বাংলা নিউজ > ঘরে বাইরে > নয়া করোনা ভ্যারিয়েন্টের হদিশ মিলল ভিয়েতনামে, আরও সংক্রামক হওয়ার আশঙ্কা
প্রতীকী ছবি
প্রতীকী ছবি

নয়া করোনা ভ্যারিয়েন্টের হদিশ মিলল ভিয়েতনামে, আরও সংক্রামক হওয়ার আশঙ্কা

আরও একটি নতুন করোনার ভ্যারিয়েন্টের হদিশ মিলল।

আরও একটি নতুন করোনার ভ্যারিয়েন্টের হদিশ মিলল।এবার ভিয়েতনাম। বিশেষজ্ঞদের দাবি, নতুন এই ভ্যারিয়েন্টটি আরও বেশি মাত্রায় সংক্রমণের ক্ষমতা রাখে। সেই সঙ্গে বাতাসে ছড়িয়ে পড়ছে ভাইরাসের এই ভ্যারিয়েন্টটি।এর ফলে সম্প্রতি ভিয়েতনামে প্রচুর সংখ্যক মানুষ করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন।

স্বাস্থ্য মন্ত্রকের এক আধিকারিক জানান, ভিয়েতনামে যে নতুন ভ্যারিয়েন্টটির খোঁজ পাওয়া গিয়েছে, সেটি ভারত ও ব্রিটেনে পাওয়া করোনার স্ট্রেনের সমন্বয়ে তৈরি।এই ভ্যারিয়েন্টটি খুব তাড়াতাড়ি বাতাসে ছড়িয়ে পড়তে পারে ও বহু মানুষকে সংক্রমিত করতে পারে।ভিয়েতনামের স্বাস্থ্যমন্ত্রী নুয়েন থান জানান,‘‌নতুন এই করোনা ভাইরাসের ভ্যারিয়েন্টটি গলায় লালারসের মধ্যে আটকে থাকে ও খুব তাড়াতাড়ি তা বাতাসে ছড়িয়ে পড়ে। আশেপাশের পরিবেশে ভেসে বেড়াতে পারে।আশেপাশের এলাকায় যদি কেউ থাকেন, তাঁদের সংক্রমিত করতে পারে। এখনও পর্যন্ত কতজন এই নতুন ভ্যারিয়েন্টে আক্রান্ত হয়েছেন, সেই বিষয়টি অবশ্য স্পষ্ট নয়।তবে খুব তাড়াতাড়ি এই বিষয়ে সরকারিভাবে তথ্য পেশ করা হবে।’‌

ইতিমধ্যে ভিয়েতনামের হ্যানয়, হো চি মিন সিটি সহ বেশ কিছু শহরে করোনার নতুন এই ভ্যারিয়েন্টটি ছড়িয়ে পড়েছে। গত এপ্রিল থেকে এখনও পর্যন্ত ৬,৮০০ জন করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন। ৪৭ জনের মৃত্যু হয়েছে। ভিয়েতনামের স্বাস্থ্য মন্ত্রকের তরফে জানানো হয়েছে, এখনও পর্যন্ত ভিয়েতনামে সাতটি করোনার ভ্যারিয়েন্টের খোঁজ পাওয়া গিয়েছে।ভিয়েতনামের সেন্ট্রাল ইনস্টিটিউট অফ হাইজিন অ্যান্ড এপিডেমিওলজির তরফে বিবৃতি জারি করে বলা হয়েছে, জিন সিকোয়েনসিংয়ের মাধ্যমে বিজ্ঞানীরা ৩২ জন করোনা আক্রান্তের নমুনা পরীক্ষা করে দেখেছেন। তাঁদের মধ্যে ৪ জনের নমুনায় জিন মিউটেশন ধরা পড়েছে।

নতুন করে করোনা সংক্রমণ ছড়িয়ে পড়তেই ভিয়েতনাম প্রশাসন সতর্ক হয়ে গিয়েছে।মানুষের গতিবিধির ওপর রাশ টানতে বিধিনিষেধ আরোপ করা হয়েছে। ক্যাফে, রেস্তোরাঁ, হেয়ার স্যাঁলো, ম্যাসেজ পার্লার বন্ধ রাখার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। এখনও পর্যন্ত ভিয়েতনামে ৯ কোটি ৭০ লাখ মানুষের মধ্যে ১০ লাখ মানুষকে ভ্যাকসিন দেওয়ার কাজ শেষ হয়েছে।স্বাস্থ্য মন্ত্রক মনে করছে, চলতি বছরের মধ্যে দেশের মানুষের মধ্যে হার্ড ইমিউনিটি তৈরি হয়ে যাবে। তবে ফাইজার, অ্যাস্ট্রোজেনেকার থেকে ভ্যাকসিন কেনার কাজ শুরু হয়ে গিয়েছে।দেশেও যাতে ভ্যাকসিন ইৎপাদন করা যায়, সেই কাজও চলছে। ভিয়েতনামের পাশাপাশি থাইল্যান্ডে আরকটি নতুন করোনার স্ট্রেন পাওয়া গিয়েছে।

বন্ধ করুন