বাংলা নিউজ > ঘরে বাইরে > পঞ্জশিরে প্রাক্তন আফগান উপ-রাষ্ট্রপতির দাদাকে অত্যাচার করে হত্যা : রিপোর্ট
পঞ্জশিরে প্রাক্তন আফগান উপ-রাষ্ট্রপতির দাদাকে অত্যাচার করে হত্যা : রিপোর্ট। (ছবিটি প্রতীকী, সৌজন্য পিটিআই)
পঞ্জশিরে প্রাক্তন আফগান উপ-রাষ্ট্রপতির দাদাকে অত্যাচার করে হত্যা : রিপোর্ট। (ছবিটি প্রতীকী, সৌজন্য পিটিআই)

পঞ্জশিরে প্রাক্তন আফগান উপ-রাষ্ট্রপতির দাদাকে অত্যাচার করে হত্যা : রিপোর্ট

  • বিভিন্ন রিপোর্ট অনুযায়ী, জল্পনা ছড়িয়েছিল যে সালেহ যেখানে থাকছেন, সেখানকার গ্রন্থাগার দখল করে নিয়েছে তালিবান।

নৃশংস অত্যাচার করে হত্যা করা হয়েছে আফগানিস্তানের প্রাক্তন উপ-রাষ্ট্রপতির আমরুল্লাহ সালেহের দাদাকে। একাধিক প্রতিবেদনে এমনই দাবি করা হয়েছে। ওই প্রতিবেদনগুলিতে দাবি করা হয়েছে, পঞ্জশির থেকে কাবুল যাওয়ার সময় হত্যা করা হয়েছে সালেহের দাদা রোহুল্লাহ সালেহকে। যদিও সেই খবরের সত্যতা যাচাই করেনি হিন্দুস্তান টাইমস বাংলা।

বিভিন্ন রিপোর্ট অনুযায়ী, সম্প্রতি আমরুল্লাহ একটি ভিডিয়ো বার্তা জারি করে দাবি করেছিলেন, তিনি এখনও পঞ্জশিরে আছেন। জল্পনা ছড়িয়েছিল যে সালেহ যেখানে থাকছেন, সেখানকার গ্রন্থাগার দখল করে নিয়েছে তালিবান। আফগানিস্তানের প্রাক্তন উপ-রাষ্ট্রপতি যেখান থেকে ভিডিয়োবার্তা দিয়েছেন, সেখানেই এক তালিবানি জঙ্গিকে বসে থাকতে দেখা গিয়েছে বলে একাধিক রিপোর্টে দাবি করা হয়েছে। 

তারইমধ্যে স্থানীয় সংবাদমাধ্যমকে উদ্ধৃত করে সংবাদসংস্থা এএনআই জানিয়েছে, আফগানিস্তানে একটি সমান্তরাল সরকার ঘোষণার পরিকল্পনা করছে পঞ্জশিরের বিরোধী গোষ্ঠী। দিনকয়েক আগেই তালিবান অন্তর্বর্তীকালীন সরকার ঘোষণা করলেও বিরোধী গোষ্ঠী দাবি করেছে, জনমতের ভিত্তিতে একটি গণতান্ত্রিক এবং বৈধ সরকার গঠন করা হবে। যে সরকারকে স্বীকৃতি দেবে আন্তর্জাতিমক মহল।

অন্যদিকে, বৃহস্পতিবার ব্রিকসের (ব্রাজিল, রাশিয়া, ভারত, চিন এবং দক্ষিণ আফ্রিকা) ভার্চুয়াল বৈঠকের পর দিল্লি ঘোষণাপত্রে আফগানিস্তানের পরিস্থিতি নিয়ে উদ্বেগ প্রকাশ করা হয়েছে। হিংসাত্মক পথ এড়িয়ে শান্তিপূর্ণভাবে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণের উপর জোর দিয়েছেন মোদী, রাশিয়ার রাষ্ট্রপতি ভ্লাদিমির পুতিনরা। সেইসঙ্গে সন্ত্রাসবাদের বিরুদ্ধে লড়াই এবং মহিলা ও সংখ্যালঘু-সহ মানবাধিকার রক্ষার উপর বাড়তি গুরুত্ব আরোপ করা হয়েছে। অন্তর্বর্তীকালীন তালিবান সরকার গঠনের দু'দিন পর কড়া ভাষার বিবৃতিতে বলা হয়েছে, ‘আফগান ভূখণ্ডকে জঙ্গিদের অবাধ বিচরণক্ষেত্র এবং অন্য দেশের হামলা চালানো-সহ সন্ত্রাসবাদের বিরুদ্ধে লড়াইয়ের ক্ষেত্রে অগ্রাধিকার প্রদান করেছি আমরা। গুরুত্ব দেওয়া হয়েছে আফগানিস্তানের অভ্যন্তরে মাদক ব্যবসার বিরুদ্ধে লড়াই করার বিষয়েও।’

বন্ধ করুন