বাংলা নিউজ > ঘরে বাইরে > NDTV অধিগ্রহণে সায় আছে সেবির, আরও ২৬% কিনবে Adani গোষ্ঠী
ফাইল ছবি- পিটিআই (PTI)

NDTV অধিগ্রহণে সায় আছে সেবির, আরও ২৬% কিনবে Adani গোষ্ঠী

  • সেবি-র আইনি বিভাগের সঙ্গে পরামর্শ করে কর্পোরেট ফিনান্স বিভাগ একটি অভ্যন্তরীণ নোট জমা দিয়েছে। তাতে স্পষ্ট বলা হয়েছে যে, RRPR হোল্ডিং-এর উপর শেয়ার বরাদ্দ করা নিয়ে কোনও নিষেধাজ্ঞা নেই। নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এক আধিকারিক এই কথা জানিয়েছেন।

আগামী ১৭ অক্টোবর NDTV-র আরও ২৬% শেয়ার অধিগ্রহণের ওপেন অফার দেবে আদানি গোষ্ঠী। শেয়ার হস্তান্তরের ক্ষেত্রে কোনও নিয়মগত বাধাও নেই বলে মনে করছে SEBI। এ বিষয়ে ওয়াকিবহাল ৩ ব্যক্তি সূত্রে মিলেছে এই খবর।

১.৬৭ কোটি ইক্যুইটি শেয়ার অধিগ্রহণের জন্য ওপেন অফার রাখা হবে। শেয়ার প্রতি ২৯৪ টাকা করে দাম নির্ধারণ করা হয়েছে। লেনদেনের প্রক্রিয়াটি আগামী ১ নভেম্বর শেষ হবে। অফার পরিচালনাকারী সংস্থা জেএম ফিন্যান্সিয়াল এমনটাই জানিয়েছে।

২৯৪ টাকা করেই যদি সম্পূর্ণ শেয়ার সাবস্ক্রাইব করা হয়, সেক্ষেত্রে মোট অঙ্ক দাঁড়াবে ৪৯২.৮১ কোটি টাকা।

সেবি-র আইনি বিভাগের সঙ্গে পরামর্শ করে কর্পোরেট ফিনান্স বিভাগ একটি অভ্যন্তরীণ নোট জমা দিয়েছে। তাতে স্পষ্ট বলা হয়েছে যে, RRPR হোল্ডিং-এর উপর শেয়ার বরাদ্দ করা নিয়ে কোনও নিষেধাজ্ঞা নেই। নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এক আধিকারিক এই কথা জানিয়েছেন।

আর তার ফলস্বরূপ, ১৭ অক্টোবর আদানি গোষ্ঠীর পক্ষে অধিগ্রহণের অফারটি আরও মসৃণ হয়ে যাবে। রাধিকা রায় এবং প্রণয় রায়ের সঙ্গে আইনি লড়াইও এড়াতে পারবে তারা।

গত ২৩ অগস্ট আদানি গোষ্ঠী বিশ্বপ্রধান কমার্শিয়াল প্রাইভেট লিমিটেড (VCPL) নামে এক সংস্থা অধিগ্রহণ করে। এরপরেই NDTV-র ২৯.১৮% অংশীদারিত্ব পরোক্ষভাবে চলে আসে আদানি গোষ্ঠীর হাতে। কারণ এই VCPL-এর হাতেই RRPR-এ কনভার্টিবেল ডিবেঞ্চার ছিল। তার বিনিময়েই VCPL থেকে ঋণ নিয়েছিল রাধিকা এবং প্রণয় রায়ের সংস্থা। অন্যদিকে আইনি নিয়ম মেনে আদানি গ্রুপ খোলা বাজার থেকে আরও ২৬% শেয়ার কেনার প্রস্তাব দিয়েছে।

তবে আদানি গ্রুপের অধিগ্রহণে মোটেও খুশি নন রাধিকা এবং প্রণয় রায়। তাঁরা জানিয়েছিলেন, SEBI-র অনুমতি ছাড়া এটি সম্ভব নয়। তাঁরা যুক্তি দেখান যে, ২০২০ সালে সেবি-র এক আদেশে বলা হয়, ২০২২ সালের ২৬ নভেম্বর পর্যন্ত প্রণয় ও রাধিকা রায় ভারতীয় শেয়ার বাজারে লেনদেন করতে পারবেন না। সেবির তদন্তে দেখা গিয়েছিল যে, তাঁরা NDTV-র শেয়ারের সন্দেহজনক অভ্যন্তরীণ লেনদেনের মাধ্যমে অনায্য পথে মুনাফা করেছিলেন। সেই কারণেই এই নিষেধাজ্ঞা চাপানো হয়। সেটাকেই অধিগ্রহণ রোখার অস্ত্র হিসাবে ব্যবহার করতে চাইছিলেন NDTV-র সহ-প্রতিষ্ঠাতারা।

বন্ধ করুন