বাংলা নিউজ > ঘরে বাইরে > মহাপঞ্চয়েতে উঠল ‘আল্লাহু আকবর’, ‘হর হর মহাদেব’ ধ্বনি, শক্তি প্রদর্শন কৃষকদের
রবিবার মুজফ্ফরনগরে কৃষক মহাপঞ্চায়েত। (ছবি সৌজন্য পিটিআই)
রবিবার মুজফ্ফরনগরে কৃষক মহাপঞ্চায়েত। (ছবি সৌজন্য পিটিআই)

মহাপঞ্চয়েতে উঠল ‘আল্লাহু আকবর’, ‘হর হর মহাদেব’ ধ্বনি, শক্তি প্রদর্শন কৃষকদের

  • রবিবার কৃষক মহাপঞ্চায়েতে ধর্মীয় ঐক্যের উপর জোর দেওয়া হল।

মঞ্চ থেকে দেওয়া হল ‘আল্লাহু আকবর’ স্লোগান। অংশগ্রহণকারীরা বলে উঠলেন ‘হর হর মহাদেব’। এভাবেই রবিবার কৃষক মহাপঞ্চায়েতে ধর্মীয় ঐক্যের উপর জোর দেওয়া হল।

রবিবার উত্তরপ্রদেশের মুজফ্ফরনগরের কিষান মহাপঞ্চায়েতে শক্তি প্রদর্শন করেন কৃষকরা। উত্তরপ্রদেশ, পঞ্জাব, উত্তরাখণ্ড, হরিয়ানা, রাজস্থান এবং মহারাষ্ট্র থেকে হাজার-হাজার কৃষক সেই মহাপঞ্চায়েতে যোগ দেন। প্রথম তিন রাজ্যে তো আবার আগামী বছর বিধানসভা ভোট আছে। সেই আবহে আয়োজিত মহাপঞ্চায়েতে ভারতীয় কিষান ইউনিয়নের (বিকেইউ) মুখপাত্র রাকেশ তিকাইত দাবি করেন, নয়া তিন কৃষি আইনের বিরুদ্ধে সেই আন্দোলনকে সারা দেশে ছড়িয়ে দেওয়া হবে। ন্যূনতম সহায়ক মূল্য প্রদানের বিষয়ে আইনি কবচের দাবিও তোলেন তিনি।

কেন্দ্রের শাসক দলকে বিজেপিকে তোপ দেগে তিকাইত বলেন, ‘ওরা বিভাজন তৈরি করবে। কিন্তু আমরা মানুষকে ঐক্যবদ্ধ করব।’ 'হিন্দুস্তান টাইমস' গ্রুপের 'লাইভ হিন্দুস্তান'-এর প্রতিবেদন অনুযায়ী, তিকায়েত বলেছেন যে আগেও ‘আল্লাহু আকবর’ এবং ‘হর হর মহাদেব’ ধ্বনি দিতেন। এখনও তা দিতে থাকবেন।

গত বছর থেকেই নয়া তিন কৃষি আইনের বিরুদ্ধে বিক্ষোভে সামিল হয়েছেন কৃষকরা। আগামী বছর উত্তরপ্রদেশ, পঞ্জাব, উত্তরাখণ্ডের মতো রাজ্যে বিধানসভা নির্বাচনের সেই আন্দোলনে আরও গতি আনার লক্ষ্য নেওয়া হয়েছে। রবিবার কৃষকদের ট্র্যাক্টর তৈরি রাখার আহ্বান জানান তিকায়েত। যা ‘যে কোনও সময় কাজে লাগতে পারে।’ তিনি বলেন, 'দেশকে বেচে দেওয়া থেকে রুখতে হবে। কৃষকদের রক্ষা করতে হবে। দেশকে বাঁচাতে হবে। ব্যবসা, কর্মী এবং যুব প্রজন্মকে রক্ষা করতে হবে - এটাই আমাদের লক্ষ্য।’ 

যদিও কৃষক মহাপঞ্চায়েতকে ‘নির্বাচনী সভা’ বলে কটাক্ষ করেছে বিজেপি। উত্তরপ্রদেশের বিজেপি নেতা রাজকুমার চাহার বলেন, 'এটা পুরোপুরি রাজনৈতিক এবং নির্বাচনী সভ। রাজনীতি করার জন্য বিরোধী এবং কৃষক সংগঠনের নেতারা আম চাষিদের ঘাড়ে বন্দুক রাখছেন।'

বন্ধ করুন