বাংলা নিউজ > টুকিটাকি > বিশ্ব আর্থ্রাইটিস দিবস: পূর্ণিমা-অমাবস্যায় বাতের ব্যথা বাড়ে? এটা কতটা সত্যি?
ফাইল ছবি : ইনস্টাগ্রাম (Instagram )
ফাইল ছবি : ইনস্টাগ্রাম (Instagram )

বিশ্ব আর্থ্রাইটিস দিবস: পূর্ণিমা-অমাবস্যায় বাতের ব্যথা বাড়ে? এটা কতটা সত্যি?

  • বিশ্ব আর্থ্রাইটিস দিবস উপলক্ষ্যে, ডা Dr. শশী কন্থ জি, সিনিয়র কনসালট্যান্ট অর্থোপেডিক সার্জন, যশোদা হসপিটালস হায়দ্রাবাদ, আর্থ্রাইটিস সম্পর্কিত কিছু প্রচলিত ভুল ধারণা দূর করলেন।

বিশ্ব আর্থ্রাইটিস দিবস: আর্থ্রাইটিস এমন এক রোগ যাতে শরীরের জয়েন্টে(সন্ধি) ব্যথা হয়। ভারতে ১৮ কোটিরও বেশি মানুষের আর্থ্রাইটিস আছে। এর বিস্তার ডায়াবেটিস, এইডস এবং ক্যান্সারের চেয়েও বেশি। অনেক ধরনেরই বাত হয়, সাধারণগুলি হল অস্টিওআর্থারাইটিস (OA) এবং রিউমাটয়েড আর্থ্রাইটিস (RA)।

অস্টিওআর্থারাইটিসে, হাড়ের মধ্যে জয়েন্টে থাকা কার্টিলেজ ক্ষতিগ্রস্ত হয়। রিউমাটয়েড আর্থ্রাইটিসে, আমাদের শরীরের রোগ প্রতিরোধ সিস্টেম জয়েন্টগুলোতে আক্রমণ করে। এর ফলে জয়েন্টগুলির ক্ষতি ছাড়াও, এটি পেশি, সংযোগকারী টিস্যু, টেন্ডন এবং ফাইবার টিস্যুকে প্রভাবিত করে। এটি সাধারণ অস্টিওআর্থারাইটিসের চেয়ে কম বয়সে হয়। সাধারণত ২০ থেকে ৪০ বছর বয়সেই দেখা যায়।

অস্টিওআর্থারাইটিস এবং রিউমাটয়েড আর্থ্রাইটিস ছাড়াও আর্থ্রাইটিসের অন্যান্য ধরণ হল জুভেনাইল আর্খ্রাইটিস, স্পনডাইলোআর্থ্রোপ্যাথি, সিস্টেমিক লুপাস এরিথেমেটোসাস, গাউট, সংক্রামক এবং প্রতিক্রিয়াশীল আর্থ্রাইটিস এবং সোরিয়াটিক আর্থ্রাইটিস।

বাত ও মাস্কুলোস্কেলেটাল রোগের অস্তিত্ব এবং প্রভাব সম্পর্কে বিশ্বজুড়ে মানুষের সচেতনতা বাড়াতে প্রতি বছর ১২ অক্টোবর বিশ্ব আর্থ্রাইটিস দিবস পালিত হয়।

বিশ্ব আর্থ্রাইটিস দিবস উপলক্ষ্যে, ডা Dr. শশী কন্থ জি, সিনিয়র কনসালট্যান্ট অর্থোপেডিক সার্জন, যশোদা হসপিটালস হায়দ্রাবাদ, আর্থ্রাইটিস সম্পর্কিত কিছু প্রচলিত ভুল ধারণা দূর করলেন-

১ নম্বর ভুল ধারণা: শুধুমাত্র বয়স্কদের আর্থ্রাইটিস হয়

সত্য: বয়স্কদের মধ্যে আর্থ্রাইটিস বেশি দেখা যায় বটে, কিন্তু এটি যেকোনও বয়সে হতে পারে। রিউমাটয়েড আর্থ্রাইটিস ২০-৪০ বছর বয়সেই দেখা যায়।

