বাংলা নিউজ > ঘরে বাইরে > সৌদির সুলতানের কাছে মোদীর ফোন যেতেই ইয়েমেন যুদ্ধকালে কীভাবে উদ্ধার হন ভারতীয়রা? ভাইরাল সুষমা স্বরাজের ভিডিয়ো
নরেন্দ্র মোদী। ছবি সৌজন্য- REUTERS (HT_PRINT)

সৌদির সুলতানের কাছে মোদীর ফোন যেতেই ইয়েমেন যুদ্ধকালে কীভাবে উদ্ধার হন ভারতীয়রা? ভাইরাল সুষমা স্বরাজের ভিডিয়ো

  • বিদেশমন্ত্রী সুষমার প্রস্তাব শুনেই প্রধানমন্ত্রী মোদী বলেন, এখনই ফোন করা যাক! এরপর সৌদির সুলতানের কাছে ৭ দিনের যুদ্ধবিরতির অনুরোধ করেন মোদী। প্রত্যুত্তরে সুলতান ১ ঘণ্টা সময় চেয়ে নেন। ১ ঘণ্টা পর ফোন আসে সৌদি থেকে। সৌদি থেকে ফোনে সুলতান জানিয়ে দেন, ৭ দিনের জন্য যুদ্ধ রোখা সম্ভব নয়। এরপর ঘটে চমকপ্রদ ঘটনা।

এই মুহূর্তে যুদ্ধবিধ্বস্ত ইউক্রেন থেকে নিরাপদে ভারতীয়দের ফিরিয়ে আনাই কার্যত পাখির চোখ দিল্লির। আর সেই লক্ষ্যে শুরু হয়ে গিয়েছে 'অপারেশন গঙ্গা'। ইউক্রেন সংলগ্ন বিভিন্ন দেশে পৌঁছে গিয়েছেন ভারতের কেন্দ্রীয় মন্ত্রীরা। সেখান থেকে আটকে পড়া ভারতীয়দের ফিরিয়ে আনার দায়িত্বে রয়েছেন তাঁরা। এদিকে, মোদী সরকারের বহু সমালোচকের দাবি, রাশিয়ার কবল থেকে অতটা সহজে ভারতীয়দের ফিরিয়ে আনা সম্ভব নয়। এদিকে, যুদ্ধের মাঝে ২ জন ভারতীয়ের মৃত্যুর খবর ইতিমধ্যেই উঠে আসতে শুরু করেছে। তারই মধ্যে সুষমা স্বরাজের এক পুরনো ভিডিয়ো তুলে ধরে অমিত মালব্য দাবি করেন, রাশিয়ার কবজা থেকে ইউক্রেনের ভারতীয়দের ফিরিয়ে আনা কেন সহজ হতে পারে, তার জবাব রয়েছে সুষমা স্বরাজের এই ভিডিয়োতে।

যে ভিডিয়ো অমিত মালব্য প্রকাশ্যে এনেছেন তা বহু বছর আগের। ভিডিয়োতে প্রাক্তন প্রয়াত বিদেশমন্ত্রী সুষমা তুলে ধরেছেন ২০১৫ সালের এক ঘটনা। তখন সবেমাত্র মসনদে বসেছে প্রথম মোদী সরকার। সেই সময় সৌদি হামলা চালায় ইয়েমেনে হুতি সরকারের বিরুদ্ধে। এমন সময় সেদেশে আটকে পড়া ভারতীয়দের ফিরিয়ে আনা দিল্লির কাছে বড় চ্যালেঞ্জ হয়ে দাঁড়ায়। সেই সময় ভারতের বিদেশমন্ত্রী ছিলেন সুষমা স্বরাজ। পরিস্থিতি সংকটজনক দেখেই সুষমা মোদীর দ্বারস্থ হন। তিনি মোদীকে অনুরোধ করেন, যে সৌদির সুলতানের সঙ্গে তো মোদীর ভালো সম্পর্ক রয়েছেই, তাহলে যদি প্রধানমন্ত্রী একবার সুলতানকে ফোন করে ভারতীদের উদ্ধারের বিষয়ে আলোচনা করেন। বিদেশমন্ত্রী সুষমার প্রস্তাব শুনেই প্রধানমন্ত্রী মোদী বলেন, এখনই ফোন করা যাক! এরপর সৌদির সুলতানের কাছে ৭ দিনের যুদ্ধবিরতির অনুরোধ করেন মোদী। প্রত্যুত্তরে সুলতান ১ ঘণ্টা সময় চেয়ে নেন। ১ ঘণ্টা পর ফোন আসে সৌদি থেকে।

সৌদি থেকে ফোনে সুলতান জানিয়ে দেন, ৭ দিনের জন্য যুদ্ধ রোখা সম্ভব নয়। তবে প্রতিদিন ২ ঘণ্টা করে যুদ্ধবিরতি রাখা যাবে। প্রস্তাব শুনে মোদী তখন সুষমা স্বরাজকে জিজ্ঞাসা করেন, এই ২ ঘণ্টার মধ্যে কি সম্ভব ভারতীয়দের ফিরিয়ে আনা? বিদেশমন্ত্রী সরাজ জানান, তিনি পারবেন। সঙ্গে সঙ্গে গ্রাউন্ড জিরোতে পৌঁছে যান প্রতিমন্ত্রী ভিকে সিং। দিল্লি থেকে মনিটারিং শুরু করেন সুষমা নিজে। ইয়েমেনে আটকে থাকা ভারতীয়দের ফিরিয়ে আনতে শুরু হয় 'অপারেশন রাহত'। সুষমা জানান, আগে যুদ্ধবিধ্বস্ত দেশ থেকে ভারতীয়দের ফিরিয়ে আনতে আমেরিকার মতো শক্তিধর দেশের ওপর নির্ভর করতে হত ভারতকে। তবে, বর্তমানে পরিস্থিতি পাল্টেছে। ইয়েমেন যুদ্ধের সময় ভারতের কাছে আমেরিকার মতো দেশ অনুরোধ জানিয়ে বলে যে, আপনাদের কথা তো ওরা (সৌদি) শুনছে, যদি সেই মর্মে আমাদের নাগরিকদেরও উদ্ধার করে দেন। সুষমা জানান, সেই সময় ভারতীয়রা ছাড়াও বিভিন্ন দেশের নাগরিকদের দিল্লি উদ্ধার করে আনে।

এই ভিডিয়ো পোস্ট করে অমিত মালব্য প্রশ্ন তোলেন যে, যদি সেই সময় মোদীর আলোচনার পর সৌদির সম্রাট ভারতীয়দের ফিরিয়ে দেওয়ার জন্য পদক্ষেপ করেন, তাহলে ইউক্রেন সংকটকালে হবে না, এমন বিশ্বা কোথা থেকে আসে? টুইটে অমিতের দাবি, রাশিয়ার তরফে ভারতীয়দের দেশে ফেরাতে 'সেফ প্যাসেজ'-এর কথা বলা হয়েছে। আর তা বিশ্বাস করতে সমস্যা কোথায়? এই প্রশ্ন তোলেন বিজেপি নেতা অমিত মালব্য। 

 

বন্ধ করুন