বাংলা নিউজ > ঘরে বাইরে > Approval Rating of Narendra Modi: তাবড় বিশ্বনেতাদের পিছনে ফেলে জনপ্রিয়তার শিখরে মোদী, দাবি সমীক্ষার

Approval Rating of Narendra Modi: তাবড় বিশ্বনেতাদের পিছনে ফেলে জনপ্রিয়তার শিখরে মোদী, দাবি সমীক্ষার

প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী।  (MINT_PRINT)

'মর্নিং কনসাল্ট' নামক এক সংস্থার একটি সাম্প্রতিক সমীক্ষায় দাবি করা হয়েছে, বিশ্বনেতাদের মধ্যে নরেন্দ্র মোদী সবথেকে জনপ্রিয়। সমীক্ষা অনুযায়ী, প্রধানমন্ত্রী মোদীর গ্রহণযোগ্যতা ৭৮ শতাংশ। সমীক্ষায় জানানো হয়েছে, বিশ্বের ২২টি বড় গণতন্ত্রের মধ্যে মাত্র চারটি দেশের প্রধানের গ্রহণযোগ্যতা ৫০ শতাংশের বেশি।

প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর থেকে জো বাইডেনের অটোগ্রাফ চাওয়ার বিষয়টি নিয়ে জোর চর্চা দেশ-বিদেশে। এরই মধ্যে মোদীর জনপ্রিয়তার আরও একটি নিদর্শন সামনে এল। 'মর্নিং কনসাল্ট' নামক এক সংস্থার একটি সাম্প্রতিক সমীক্ষায় দাবি করা হয়েছে, তাবড় বিশ্বনেতাদের মধ্যে নরেন্দ্র মোদী সবথেকে জনপ্রিয়। সমীক্ষা অনুযায়ী, প্রধানমন্ত্রী মোদীর গ্রহণযোগ্যতা ৭৮ শতাংশ। অন্য যেকোনও দেশের রাষ্ট্রপ্রধানের থেকে এই শতাংশের হার অনেক বেশি। সমীক্ষায় জানানো হয়েছে, বিশ্বের ২২টি বড় গণতন্ত্রের মধ্যে মাত্র চারটি দেশেই সেদেশের প্রধানদের গ্রহণযোগ্যতা ৫০ শতাংশের বেশি। মূলত বিভিন্ন জনমুখী প্রকল্পের কারণেই মানুষের মধ্যে রাষ্ট্রনায়ক হিসেবে মোদীর গ্রহণযোগ্যতা এত বেশি।

ঘরোয়া জনপ্রিয়তার নিরিখে প্রধানমন্ত্রীর মোদীর পরে তালিকায় রয়েছেন সুইৎজারল্যান্ডের প্রেসিডেন্ট অ্যালেন বারসেট, মেক্সিকোর প্রেসিডেন্ট অ্যান্দ্রেস ম্যানুয়েল লোপেজ ওব্রাদর এবং অস্ট্রেলিয়ার প্রধানমন্ত্রী অ্যান্থনি অ্যালবানিজ। এই চার নেতারই নিজেদের দেশে গ্রহণযোগ্যতা ৫০ শতাংশের বেশি। এদিকে ইতালির ডানপন্থী প্রধানমন্ত্রী জর্জিয়া মেলোনির গ্রহণযোগ্যতা ৪৯ শতাংশ, জো বাইডেনের গ্রহণযোগ্যতা ৪২ শতাংশ, কানাডার প্রধানমন্ত্রী জাস্টিন ট্রুডোর গ্রহণযোগ্যতা ৩৯ শতাংশ, জার্মান চ্যান্সেলর ওলাফ স্কোলৎজের জনপ্রিয়তা ৩৪ শতাংশ, ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী ঋষি সুনকের গ্রহণযোগ্যতা মাত্র ৩৩ শতাংশ।

এদিকে রিপোর্ট অনুযায়ী, জাপানে সদ্য সমাপ্ত কোয়াড বৈঠকে মোদীর জনপ্রিয়তার প্রসঙ্গ তুলে ধরেছিলেন জো বাইডেন। মোদীকে বাইডেন বলেন, 'আপনি গোটা বিশ্বে এটা প্রমাণ করছেন যে গণতন্ত্রের দাম কতটা।' বাইডেন নাকি মজার ছলে এও বলেন, 'আপনি আমার জন্য সমস্যা তৈরি করে দিয়েছেন। পরের মাসে ওয়াশিংটনে আমরা আপনার সম্মানে একটি ডিনার পার্টির আয়োজন করব। সেই পার্টিতে গোটা দেশের সবাই যেন আসতে চাইছেন। আমাদের টিকিট শেষ হয়ে গিয়েছে। তবে টিকিটের চাহিদা শেষ হয়নি। আপনার মনে হচ্ছে আমি মজা করছি? তাহলে আমার দলকে জিজ্ঞেস করতে পারেন। আমি এমন সব মানুষের থেকে ফোন পাচ্ছি যাদের সঙ্গে আগে জীবনে কথা হয়নি আমার। সিনেমার অভিনেতা থেকে শুরু করে আমার আত্মীয়রা ফোন করে ডিনার পার্টির টিকিট চাইছেন। আপনি খুব বেশি জনপ্রিয়। আপনি অনেক কিছুর ওপরই বিস্তর প্রভাব ফেলেছেন। আমরা কোয়াডে যা করছি, তার ওপও আপনার প্রভাব অপরিসীম। আপনি পরিবেশ সংক্রান্ত ইস্যুতে মনোভাব বদলেছেন সবার। ইন্দো-প্যাসিফিক অঞ্চলেও আপনার প্রভাব রয়েছে।' এই বলে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর অটোগ্রাফ চেয়ে বসলেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন। এরপর অস্ট্রেলিয়ান প্রধানমন্ত্রী অ্যান্থনি অ্যালবানিজও তাঁর দেশে মোদীর জনপ্রিয়তা তুলে ধরতে বলেন, 'সিডনিতে ২০ হাজার আসন বিশিষ্ট হলে আপনার একটি অনুষ্ঠান হওয়ার কথা। সেখানে অংশ নেওয়ার জন্য এত মানুষ আবেদন জানাচ্ছে যে কী বলব। সবাইকে তো আর সেখানে ঢুকতে দিতে পারব না।'

 

বন্ধ করুন