বাড়ি > ঘরে বাইরে > কোভিডের জেরে ই-পুজোর রমরমা, চাহিদা বাড়ছে পুজো-অ্যাপ ও ওয়েবসাইটের
বর্তমান পরিস্থিতিতে অনলাইন পুজোই সবচেয়ে নিরাপদ বলে মনে করছেন অনেকে।
বর্তমান পরিস্থিতিতে অনলাইন পুজোই সবচেয়ে নিরাপদ বলে মনে করছেন অনেকে।

কোভিডের জেরে ই-পুজোর রমরমা, চাহিদা বাড়ছে পুজো-অ্যাপ ও ওয়েবসাইটের

  • বর্তমানে সামাজিক দূরত্ববিধি ও অন্যান্য বিধিনিষেধের কারণে মোবাইল অ্যাপ, ওয়েব চ্যানেল ও ভিডিও কলিং অ্যাপ্লিকেশনের সাহায্যে ভার্চুয়াল পুজোর চাহিদা রমরমিয়ে বেড়েছে।

পরিবেশ অনুকূল গণেশ মূর্তি, অনলাইন পুজো দর্শনের পাশাপাশি এবার পুরোহিতরাও অনলাইনেই পুজো সম্পন্ন করাচ্ছেন। গণেশ চতুর্থীর একদিন আগে পর্যন্ত গোরেগাঁওয়ের কুণাল গোরে বড়সড় এক অনুষ্ঠানের প্রস্তুতি নিচ্ছিলেন। কারণ শনিবার, চতুর্থীর দিনে তাঁকে ৩৫টি পুজো কোঅর্ডিনেট করতে হবে। আর এ সবই হবে অনলাইনে। 

করোনা সংক্রমণের ভয়াবহতার জেরে বহু পরিবারই চলতি বছরে ই-পুজোর পথে হাঁটছে। গত কয়েক বছর ধরে এই ব্যবস্থা চলতে থাকলেও, অতিমারী সংকটের ফলে তা-ই এখন অপরিহার্য হয়ে উঠেছে। বর্তমানে সামাজিক দূরত্ববিধি ও অন্যান্য বিধিনিষেধের কারণে মোবাইল অ্যাপ, ওয়েব চ্যানেল ও ভিডিও কলিং অ্যাপ্লিকেশনের সাহায্যে ভার্চুয়াল পুজোর চাহিদা রমরমিয়ে বাড়ছে। 

পেশায় ইভেন্ট ম্যানেজার কুণাল গোরে  livepanditji.com নামে একটি ওয়েবসাইট পরিচালনা করেন। এখানে ‘বাড়িতে পুজো’র সার্ভিসের জন্য নিজের নাম নথিভুক্ত করানো যায়। তিনি জানিয়েছেন, তাঁর পরিবারে অনেক কোয়ালিফায়েড পণ্ডিত রয়েছেন। কভিড-১৯-এর জন্য অনলাইন পুজোর চাহিদা উত্তোরত্তোর বৃদ্ধি পেয়েছে। এই ওয়েব পোর্টালটি জুন মাস থেকেই গণেশ চতুর্থীর পুজোর প্রস্তুতি নিতে শুরু করেছিল। এর জন্য তাঁরা টেস্ট পুজোর ব্যবস্থাও করেছিলেন তখন।

আবার মাই ওমনমো নামক আর একটি অ্যাপে শুক্রবার পর্যন্ত ৬৩২টি পুজোর বুকিং হয়, যার মধ্যে ৪৭৮টিই ছিল মুম্বইয়ের। অ্যাপের ফাউন্ডার মকরন্দ পাটিল জানান, লকডাউনের পর প্রথম সপ্তাহে পুজো বুকিংয়ে ভাটা পড়েছিল। সে সময় থেকে তাঁরা অনলাইন পুজোয় জোর দিতে শুরু করেন। এরপরই পরিস্থিতি বদলায়ে এবং দিনে ২-৩টি পুজোর বুকিং পেতে শুরু করেন তাঁরা। মার্চ থেকে জুলাইয়ের মধ্যে তাঁরা ৭০০-রও বেশি ভার্চুয়াল পুজো করিয়েছেন। এর পর অনলাইন শ্রাবণ পুজো ও তার পর গণেশপুজোর জন্য অনেকে খোঁজখবর করতে শুরু করে। শুধু দেশই নয়, অস্ট্রেলিয়া ও ইউএই-তেও তাঁরা একাধিক পুজো সম্পন্ন করিয়েছেন বলে জানান মকরন্দ পাটিল।

অন্য দিকে কিছু কিছু ওয়েবসাইট পুজোর ফ্রি অডিও, ভিডিও রেকর্ডিংয়ের সুবিধাও দিচ্ছে। puja.online নামক চার জন পণ্ডিতের পোর্টালটিতে পুজোর নিয়মাবলী সংক্রান্ত একটি অডিও ফাইল আপলোড করা হয়েছিল। সুবিধ মতো যে কেউই সেখান থেকে পুজোর নিয়ম-নীতি সম্পর্কে জানতে পারবেন। এখনও পর্যন্ত ওই সাইটটিতে ২ লক্ষ ভিউয়ার পুজোর স্ট্রিমিং দেখেছেন। 

এক স্থানীয়ের মতে, বর্তমান পরিস্থিতিতে অনলাইন পুজোই সবচেয়ে নিরাপদ। তাই সোসাইটির গণেশ পুজোর জন্য তাঁরাও অনলাইন পুজোকেই বেছে নিয়েছেন।

বন্ধ করুন