বাংলা নিউজ > ঘরে বাইরে > উৎসবের মরশুমে শিকেয় করোনাবিধি, 'সুরক্ষা বর্মে'র অভাবে ভারতে বাজছে বিপদের ঘণ্টা
পুজোর মুখে শিয়ালদা স্টেশনের দৃশ্য (ছবি সৌজন্যে পিটিআই) (PTI)
পুজোর মুখে শিয়ালদা স্টেশনের দৃশ্য (ছবি সৌজন্যে পিটিআই) (PTI)

উৎসবের মরশুমে শিকেয় করোনাবিধি, 'সুরক্ষা বর্মে'র অভাবে ভারতে বাজছে বিপদের ঘণ্টা

  • ডঃ লিপকিন সংবাদ সংস্থা পিটিআইকে বলেন, ‘ভারতের জনসংখ্যার ২০ শতাংশেরও কম মানুষের টিকাকরণ সম্পন্ন হয়েছে।’

মহামারীর দ্বিতীয় ঢউয়ের ভয়াবহতা কমেছে। পাশাপাশি উত্সবের মরশুম শুরু হয়েছে দেশে। এই কারণে দেশজুড়ে করোনাভাইরাস সম্পর্কিত নিষেধাজ্ঞা শিথিল করা হচ্ছে। এই আবহে শীর্ষ ভাইরোলজিস্ট ডঃ ডব্লিউ ইয়ান লিপকিন সতর্ক করে দিলেন দেশকে। সংবাদ সংস্থা পিটিআইকে দেওয়া এক সাক্ষাতকারে বিশেষজ্ঞ বলেন যে ভারতের সবার কাছে এখনও 'সুরক্ষা বর্ম' নেই। লিপকিনের মতে, 'সুরক্ষা বর্ম' হল টিকা। তাঁর মতে যতক্ষণ না দেশের অধিকাংশ মানুষ টিকার দুটি ডোজই নিচ্ছেন, ততক্ষণ কেউ সুরক্ষিত নয়। তিনি জানান, ভারতে এখনও খুবই কম মানুষ টিকার ডোজ সম্পিপূর্ণ করেছে। এই আবহে আগের মতো স্বাভাবিক ছন্দে ফেরা খুবই বিপজ্জনক বলে আখ্যা দেন তিনি।

ডঃ লিপকিন সংবাদ সংস্থা পিটিআইকে বলেন, 'ভারতের জনসংখ্যার ২০ শতাংশেরও কম মানুষের টিকাকরণ সম্পন্ন হয়েছে। তারপর, ১৮ বছরের কম বয়সীরা ভারতের জনসংখ্যার ৩০ শতাংশ। তারা এখনও টিকা নেওয়ার যোগ্যতা পয়ানি। সুতরাং, পুনরায় সবকিছু খোলার ক্ষেত্রে ভারতের প্রয়োজনীয় বর্ম নেই। এটা নিরাপদ নয়।'

তিনি আরও বলেন, 'জনস্বাস্থ্য পরিকাঠামো আরও উন্নত করতে হবে আমাদের। এছাড়াও, আমাদের এমন ব্যক্তিদের ট্র্যাক এবং ট্রেস করতে হবে যারা সংক্রামিত হতে পারে। যাতে আমরা একটি রিং ভ্যাকসিনেশন কৌশল গ্রহণ করতে পারি। গুটিবসন্ত নির্মূল করার ক্ষেত্রে ভারতে তা সফলভাবে করা হয়েছিল।'

দুর্গাপুজো ও নবরাত্রির মুখে সংক্রমণ ও মৃত্যু কিছুটা কমেছে দেশে। এতে দেশবাসী আপাত দৃষ্টিতে স্বস্তিতে থাকলেও আতঙ্ক দূর হয়নি। উৎসবের আবহে ফের সংক্রমণ বৃদ্ধি নিয়ে আশঙ্কায় রয়েছেন বিশেষজ্ঞরাও। তাই বারবার গোটা দেশকে করোনা বিধি মেনে উৎসবে সামিল হওয়ার সতর্কবার্তা দিচ্ছেন তাঁরা।

বন্ধ করুন