বাংলা নিউজ > টুকিটাকি > Healthy foods for winter: শীত পড়তেই জ্বর-সর্দি লেগেই রয়েছে? সমস্যা এড়াতে কী কী খাবেন
ঠান্ডা লাগার হাত থেকে বাঁচতে কী খাবেন? (ফাইল ছবি)

Healthy foods for winter: শীত পড়তেই জ্বর-সর্দি লেগেই রয়েছে? সমস্যা এড়াতে কী কী খাবেন

  • শীতে রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা অনেকটাই কমে যায়। তাই বাড়ে জ্বর-সর্দি-ঠান্ডা লাগা।

শীতের শুরু থেকে অনেকের জ্বর-সর্দি লেগেই থাকে। যদিও এগুলি খুবই সাধারণ সমস্যা, তবু অস্বস্তি চলতেই থাকে। শীতের মজাও অনেকখানি নষ্ট হয়ে যায়। এর পরে যদিও বা জ্বর-সর্দি-ঠান্ডা লাগা সেরে যায়, তার পরে শরীর দুর্বল হয়ে থাকে। ফলে শীতের উৎসব বা ছুটির আনন্দও উপভোগ করা যায় না। 

শীতের এই সাধারণ ঠান্ডা লাগা বা জ্বর-সর্দির হাত থেকে বাঁচবেন কীভাবে? কীভাবেই বা শরীর খারাপের ধাক্কা দ্রুত সামলে উঠবেন? এ জন্য দরকার খাদ্যাভ্যাসে কয়েকটি খাবার যুক্ত করা। কোন কোন খাবার এই শীতে ঠান্ডা লাগার হাত থেকে আপনাকে বাঁচাতে পারে, রইল সেই তালিকা। 

  • কিউয়ি: যদিও এটি এখানকার ফল নয়, তবু এই আবহাওয়াতেও কিউয়ি শরীরের নানা রকম উপকার করতে পারে। এটি জ্বর বা সর্দি থেকে দ্রুত সেরে উঠতে সাহায্য করে। শুধু তাই নয়, এই ফলের কয়েকটি উপাদান নানা রকমের ভাইরাস এবং ব্যাকটিরিয়া থেকে শরীরকে রক্ষা করে সাহায্য করে। এর ভিটামিন সি রোগ প্রতিরোধ শক্তি অনেকটাই বাড়িয়ে দেয়। রোজ একটি করে কিউয়ি খেলে ঠান্ডা লাগার সমস্যা কমে।
  • ডাবের জল: শরীর যত আর্দ্র থাকবে, ততই রোগবালাই কম হবে। তাই শীতে শরীর সুস্থ রাখতে বা জ্বর-সর্দির সমস্যা থেকে দ্রুত সেরে উঠতে রোজ ৩ থেকে ৪ লিটার জল খাওয়া উচিত। কিন্তু এর বাইরে ফলের রস বা ডাবের জল খেতে পারলে ভালো। এগুলি দ্রুত সুস্থ করে তোলে শরীরকে। বিশেষ করে ডাবের জল খেলে গলাব্যথার সমস্যাও কমে তাড়াতাড়ি।
  • দই: শীতের শুরুতেই অনেকের শরীরেই নানা ধরনের সংক্রমণ হয়। সেগুলি সামলে উঠতে অনেককেই অ্যান্টিবায়োটিক জাতীয় ওষুধ খেতে হয়। তার প্রভাবে শরীর আরও দুর্বল হয়ে পড়ে। এই পরিস্থিতি থেকে সেরে উঠতে সাহায্য করে দই। এতে প্রচুর পরিমাণে উপকারী ব্যাকটিরিয়া রয়েছে। সেগুলি শরীর সুস্থ করতে সাহায্য করে। রোজ দই খেলে শীতকালে শরীর ভালো থাকে।
  • আদা: এটিতেও রয়েছে প্রচুর পরিমাণে ব্যাকটিরিয়া এবং ভাইরাসঘটিত সংক্রমণ-বিরোধী উপাদান। শীতের শুরুতে নানা ধরনের রোগ প্রতিরোধ করতে পারে আদা। তাই চা বা গরম জলের সঙ্গে রোজ এক কুচি আদা মিশিয়ে খেলে জ্বরে পড়ার আশঙ্কা কমে। গলাব্যথার মতো সমস্যাও কমে এর ফলে।
  • মধু: আদার মতোই মধুতেও রয়েছে প্রচুর ব্যাকটিরিয়া এবং ভাইরাসঘটিত সংক্রমণ-বিরোধী উপাদান। যাঁদের শীতকালে জ্বর বা ঠান্ডা লাগার মতো সমস্যা হয়, তাঁরা যদি রোজ চায়ের সঙ্গে এক চামচ মধু মিশিয়ে খান, তাহলে এই সমস্যা কমতে পারে। তার সঙ্গে কমে গলাব্যথার মতো সমস্যাও। 

বন্ধ করুন