বাংলা নিউজ > ঘরে বাইরে > সেনার নজরে বেআইনী টেলিফোন এক্সচেঞ্জ, মারাত্মক ঘটনার পর্দাফাঁস, ধৃত ২
বেআইনী এক্সচেঞ্জ চালানোর অভিযোগে ধৃত ২ (প্রতীকী ছবি)
বেআইনী এক্সচেঞ্জ চালানোর অভিযোগে ধৃত ২ (প্রতীকী ছবি)

সেনার নজরে বেআইনী টেলিফোন এক্সচেঞ্জ, মারাত্মক ঘটনার পর্দাফাঁস, ধৃত ২

  • চুপি চুপি, ঘুরপথে একাধিক আন্তর্জাতিক কলের রেট কমিয়ে দেওয়া হত বলে অভিযোগ।

ভারতীয় সেনার গোয়েন্দা বিভাগের সন্দেহ হয় গোটা ঘটনায়। সেন্ট্রাল ক্রাইম ব্রাঞ্চের সঙ্গে যোগাযোগ করেন তাঁরা। এরপরই বেআইনী টেলিফোন এক্সচেঞ্জ চালানোর অভিযোগে বেঙ্গালুরু থেকে দুজনকে গ্রেফতার করা হয়েছে। ধৃতদের মধ্যে একজন ৩৬ বছর বয়সী ইব্রাহিম পুলাট্টি, কেরলের বাসিন্দা ও অপরজন ২৭ বছর বয়সী ভি গৌতম। সে তামিলনাড়ুর বাসিন্দা। বেঙ্গালুরুর একটি ভাড়া বাড়িতে তারা বেআইনী টেলিফোন এক্সচেঞ্জ চালাত বলে অভিযোগ। সেন্ট্রাল ক্রাইম ব্রাঞ্চ সূত্রে খবর, ধৃতদের কাছ থেকে ৯০০টি সিম বাজেয়াপ্ত করা হয়েছে। একটি সিম বক্স ডিভাইজও বাজেয়াপ্ত করা হয়েছে যেখানে একসঙ্গে ৩২টি সিম কাজ করে। সিসিবির জয়েন্ট কমিশনার সন্দীপ পাতিল বলেন, ‘প্রাথমিকভাবে দেখা যাচ্ছে তারা আন্তর্জাতিক কলকে অবৈধ রুটের মাধ্যমে লোকাল কলে পরিণত করত। এটা শুধু টেলিকম কোম্পানির ক্ষতিই তা নয়,জাতীয় সুরক্ষার ক্ষেত্রেও এটা প্রশ্নের।’

 

সূত্রের খবর, তাদের কাছে ৬টি সিম বক্স ছিল। সেগুলিকে ছটি জায়গায় তারা রেখেছিল। সেই ছটি জায়গায় অভিযান চালিয়ে যন্ত্রপাতি বাজেয়াপ্ত করা হয়েছে। ঠিক কী করত তারা? প্রাথমিকভাবে গোয়েন্দারা জেনেছেন, তাদের নিজস্ব কিছু গ্রাহক ছিল। আন্তর্জাতিক কলের জন্য তারা প্রতি মিনিটে ১ টাকা করে নিত, যেখানে প্রতি মিনিটে সচরাচর ১০ টাকা করে নেওয়া হয়। প্রতি মাসে তারা প্রায় ১০ থেকে ১৫ লক্ষ টাকা এভাবে আয় করত। সেনার নিজস্ব টেলিফোন এক্সচেঞ্জেও তারা আড়ি পাতত কি না বা টার্গেট করেছিল কি না সেটাও খতিয়ে দেখা হচ্ছে।

 

বন্ধ করুন