বাংলা নিউজ > ঘরে বাইরে > পোখরানে পারমাণবিক পরীক্ষার পর বাজপেয়ীকে চিঠি লিখেছিলেন ক্ষুব্ধ অমিত শাহ
অমিত শাহ (PTI)
অমিত শাহ (PTI)

পোখরানে পারমাণবিক পরীক্ষার পর বাজপেয়ীকে চিঠি লিখেছিলেন ক্ষুব্ধ অমিত শাহ

  • এই পরীক্ষার বিরোধী ছিলেন তিনি, বিপরীত মেরুতে ছিলেন নরেন্দ্র মোদী। 

এখন যে কোনও ইস্যুতে জনসমক্ষে একই সুরে কথা বলেন প্রধানমন্ত্রী মোদী ও কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহ। কিন্তু চিরকাল এমনটা ছিল না, দাবি একটি নতুন বইয়ে। বিনয় সীতাপতির নতুন বই জুগলবন্দি দ্য বিজেপি বিফোর মোদী- তে এরকম একটি দৃষ্টান্তের কথা দেওয়া আছে যেখানে এই দুই নেতা সম্পূর্ণ ভিন্ন মেরুতে ছিলেন। প্রায় দুই দশক আগে অটল বিহারী বাজপেয়ীর আমলে যখন পোখরানে পরমাণু পরীক্ষা করে ভারত, তখন ভিন্ন অবস্থান নেন এই দুই নেতা। 

তখন নরেন্দ্র মোদী দলের সাধারণ সম্পাদক ছিলেন। মূলত আমেরিকায় স্থিত ভারতীয়দের সমর্থন জোটানো ছিল তাঁর প্রধান কাজ। ওখানে স্থিত প্যাটেল সম্প্রদায়ের সাহায্য নিয়ে প্রবাসীদের কাছে পৌঁছে যেতেন তিনি। মোদী এতটা সময়ই বাসে, ট্রেনে আমেরিকায় থাকতেন যে বাজপেয়ী একবার মজার ছলে জিজ্ঞেস করেছিলেন যে ওখানেই পাকাপাকি থেকে যাবে না কি। ১৯৯৮ সালে ভারত পোখরানে বোমা পরীক্ষা করার পরেই নয়াদিল্লির ওপর নানান নিষেধাজ্ঞা চাপায় আমেরিকা। তখন মোদী তাঁর কানেকশন ব্যবহার করে মার্কিন কংগ্রেসে লবি করান এই নিষেধাজ্ঞা শিথিল করার জন্য। 

অন্যদিকে অমিত শাহ তখন গুজরাতের ৩৩ বছরের বিধায়ক। এই পারমাণবিক পরীক্ষার পুরোপুরি বিরোধী ছিলেন শাহ। এমনকী বাজপেয়ীকে চিঠিও লেখেন অমিত শাহ। বইয়ে দাবি করা হয়েছে যে অমিত শাহ বাজপেয়ীকে চিঠিতে বলেন যে আপনার প্রচার লোলুপতার ফলে চিরকালের মতো পাক অধিকৃত কাশ্মীরকে হারালেন। 

চিঠি পেয়ে কিছুটা বিভ্রান্ত হয়ে বাজপেয়ী অমিত শাহকে দিল্লিতে ডেকে পাঠান। অমিত শাহ তখন তাঁকে বলেন মোরারজি দেশাইয়ের কথা। প্রধানমন্ত্রী থাকাকালীন মোররাজি অমিত শাহকে বলেছিলেন যে ভারত ও পাকিস্তান, দুই দেশই যদি পারমাণবিক শক্তি হয়ে যায়, তাহলে যুদ্ধ করে পাক অধিকৃত কাশ্মীর কখনো ফেরত পাওয়া যাবে না। চাইলে মোরারজি দেশাইও পারমাণবিক বোমা তৈরি করতে পারতেন বলে বাজপেয়ীকে জানান ক্ষুব্ধ অমিত শাহ। 

 

বন্ধ করুন