বাংলা নিউজ > ঘরে বাইরে > শঙ্খচূড় ধরে গলায় ঝুলিয়ে নাচ, কামড়ে মৃত্যু 'মত্ত' বৃদ্ধের
ছবি : ফেসবুক (Facebook)
ছবি : ফেসবুক (Facebook)

শঙ্খচূড় ধরে গলায় ঝুলিয়ে নাচ, কামড়ে মৃত্যু 'মত্ত' বৃদ্ধের

বৃদ্ধ মদ খেয়ে ছিলেন বলে দাবি।

শঙ্খচূড় নিয়ে নাচ দেখাতে গিয়ে প্রাণ হারালেন অসমের কাছাড় জেলার বৃদ্ধ। ৬০ বছরের রঘুনন্দন ভূমিজ বিষ্ণুপুর গ্রামের বাসিন্দা। লোকালয়ে ঢুকে পড়া বিশালাকার সাপটি ধরেছিলেন তিনি। সেটা গলায় ঝুলিয়ে গোটা গ্রামও ঘোরেন। নাচতে নাচতে ভিডিয়োও বানান। সম্প্রতি সোশ্যাল মিডিয়ায় তা ভাইরাল হয়েছে। যদিও ঘটনাটি চলতি মাসের শুরুর দিকের।

পুরোটা সময়ে সাপের গলার কাছে শক্ত করে চেপে ধরে ছিলেন ওই বৃদ্ধ। হঠাত্ অসতর্কতায় তাঁর হাত ফসকে যায়। সাপটি ছোবল দেয় বৃদ্ধকে। প্রত্যক্ষদর্শীদের দাবি, মত্ত অবস্থায় ছিলেন ওই বৃদ্ধ। তাই তাঁর কোন হুঁশ ছিল না। অনেকেই তাঁকে সতর্ক করেন, কিন্তু তাঁদের কথায় পাত্তা দেননি।

বিশ্বের অন্যতম বিষাক্ত সাপ শঙ্গচূড়। এটি বিশ্বের সর্ববৃহত্ বিষধর সাপও বটে। তাই কামড়ের প্রায় সঙ্গে সঙ্গেই ওই বৃদ্ধের মৃত্যু হয়। যদিও কুসংস্কারাচ্ছন্ন গ্রামবাসী এখনও দাবি করছেন যে তাঁকে কোনও ওঝার কাছে নিয়ে গেলে প্রাণরক্ষা করা যেত।

বৃদ্ধকে কামড়ানোর পর সাপটি ছাড়া পেয়ে যায়। তবে ততক্ষণে বন দফতরের কানে খবর গিয়েছে। তাঁরা এসে সাপটি উদ্ধার করেন। বন আধিকারিক তেজাস মারিস্বামী জনসাধারণের সাপ নিয়ে অসচেতনতায় হতাশা প্রকাশ করেছেন। সাপটি দূরে গভীর জঙ্গলে ছেড়ে আসা হয়েছে বলে তিনি জানান।

শঙ্খচূড়(King Cobra) সাধারণত লোকালয়ে আসে না। ইংরেজি নামে কোবরা শব্দটি থাকলেও এটি কোবরা বা গোখরো নয়। ভারতের উত্তর-পূর্ব ও পূর্বাংশে এবং বাংলাদেশের সুন্দরবনের গভীরে এই সাপ দেখতে পাওয়া যায়। প্রাথমিকভাবে এটি অন্যান্য সাপ খেয়ে ফেলে। ফলে অন্য সাপের সংখ্যা নিয়ন্ত্রণে এর গুরুত্ব অপরিসীম। এই সাপের বিষ মূলত নিউরোটক্সিক, অর্থাৎ এটির বিষ স্নায়ুতন্ত্রে আক্রমণ করে।

বন্ধ করুন