বাংলা নিউজ > ঘরে বাইরে > 'কৃতিত্বের চিন্তা ছেড়ে…', মমতাকে 'উদ্বোধন মন্তব্য' নিয়ে এবার খোঁচা অনুরাগের
মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় (ছবি সৌজন্যে পিটিআই) (PTI)
মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় (ছবি সৌজন্যে পিটিআই) (PTI)

'কৃতিত্বের চিন্তা ছেড়ে…', মমতাকে 'উদ্বোধন মন্তব্য' নিয়ে এবার খোঁচা অনুরাগের

  • মমতাকে কোভিড সেফ হোম ও ক্যানসার হাসপাতালের মধ্যকার পার্থক্য বোঝান অনুরাগ ঠাকুর।

গত শুক্রবারই কলকাতায় চিত্তরঞ্জন ন্যাশনাল ক্যানসার ইনস্টিটিউটের দ্বিতীয ক্যাম্পাস উদ্বোধন করেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী। সেই ভার্চুয়াল অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ও। সেখানেই মুখ্যমন্ত্রী দাবি করেছিলেন যে চিত্তরঞ্জন ক্যানসার হাসপাতালের এই ভবন আগেই তিনি একবার উদ্বোধন করে দিয়েছেন। মোদীর সামনেই মমতার এহেন মন্তব্য যথেষ্ট বিবৃতকর পরিস্থিতি তৈরি করে। আর এরপর থেকেই বিজেপির নেতারা পালা করে তোপ দেগেছেন মমতাকে। এবার সেই ধারা বজায় রেখে মমতাকে আক্রমণ শানালেন কেন্দ্রীয় মন্ত্রী অনুরাগ ঠাকুর। অনুরাগ মমতাকে কোভিড সেফ হোম ও ক্যানসার হাসপাতালের মধ্যকার পার্থক্য বোঝান। পাশাপাশি পশ্চিমবঙ্গের কোভিড মোকাবিলা নিয়েও খোঁচা দেন।

হিন্দিতে টুইট করে কেন্দ্রীয় মন্ত্রী লেখেন, ‘দিদি মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়, অস্থায়ী কোভিড সেন্টার আর বিশ্বস্তরের ক্যানসার হাসপাতালের মধ্যে অনেক ফারাক। একজন মুখ্যমন্ত্রী হওয়ার দরুণ আপনি সেই পার্থক্যের বিষয়ে অবগত থাকবেন বলে আশা করা যায়। কিন্তু না, না আপনার করোনা মোকাবিলা কার্যকরী না কলকাতায় চিত্তরঞ্জন ক্যানসার হাসপাতাল নিয়ে করা আপনার মন্তব্য। বর্তমানে করোনা সংক্রমণের নিরিখে দেশে বাংলা দুই নম্বরে রয়েছে। এটার চিন্তা ছেড়ে আপনি অহংকারের বিষয়ে জড়িয়ে পড়ছেন। এই বিষয়ে আপনার জ্ঞানও নেই।’ এরপর অনুরাগ প্রশ্ন করেন, ‘আপনি কি কৃতিত্বের চিন্তা ছেড়ে বাংলার সেবা করতে কোভিড মোকাবিলার কাজ করবেন এবং নিজের পদের মর্যাদা বজায় রাখবেন?’

এর আগে অনুষ্ঠানে মুখ্যমন্ত্রী বলেছইলেন, ‘প্রধানমন্ত্রী যে বাংলার উন্নয়নের জন্য আগ্রহ দেখিয়েছেন তার জন্য তাঁকে ধন্যবাদ জানাতে চাই আমি। তবে আমি বলতে চাই, এই ক্যাম্পাসের উদ্বোধন আমরা আগেই করে দিয়েছি। কোভিডের প্রথম ঢেউয়ের সময় আমাদের আরও বেশি স্বাস্থ্য পরিকাঠামোর প্রয়োজন হয়ে পড়েছিল। তখনই নিউ টাউনে এই হাসপাতালের দ্বিতীয় ক্যাম্পাসটি আমার নজরে আসে। এরপরই এটি ব্যবহারের সিদ্ধান্ত নিই আমি। আমরা এখানে সেফ হোম তৈরি করেছিলাম। এই ভবনটি আমাদের খুব কাজে এসেছে।’

বন্ধ করুন