেয়ার হাব। শুক্রবার আইপিজিএমআর-এর সঙ্গে যৌথভাবে এই ইউনিটটির উদ্বোধন করল রাজ্য সরকার। রাজ্যের তরফে স্বাস্থ্য সচিব নারায়ণ স্বরূপ নিগম ও স্বাস্থ্য দফতর আধিকারিক দেবাশিষ ভট্টাচার্য ইউনিটটির উদ্বোধন করেন। কলকাতা পুলিশ হাসপাতালের একটি অংশে শুরু হল এই বিশেষ ইউনিট। প্রাথমিকভাবে ইউনিটটিতে ডে কেয়ার সার্ভিস দেওয়া হবে বলে জানিয়েছেন হাসপাতাল আধিকারিকরা। যেসব শিশুর ব্লাড ট্রান্সফিউশন ও কেমোথেরাপির প্রয়োজন, আপাতত তাদের জন্যই চালু হচ্ছে এই পরিষেবা। এই ইউনিট খোলায় রাজ্যে ক্যানসারের চিকিৎসা করানো আরও কিছুটা সহজ হয়ে গেল। স্বাস্থ্য দফতর সূত্রে খবর, এর পরের ইউনিটটি মেন ক্যাম্পাসে ১৫টি সাধারণ বেড নিসে করা হচ্ছে। ওই ইউনিটটিতে ক্যানসার আক্রান্ত শিশুদের কেমো ইউনিট দেওয়া হবে।

গত জুন মাসেই মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় রাজ্যে ক্যানসার চিকিৎসার জন্য ক্যানসার কেয়ার হাব প্রকল্পের উদ্বোধন করেন। এই বছরের গোড়াতে রাজ্য সরকার আইপিজিএমআর-এর সঙ্গে ক্যানসার চিকিৎসার জন্য চুক্তি করে। তখন থেকেই আইপিজিএমআর-এর মেন ক্যাম্পাসে ক্যানসারের ওপিডি ও সার্জারি বিভাগ শুরু হয়ে যায়। কলকাতা পুলিশ হাসপাতালের এই বিভাগটি এক সপ্তাহ আগে থেকেই পরীক্ষামূলক মহড়া শুরু করেছিল। মহড়া শেষে শুক্রবার সেই বিভাগটিই সবার জন্য খুলে দেওয়া হল।

ক্যানসার কেয়ার হাবের জন্য ইতিমধ্যেই রাজ্য সরকার হরিশ মুখার্জি রোডের উল্টোদিকে একটি এগারো তলা বিল্ডিং বানাতে শুরু করেছে। এটি বানানো হয়ে গেলে ক্যানসারের বেশিরভাগ চিকিৎসা এখানেই হবে। তবে স্বাস্থ্য দফতর আর ততদিন অপেক্ষা করল। তার আগেই উদ্বোধন হয়ে গেল এই ইউনিটটির। এতে কিছুটা হলেও রেহাই পাবে রাজ্যের ক্যানসার আক্রান্ত শিশুরা।

স্বাস্থ্য আধিকারিকের এক কর্তার কথায়, এগারো তলা বিল্ডিংটি বানাতে কিছুটা সময় লাগবেই। তাই অতদিন অপেক্ষা করা হচ্ছে না। সরকারের যে হাসপাতালগুলো জায়গা ফাঁকা পড়ে আছে, সেখানেই আপাতত পরিষেবা শুরু করা হবে। স্বাস্থ্য দফতরের সূত্রে জানা যাচ্ছে, এরপর রেডিয়েশন ও ক্যানসারের প্যাথোলজি বিভাগের চিকিৎসাও একই পদ্ধতিতে শুরু হয়ে যাবে।

 

 

বন্ধ করুন