বাংলা নিউজ > টুকিটাকি > Weight Loss Tips: ওজন কমবে তিসির বীজের জাদুতে, জানুন এর উপকারিতা ও ব্যবহার
প্রোটিন, ফাইবার হেল্দি ফ্যাট, ক্যালশিয়াম ও ওমেগা ৩ ফ্যাটি অ্যাসিডে সমৃদ্ধ তিসি।
প্রোটিন, ফাইবার হেল্দি ফ্যাট, ক্যালশিয়াম ও ওমেগা ৩ ফ্যাটি অ্যাসিডে সমৃদ্ধ তিসি।

Weight Loss Tips: ওজন কমবে তিসির বীজের জাদুতে, জানুন এর উপকারিতা ও ব্যবহার

ওজন বৃদ্ধির ফলে নানা ক্ষেত্রে রোগের আশঙ্কা দেখা দেয়। তাই ওজন কমানোর চেষ্টা করে থাকেন সকলে।

সামান্য ওজন বৃদ্ধি হলেই সকলের মাথায় চিন্তার ভাজ পড়ে যায়। ওজন বৃদ্ধি শুধুমাত্র সৌন্দর্যকেই প্রাভাবিত করে না, বরং স্বাস্থ্যেও এর কুপ্রভাব পড়ে। ওজন বৃদ্ধির ফলে নানা ক্ষেত্রে রোগের আশঙ্কা দেখা দেয়। তাই ওজন কমানোর চেষ্টা করে থাকেন সকলে। আপনিও এমন কোনও চিন্তা ভাবনা করে থাকলে ওজম ও পেটে জমে থাকা মেদ কমানোর জন্য তিসি খেতে পারেন।

পুষ্টিগুণে ভরপুর তিসি

প্রোটিন, ফাইবার হেল্দি ফ্যাট, ক্যালশিয়াম ও ওমেগা ৩ ফ্যাটি অ্যাসিডে সমৃদ্ধ তিসি। এটি রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বৃদ্ধি করে। আবার এতে উপস্থিত ফাইবার পাচন শক্তি ও মেটাবলিজমকে উন্নত করে। কাঁচা আমের চাটনি, ওটমিলে তিসি ব্যবহার করা যেতে পারে। তা ছাড়াও শুকনো করে ভাজা তিসি বা তিসির পাওডারও ব্যবহার করলে ওজন কমানো যেতে পারে।

ওজন কম করতে যে ভাবে তিসি সাহায্য করে

তিসির বীজে উপস্থিত ডায়েটারি ফাইবার ওজন কম করতে সাহায্য করে। তিসির বীজে সমীক্ষা চালিয়ে দেখা গিয়েছে যে, নিয়মিত ৩০ গ্রাম ফাইবার খেলে শরীর থেকে অতিরিক্ত মেদ ঝরানো যায়। এ ছাড়াও উচ্চ ফাইবার যুক্ত ফ্যাট শুধুমাত্র যে ওজন কম করে তা-ই নয়, বরং টাইপ ২ ডায়বিটিজ ও হৃদরোগের ঝুঁকিকেও কম করতে পারে। সমীক্ষার রিপোর্ট অনুযায়ী ফাইবার ও শরীরের মেদের মধ্যে বিপরীত সম্পর্ক রয়েছে। অর্থাৎ অধিক ফাইবার যুক্ত খাবার-দাবার ওজন নিয়ন্ত্রণে রাখতে সাহায্য করে। 

ওজন কম করার সমস্ত কার্যকরী উপায়ের মধ্যে অন্যতম হল তিসির বীজের ব্যবহার। এটি শরীর থেকে অতিরিক্ত মেদ গলাতে সাহায্য করতে পারে। দ্রুত ওজন কম করতে চাইলে নিয়মিত তিসির বীজ খেতে হবে। এর সাহায্যে ১০ দিনে ৫ কেজি ওজন কম করতে পারবেন। তিসির বীজে উপস্থিত ঔষধীয় গুণ কী ভাবে ওজন কমাতে সাহায্য করে জেনে নিন।

তিসির উপকারীতা

১. তিসিতে উপস্থিত অ্যান্টি অক্সিডেন্ট ও ফাইটোকেমিক্যালস বার্ধক্যের লক্ষণ কম করে। এর ফলে ত্বকে বলিরেখা দেখা দেয় না এবং ত্বক টান টান থাকেন। ত্বক সুস্থ ও উজ্জ্বল রাখতে সাহায্য করে তিসি।

২. তিসির বীজে আল্ফা লাইনোইক অ্যাসিড পাওয়া যায়। অথ্রাইটিস, অ্যাস্থমা, ডায়বিটিজ ও ক্যান্সারের মোকাবিলায় এটি সাহায্য করে। বিশেষক কোলোন ক্যান্সারের মোকাবিলায় তিসির বীজ গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে। 

৩. নির্দিষ্ট পরিমাণে তিসি খেলে রক্তে শর্করার পরিমাণ নিয়ন্ত্রণে রাখা যায়। এর ফলে শরীরের অভ্যন্তরীণ অংশ সুস্থ ও কার্যকরী থাকে।

৪. এতে উপস্থিত লাইগন অন্ত্রে সক্রিয় থেকে এমন একটি উপাদান তৈরি করে যা ফিমেল হরমোনের ভারসাম্য বজায় রাখতে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে। 

৫. তিসির তেল দিয়ে মালিশ করলে শরীরের অঙ্গ সুস্থ থাকে এবং ভালো ভাবে কাজ করে। এই তেল দিয়ে মুখে ম্যাসাজ করলে ত্বক উজ্জ্বল হয়।

৬. নিরামিশাষি ব্যক্তিদের জন্য তিসি ওমেগা ৩-এর উৎকৃষ্ট উৎস।

৭. তিসিতে উপস্থিত ওমেগা ৩ রক্ত প্রবাহ উন্নত করে। এটি রক্ত জমাট বাঁধতে দেয় না। ফলে স্বাভাবিক ভাবেই হার্ট অ্যাটাকের ঝুঁকি কম হয়। রক্তে উপস্থিত কোলেস্টেরল কম করতে সাহায্য করে তিসির বীজ।

Disclaimer- এই প্রতিবেদনে প্রদত্ত তথ্যের যথার্থতা ও বাস্তবিকতা সুনিশ্চিত করার যথাসম্ভব চেষ্টা করা হয়েছে। তবে এর নৈতিক দায়িত্ব হিন্দুস্তান টাইমস বাংলার নয়। তাই পাঠকদের কাছে আবেদন জানানো হচ্ছে, যে কোনও উপায় অবলম্বনের পূর্বে যথাযথ সাবধানতা অবলম্বন করবেন। প্রয়োজনে চিকিৎসকদের পরামর্শ নিতে পিছপা হবেন না। আপনাদের তথ্য সমৃদ্ধ করাই আমাদের উদ্দেশ্য।

বন্ধ করুন