বাংলা নিউজ > ঘরে বাইরে > আমেরিকায় ইহুদি উপাসনালয়ে ৪ জনকে আটক জঙ্গির, পাক বিজ্ঞানীর মুক্তির শর্ত পেশ
আমেরিকায় ইহুদি উপাসনালয়ে ৪ জনকে আটক জঙ্গির (ছবি সৌজন্যে রয়টার্স) (REUTERS)
আমেরিকায় ইহুদি উপাসনালয়ে ৪ জনকে আটক জঙ্গির (ছবি সৌজন্যে রয়টার্স) (REUTERS)

আমেরিকায় ইহুদি উপাসনালয়ে ৪ জনকে আটক জঙ্গির, পাক বিজ্ঞানীর মুক্তির শর্ত পেশ

  • পাক বিজ্ঞানী আফিয়া সিদ্দিকির মুক্তির দাবি জানিয়েছে জঙ্গি। আল-কায়দা যোগ থাকা আফিয়াকে ২০১০ সালে গ্রেফতার করা হয়েছিল মার্কিন সেনা আধিকারিকদের হত্যার চেষ্টার দায়ে। 

আমেরিকার টেক্সাসে ইহুদিদের উপাসনালয়ে গিয়ে চার ইহুদিকে বন্দি করল এক সশস্ত্র জঙ্গি। জঙ্গির দাবি, মার্কিন জেলে বন্দি থাকা এক পাকিস্তানি স্নায়ুবিজ্ঞানীর মুক্তি দিতে হবে। উল্লেখ্য, যে পাক বিজ্ঞানীর দাবি জঙ্গিটি পেশ করেছে, তিনি আফগানিস্তানে এক মার্কিন সেনাকে খুনের চেষ্টা করার দায়ে ধৃত। ঘটনাটি ঘটেছে টেক্সাসের কলিভিলে।

জানা গিয়েছে, জঙ্গির হাতে বন্দি হওয়া ব্যক্তিদের মধ্যে ইহুদি উপাসনালয়ের রাব্বিও আছেন। প্রাথমিক ভাবে মোট চারজনকে আটক করেছিল জঙ্গি। পুলিশ সূত্রে জানা গিয়েছে, পরে এক বন্দিকে ছেড়ে দেয় জঙ্গি। ঘটনায় জঙ্গির সঙ্গে কথা বলে বাকি বন্দিদের ছাড়ানোর চেষ্টা করছেন এফবিআই-এর আধিকারিকরা। ঘটনার দিকে নজর রয়েছে মার্কিন প্রেসিডেন্ট জো বাইডেনের। ইজরায়েলের প্রধানমন্ত্রী নাফতালি বেনেটও ঘটনা প্রসঙ্গে খোঁজ নিয়েছেন।

জঙ্গির মূল দাবি, আফিয়া সিদ্দিকির মুক্তি। আফিয়া একজন পাকিস্তানি নিউরোসায়েন্টিস্ট। আল-কায়দার সঙ্গে আফিয়ার যোগ রয়েছে বলে সন্দেহ করা হত। আফগানিস্তানে মার্কিন সামরিক আধিকারিকদের হত্যার চেষ্টার দায়ে আফিয়াকে গ্রেফতার করা হয়েছিল আফিয়াকে। ২০১০ সালে আফিয়াকে গ্রেফতার করা হয়। বর্তমানে সে টেক্সাসের ফেডারেল কারাগারে আছে। আফিয়ার সঙ্গে কথা বলতে চায় সেই জঙ্গি। মধ্যপ্রাচ্যের সংবাদমাধ্যমের রিপোর্ট অনুযায়ী, ইহুদিদের বন্দি করে রাখা জঙ্গি আফিয়ার ভাই হতে পারে। তার একটি ছবিও প্রকাশ্যে এসেছে।

এদিকে এফবিআই-এর ‘হোস্টেজ নেগোসিয়েশন’ বিশেষজ্ঞরা জঙ্গিকে বুঝিয়ে বন্দিদের মুক্তির আপ্রাণ চেষ্টা চালাচ্ছে। এখনও পর্যন্ত কোনও গুলি ছওড়া হয়নি বলে জানা গিয়েছে। ঘটনায় কোনও হতাহতেরও খবর নেই। ঘটনার সময় মার্কিন রাষ্ট্রপতি ড্যালাসে ছিলেন। তাঁকে সেখানেই পুরো বিষয়টি জানানো হয়েছে। ঘটনা প্রসঙ্গে ধারাবাহিক আপডেট দেওয়া হচ্ছে মার্কিন প্রেসিডেন্টকে। স্থানীয় মুসলিমদেরও সেই জঙ্গির সঙ্গে কথা বলানো হচ্ছে বলে জানা গিয়েছে। 

বন্ধ করুন