নিত্যনতুন ফন্দিফিকির কাজে লাগিয়ে গ্রাহকদের ব্যাঙ্ক অ্যাকাউন্টের নাগাল পাওয়ার চেষ্টায় নেমেছে সাইবার অপরাধীরা।
নিত্যনতুন ফন্দিফিকির কাজে লাগিয়ে গ্রাহকদের ব্যাঙ্ক অ্যাকাউন্টের নাগাল পাওয়ার চেষ্টায় নেমেছে সাইবার অপরাধীরা।

সাবধান! ইএমআই ছাড়ের টোপ দিয়ে প্রতারণার ছক, গ্রাহকদের সচেতন করছে ব্যাঙ্ক

ইএমআই পেমেন্ট স্থগিত রাখার টোপ দিয়ে গ্রাহকদের এসএমএস করছে প্রতারকরা। টোপ একবার গিললে চাওয়া হচ্ছে ব্যাঙ্ক অ্যাকাউন্টের সঙ্গে যুক্ত ওটিপি, সিভিভি, পাসওয়ার্ড অথবা পিন।

করোনা সংক্রমণের জেরে ইএমআই-এ ছাড় সংক্রান্ত ভুয়ো বার্তা সম্পর্কে গ্রাহকদের সচেতন করতে বিশেষ উদ্যোগ নিল দেশের অগ্রণী ব্যাঙ্কগুলি।

এই ধরনের পোস্ট স্পর্কে গ্রাহকদের সচেতন করতে সাবধানবার্তা পাঠাচ্ছে ব্যাঙ্ক কর্তৃপক্ষ। পাশাপাশি প্রতারকদের ওটিপি ও পিন-সহ গোপনীয় ব্যক্তিগত তথ্য সরবরাহ না করার জন্য সতর্ক করা হয়েছে।

গত কয়েক দিন যাবৎ অ্যাক্সিস ব্যাঙ্ক, স্টেট ব্যাঙ্ক-সহ দেশের প্রথম সারির ব্যাঙ্কগুলি ই মেল ও এসএমএস মারফৎ জানাচ্ছে যে, প্রতারণার নিত্যনতুন ফন্দিফিকির কাজে লাগিয়ে গ্রাহকদের ব্যাঙ্ক অ্যাকাউন্টের নাগাল পাওয়ার চেষ্টায় নেমেছে সাইবার অপরাধীরা।

সম্প্রতি ই মেলে গ্রাহকদের উদ্দেশে অ্যাক্সিস ব্যাঙ্ক কর্তৃপক্ষ জানিয়েছে প্রতারণার নতুন কৌশল অবম্বন করেছে দুষ্কৃতীরা। কর্তৃপক্ষ জানিয়েছে, ইএমআই পেমেন্ট স্থগিত রাখার টোপ দিয়ে গ্রাহকদের এসএমএস করছে প্রতারকরা। টোপ একবার গিললে চাওয়া হচ্ছে ব্যাঙ্ক অ্যাকাউন্টের সঙ্গে যুক্ত ওটিপি, সিভিভি, পাসওয়ার্ড অথবা পিন। এর কোনও একটি হস্তগত হলেই অ্যাকাউন্টের ব্যালান্স নিমেষে সাফ করে ফেলছে প্রতারকরা।

গত ৫ এপ্রিল স্টেট ব্যাঙ্ক টুইট করে নতুন সাইবার অপরাধ সম্পর্কে গ্রাহকদের সচেতন করেছে। জানানো হয়েছে, লকডাউন চলাকালীন ঋণের কিস্তি, ইএমআই ইত্যাদি স্থগিত রাখতে সাহায্য করার জন্য গ্রাহকদের ওটিপি চাইছে প্রতারকরা। একবার তা হাতাতে পারলে দ্রুত গ্রাহকের অ্যাকাউন্ট থেকে টাকা সরিয়ে ফেলছে দুষ্কৃতীরা।

COVID-19 রুখতে দেশজুড়ে লকডাউন আরোপ হলে গত মার্চ মাসে রিজার্ভ ব্যাঙ্ক জানায়, গ্রাহকদের স্বস্তি দিতে খুচরো ও কৃষি-সহ সমস্ত দীর্ঘমেয়াদী ঋণ এবং মূলধন বাবদ ঋণে তিন মাসের জন্য কিস্তি স্থত রাখা হবে।

কিছু দিন আগে এসবিআই সতর্কতা জারি করে ভুয়ো ইউপিআই আইডি সম্পর্কে সচেতন করে। বলা হয়, জরুরি পরিস্থিতিতে প্রধানমন্ত্রীর নাগরিক সহায়তা ও ত্রাণ তহবিলে দানের মিথ্যা প্রতিশ্রুতি দিয়ে টাকা হস্তগত করার ছক কষেছে প্রতারকরা।

বন্ধ করুন