বাংলা নিউজ > ঘরে বাইরে > দেশে ঘন ঘন বিদ্বেষমূলক বক্তৃতা নিয়ে উদ্বেগ! মোদীকে চিঠি আইআইএমের পড়ুয়াদের
প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী (ছবি সৌজন্যে এএনআই) (HT_PRINT)

দেশে ঘন ঘন বিদ্বেষমূলক বক্তৃতা নিয়ে উদ্বেগ! মোদীকে চিঠি আইআইএমের পড়ুয়াদের

  • প্রধানমন্ত্রীর কাছে পাঠানো ১৮৩ জনের স্বাক্ষরিত এই চিঠিতে ১৭৮ জন আইআইএম বেঙ্গালুরুর সদস্য। ৫ জন রয়েছেন আইআইএম আমেদাবাদ থেকে।

ইন্ডিয়ান ইনস্টিটিউট অফ ম্যানেজমেন্টের আমেদাবাদ ও বেঙ্গালুরু শাখা থেকে প্রায় শতাধিক পড়ুয়া ও অধ্যাপকরা চিঠি লিখে দেশে বেড়ে চলা বিদ্বেষমূলক বার্তা নিয়ে উদ্বেগ প্রকাশ করেছেন। যে চিঠি এই মর্মে প্রধানমন্ত্রীর কাছে গিয়েছে ,তাতে অন্ততপক্ষে ১৮৩ জন পড়ুয়া ও অধ্যাপকের নাম স্বাক্ষরিত রয়েছে। উল্লেখ্য, সাম্প্রতিককালে বহু জাতিভিত্তিক হিংসা, ধর্মভিত্তিক উস্কানি ও বিদ্বেষমূলক বক্তব্যের অভিযোগ ঘিরে একাধিক ঘটনা সামনে এসেছে। সেই জায়গা থেকে এই চিঠি আইআইএম পড়ুয়ারা প্রধানমন্ত্রীর কাছে পাঠিয়েছে বলে খবর।

বৃহস্পতিবার মোদীর কাছে পাঠানো এই চিঠিতে, প্রধানমন্ত্রীর কাছে আর্জি জানানো হয় যে, যে 'সমস্ত শক্তি আমাদের (দেশকে) ভাঙতে চাইছে তাদের বিরুদ্ধে যেন শক্ত হন' প্রধানমন্ত্রী। প্রধানমন্ত্রীর কাছে পাঠানো ১৮৩ জনের স্বাক্ষরিত এই চিঠিতে ১৭৮ জন আইআইএম বেঙ্গালুরুর সদস্য। ৫ জন রয়েছেন আইআইএম আমেদাবাদ থেকে। জানা গিয়েছে, হরিদ্বারের বিদ্বেষমূলক বক্তব্যের পরই আইআইএম বেঙ্গালুরুর সদস্যরা ঠিক করেছিলেন যে তাঁরা এই ইস্যুতে প্রধানমন্ত্রীর কাছে চিঠি পাঠাবেন। আর্জি ছিল, ধর্মসংসদ সম্পর্কীয় যে বিতর্কিত দিকটি উঠে এসেছে, তাতে যেন নজর দেন প্রধানমন্ত্রী। উল্লেখ্য, খোলা জনসভায় হরিদ্বারে ধর্মসংসদের মঞ্চ থেকে ভিন ধর্মের প্রতি বিদ্বেষমূলক বার্তা ছড়ানো হচ্ছে এমন একটি ভিডিয়ো (ভিডিয়োর সত্যতা যাচাই করেনি হিন্দুস্তান টাইমস বাংলা) প্রকাশ্যে আসে। যা নিয়ে শুরু হয় তোলপাড়। বয়ে যায় সমালোচনার ঝড়। উল্লেখ্য, যে চিঠি প্রধানমন্ত্রীর কাছে এই মর্মে পাঠানো হয়েছে, সেখানে লেখা রয়েছে, ধর্মের ভিত্তির হিংসা মেনে নেওয়া যাবে না। চিঠিতে উল্লেখ করা হয়, ' কোনও ভয় বা লজ্জা ছাড়া আমাদের ধর্মাচরণের অধিকার আমাদের সংবিধান দিয়েছে। এখন আমাদের দেশে একটি ভয়ের বাতাবরণ তৈরি হয়েছে। ধর্মীয় আরাধনার স্থান যেমন চার্চ ভেঙে দেওয়ার ঘটনা এখন সামনে আসছে।' চিঠিতে বলা হয়, কোনও ভয় ছাড়াই এমন সমস্ত হিংসার ঘটনা ঘটছে। যা কোনও মতেই মেনে নেওয়ার মতো কাজ নয়।

এদিকে, এই চিঠির প্রেক্ষিতে আইআইএম বেঙ্গালুরুর এক অধ্যাপক জানিয়েছেন, 'একজন নাগরিক হিসাবে আমাদের মনে হয়েছে এই পরিস্থিতিতে আমাদের অস্বস্তির কথা প্রধানমন্ত্রীকে জানানো দরকার।' উল্লেখ্য, গত কয়েক সপ্তাহে দেশে একের পর এক বিদ্বেষমূলক বক্তব্যের ভিডিয়ো ভাইরাল হয়। যা ঘিরে তদন্তে নামে পুলিশ। হরিদ্বারের ঘটনায় একাধিক জনকে ইতিমধ্যেই গ্রেফতার করেছে পুলিশ। এরপর নতুন করে ছত্তিশগড় থেকে আরও একটি ভিডিয়ো ভাইরাল হয়েছে। যা নিয়েও তদন্তে রয়েছে পুলিশ।

বন্ধ করুন