বাংলা নিউজ > টুকিটাকি > পর্দার আগে বইয়ের পাতার মাঝে সৌমিত্র চট্টোপাধ্যায়ের পরের ‘অভিযান’, সাক্ষী টলিউড
‘অভিযান’-এর বুকমার্ক প্রকাশে টলিউডের তাবড় অভিনেতা-অভিনেত্রীরা। 

পর্দার আগে বইয়ের পাতার মাঝে সৌমিত্র চট্টোপাধ্যায়ের পরের ‘অভিযান’, সাক্ষী টলিউড

  • সৌমিত্র চট্টোপাধ্যায়ের জীবন নিয়ে তৈরি হচ্ছে সিনেমা ‘অভিযান’। ছবি পর্দায় মুক্তি পাওয়ার আগে প্রকাশ হল তার বুকমার্ক। অনুষ্ঠান থেকে ঘুরে এসে লিখলেন রণবীর ভট্টাচার্য

বাঙালি জীবনে বুকমার্ক অদ্ভুত এক চলমান স্মৃতি। চলমান বইয়ের এক পাতার সঙ্গে আর এক পাতার সংযোগ স্থাপনের শ্রেষ্ঠ বন্ধু বোধহয় স্রেফ বুকমার্কই বটে! বাঙালি আইকন তথা বিশ্ববরেণ্য অভিনেতা সৌমিত্র চট্টোপাধ্যায়ের বায়োপিক ‘অভিযান’ সামনের ১৪ এপ্রিল দেশজুড়ে রিলিজ করবে। তার আগে, শহরের একটি রেস্তোরাঁয়, সিনেমাটির কলাকুশলীরা উপস্থিত ছিলেন সিনেমাটি এবং সৌমিত্র চট্টোপাধ্যায়কে উৎসর্গ করে বুকমার্ক প্রকাশ অনুষ্ঠানে। উল্লেখ্য, এই বায়োপিকে সৌমিত্রবাবু অভিনয় করেছেন স্বনামে। তবে মৃত্যুর আগে দুর্ভাগ্যবশতঃ ডাবিং শেষ করে যেতে পারেননি।

এই অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন পরমব্রত চট্টোপাধ্যায়, জিশু সেনগুপ্ত, দুলাল লাহিড়ী, বাসবদত্তা চট্টোপাধ্যায়, সুরজিৎ বন্দ্যোপাধ্যায় এবং অন্যান্যরা। সিনেমার পরিচালক তথা অভিনেতা পরমব্রত চট্টোপাধ্যায় উপস্থিত সকলকে বুকমার্ক প্রকাশের আরম্ভে জানান, ‘অনেক যত্ন নিয়ে ‘অভিযান’ বানানো হয়েছে। সৌমিত্র চট্টোপাধ্যায় এক উজ্জ্বল নক্ষত্র এবং সমগ্র সিনেমা জগতে পথপ্রদর্শক ছিলেন। আজকের এই বুকমার্ক ওঁকেই উৎসর্গ করা। আশা করি, সিনেমাটি আপনাদের সবার খুব ভালো লাগবে।’

পরমব্রত এবং জিশু।
পরমব্রত এবং জিশু।

‘অভিযান’-এর প্রযোজক নবরতন ঝাওয়ার জানান, ‘আমি খুবই ভাগ্যবান যে এরকম একটি সিনেমার সঙ্গে যুক্ত হতে পেরেছি। সৌমিত্র চট্টোপাধ্যায় শুধু বাংলা বা ভারতের নন, পুরো পৃথিবীর একজন আইকন। শ্যুটিংয়ের সময় ওঁর সঙ্গে কাটানো মুহূর্তগুলো সারা জীবনের স্মৃতি হয়ে থাকবে। মনে পড়ে, লকডাউনের পর উনি ফোন করে বলতেন, দেখা করতে আসার কথা। ওঁর বয়সের জন্য যেতে সাহস পেতাম না। তবে একদিন গিয়েছিলাম এবং সারাদিন যা গল্প হয়েছিল, যা শোনার অভিজ্ঞতা হয়েছিল, আমি ধন্যবাদ দিই ঈশ্বরকে।’

প্রখ্যাত থিয়েটার এবং সিনেমাভিনেতা একান্ত আলাপচারিতায় বলেন, ‘এই ‘অভিযান’ আমাদের নয়, এই ‘অভিযান’ সৌমিত্র চট্টোপাধ্যায়ের। বাঙালির জীবনে যেমন ঘটি-বাঙাল, ইস্টবেঙ্গল-মোহনবাগান, ঠিক সেরকমই উত্তম কুমার-সৌমিত্র চট্টোপাধ্যায়। সৌমিত্র চট্টপাধ্যায় হওয়া নেহাৎ সহজ নয়, বরং যেই পরিমাণ কষ্ট, আত্মত্যাগ করতে হয়েছে ওঁকে, তা আমরা কেউই সম্ভবত পারব না। সৌমিত্রবাবু আমাদের কাছে রবীন্দ্রনাথের মতো। সেই রবীন্দ্রনাথকেও কিন্তু পুত্রশোক পেতে হয়েছিল এবং যেই বিরহের মধ্যে দিয়ে উনি গিয়েছিলেন, সেটি ভাষায় প্রকাশ করা যায় না, অবর্ণনীয়। এই সিনেমা তাই সৌমিত্র চট্টোপাধ্যায়ের প্রতি আমাদের শ্রদ্ধার্ঘ্য।’

এই সিনেমায় এছাড়া বিভিন্ন চরিত্রে রয়েছেন পাওলি দাম (সুচিত্রা সেনের চরিত্রে), সোহিনী সরকার (মাধবী মুখোপাধ্যায়ের চরিত্রে), তুহিনা দাস (ওয়াহিদা রহমানের চরিত্রে), দেব শঙ্কর হালদার (শিশির ভাদুরির চরিত্রে), রুদ্রনীল ঘোষ (রবি ঘোষের চরিত্রে), তৃধা চৌধুরী (শর্মিলা ঠাকুরের চরিত্রে)। এছাড়া একটি বিশেষ ভূমিকায় রয়েছেন প্রসেনজিৎ চট্টোপাধ্যায়।

বন্ধ করুন