বাংলা নিউজ > ঘরে বাইরে > নিমেষে চারজনকে হত্যা করল ভাল্লুক, পাঁচ ঘণ্টা গাছে চড়ে রক্ষা পেলেন এক ব্যক্তি
ফাইল ছবি
ফাইল ছবি

নিমেষে চারজনকে হত্যা করল ভাল্লুক, পাঁচ ঘণ্টা গাছে চড়ে রক্ষা পেলেন এক ব্যক্তি

  • বাবুলালাকে মারার জন্য গাছে চড়ার চেষ্টা করে ভাল্লুকটি। কিন্তু গাছটি ছোটো হওয়ায় ও কোনও ডাল না থাকায় ভাল্লুকটি উঠতে পারেনি।

ছত্তিসগড়ের কোরিয়া জেলায় ভাল্লুকের আক্রমণে মারা গেলেন চারজন। গুরুতর আহত তিন। অন্যদিকে এক ব্যক্তি কোনওক্রমে গাছের ওপর চড়ে রক্ষা পান। যে চারজন মারা গিয়েছেন তাদের মধ্যে দুইজন মহিলা।

ভাল্লুকের হাত থেকে বাঁচার পর নিজের অভিজ্ঞতার কথা জানান পুসলা গ্রামের নিবাসী বাবুলাল। রবিবার বিকেলে এই ভাল্লুক আক্রমণ করে। তখন নিকটবর্তী জমিতে গোলায় ধান তুলছিলেন বাবুলাল। তখনই শোনেন যে জঙ্গল থেকে ভাল্লুক এসে কয়েকজনকে আক্রমণ করেছে। তখনই আরও তিনজনের সঙ্গে তিনি জঙ্গলে প্রবেশ করেন সাহায্যের জন্য। কিন্তু তাঁর সামনেই ফুল সাই বলে এক ব্যক্তির ওপর চড়াও হয় ভাল্লুকটি। তখনই তিনি ভয়ে গাছের ওপর চড়ে বসেন। অন্য আরেকজন গ্রামে প্রবেশ করে রক্ষা পায়। 

ফুল সাইকে মারার পর বাবুলালাকে মারার জন্য গাছে চড়ার চেষ্টা করে ভাল্লুকটি। কিন্তু গাছটি ছোটো হওয়ায় ও কোনও ডাল না থাকায় ভাল্লুকটি উঠতে পারেনি। গামছা দিয়ে নিজেকে গাছের গুঁড়ির সঙ্গে বেঁধে রেখেছিলেন বাবুলাল যাতে কোনও ভাবেই তিনি পড়ে না যান। প্রায় পাঁচ ঘণ্টা পর তাঁকে উদ্ধার করতে লোকজন আসে। জেসিবি মেসিনের সাহায্যে তিনি নিচে নামেন। 

সুরগুজা রেঞ্জের আইজি রতনলাল দাঙ্গি বলেন যে বন থেকে ফেরার পথে ছয়জন আদিবাসীর ওপর হানা দেয় ভাল্লুকটি। এর মধ্যে তিনজন প্রথমে মারা যান। তাদের বাঁচাতে গিয়ে প্রাণ হারান আরেকজন। খবর পেয়ে উদ্ধারকারী দল পাঠান হয়। তারা মৃতদেহগুলিকে উদ্ধার করে ও গাছের ওপর থেকে বাবুলালকে নামায়। আহত তিনজনকেও উদ্ধার করা হয়েছে। তাদের হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। 

রাত একটা অবধি ভাল্লুকটি ওই অঞ্চলে ঘুরছিল ও উদ্ধারকারী দল এসে তাড়া করে সেটিকে জঙ্গলের মধ্যে ঢুকিয়ে দেয় বলে জানা গিয়েছে। 

বন্ধ করুন