২ নম্বর ভুল ধারণা: জয়েন্টে ব্যথা মানেই আর্থ্রাইটিস

সত্য: সমস্ত জয়েন্টের ব্যথা বাত নয়, এবং সমস্ত জয়েন্টের অস্বস্তি মানেই সেটা আসন্ন আর্থ্রাইটিসের লক্ষণ নয়। টেন্ডিনাইটিস, বার্সাইটিস, ইউরিক অ্যাসিড এবং চোট আঘাত সহ জয়েন্টগুলোতে এবং আশেপাশে ব্যথার অনেক সম্ভাব্য কারণ রয়েছে। চিকিত্সকের পরামর্শ নিন।

৩ নম্বর ভুল ধারণা: বাতের রোগীদের ব্যায়াম করা উচিত নয়

সত্য: ব্যায়াম সাধারণত এমন কোন ক্রিয়াকলাপ নয় যা আর্থ্রাইটিসে আক্রান্ত ব্যক্তিদের এড়িয়ে চলতে হয়। তবে জয়েন্টে খুব চাপ পড়বে এমন ব্যায়াম এড়িয়ে চলতে হবে। যেমন হেভি ওয়েট ট্রেনিং, দৌড়। বদলে সাইক্লিং, সাঁতার, নূন্যতম ওজন নিয়ে হালকা কসরত, স্ট্রেচিং অত্যন্ত উপকারী। তাই চিকিত্সক, ফিজিওথেরাপিস্ট এবং সার্টিফায়েড জিম ট্রেনারের সঙ্গে এ বিষয়ে আলোচনা করুন।

আর্থ্রাইটিসে আক্রান্ত ব্যক্তিদের যাঁরা নিয়মিত ব্যায়াম করেন তাঁদের ব্যথা কম থাকে। শরীরে শক্তি বেশি থাকে, ঘুম ভালো হয় এবং প্রতিদিন কাজে মন বসে। নিতম্ব এবং হাঁটুর অস্টিওআর্থারাইটিসের চিকিৎসার অন্যতম প্রধান মাধ্যম ব্যায়াম হওয়া উচিত।

৪ নম্বর ভুল ধারণা: আর্থ্রাইটিস কপালে থাকলে হবেই, আগে থেকে আটকানো যায় না

সত্য: আর্থ্রাইটিসের প্রতিটি ক্ষেত্রে আগে থেকে প্রতিরোধ করা সম্ভব নয়। কারণ বয়স বাড়ার মতো কিছু ঝুঁকি পরিবর্তনযোগ্য নয়। তবে আর্থ্রাইটিসের সূত্রপাত রোধ করতে বা এর বৃদ্ধি ধীর করতে নির্দিষ্ট ঝুঁকির কারণগুলি দূর করতে বা কমিয়ে আনতে পারেন। উদাহরণস্বরূপ, যাঁদের শরীরের অতিরিক্ত ওজন আছে তাঁদের হাঁটুর অস্টিওআর্থারাইটিস হওয়ার ঝুঁকি বেড়ে যায়। তাই ওজন নিয়ন্ত্রণে রাখুন।

এছাড়া পুষ্টিকর খাবার খান। নিয়মিত ওয়েট ট্রেনিং করলে পেশির পাশাপাশি জয়েন্টও শক্তিশালী হয়।

৫ নম্বর ভুল ধারণা: আর্থ্রাইটিস একবার হলে আর কমবে না

সত্য: দ্রুত সম্পূর্ণ সুস্থতা না এলেও অনেকাংশেই নিয়ন্ত্রণ করা যায়। চিকিত্সক কোনও ওষুধ দিলে নিয়মিত খান। তাছাড়া তাঁর পরামর্শ মতো ব্যায়াম, খাওয়া দাওয়া করুন। ভাল করে ঘুমোন। ফ্যাশানের জুতো বা চপ্পলের বদলে ভালো মানের রানিং শুতে টাকা খরচ করুন। সেটিই বেশি ব্যবহার করুন।

৬ নম্বর ভুল ধারণা: বর্ষায় আর্থ্রাইটিসের ব্যথা বাড়ে

সত্য: মেডিকেল সায়েন্সে এর কোনও সঠিক প্রমাণ নেই।

৭ নম্বর ভুল ধারণা: পূর্ণিমায় আর্থ্রাইটিসের ব্যথা বাড়ে

সত্য: এটা একটা সম্পূর্ণ ভুল বহুল প্রচলিত মিথ। দুটির মধ্যে কোনও সম্পর্ক নেই। এটি কিছুটা কো-ইন্সিডেন্স, কিছুটা মানসিক।

বন্ধ করুন