সুস্থ হয়ে পাসপাতাল থেকে ছাড়া পাওয়া রোগীদের সংবর্ধনা জানাচ্ছেন অসমের স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রী হিমন্ত বিশ্ব শর্মা। এএনআই-এর ছবি।
সুস্থ হয়ে পাসপাতাল থেকে ছাড়া পাওয়া রোগীদের সংবর্ধনা জানাচ্ছেন অসমের স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রী হিমন্ত বিশ্ব শর্মা। এএনআই-এর ছবি।

লকডাউনে দেশজুড়ে আটকে পড়া অসমবাসীকে মাথাপিছু ২,০০০ সাহায্য প্রশাসনের

  • লকডাউনে দেশের বিভিন্ন প্রান্তে থাকা ৮৬,০০০ জন অসমবাসীকে মাথাপিছু এককালীন ২,০০০ টাকা সাহায্য করল অসম প্রশাসন।

লকডাউনে দেশের বিভিন্ন প্রান্তে আটকে পড়া রাজ্যবাসীকে সাহায্যের জন্য সোমবার মাথাপিছু ২,০০০ টাকা তাঁদের ব্যাঙ্ক অ্যাকাউন্টে জমা করল অসম সরকার।

এ দিন অসমের

স্বাস্থ্য ও অর্থ মন্ত্রী হিমন্ত বিশ্ব শর্মা জানিয়েছেন, ‘লকডাউনের জেরে ভারতজুড়ে আটকে থাকা রাজ্যের ৪.৩ লাখ বাসিন্দার কাছে আমরা পৌঁছতে পেরেছি। আজ আমরা তাঁদের ৮৬,০০০ জনকে মাথাপিছু এককালীন ২,০০০ টাকা সাহায্য করেছি। লকডাউন চলাকালীন আরও এক কিস্তি অর্থ পাঠানো হবে।’

এর আগে রাজ্যের বাইরে চিকিৎসা করাতে যাওয়া ৬৪৭ জন বাসিন্দাকে মাথাপিছু ২৫,০০০ টাকা সাহায্য করেছে অসম সরকার। বিদেশে স্বল্প কালের জন্য যাওয়া অসমবাসীর প্রত্যেককে ২,০০০ মার্কিন ডলার সাহায্য করা হয়েছে।

দেশের বিভিন্ন রাজ্যে লকডাউনের জেরে আটকে পড়া অসমবাসীদের ত্রাণ দিতে হেল্পলাইন চালু করেছে অসম সরকার। দুর্গতদের ওই ফোন নম্বরে মিসড কল দিতে বলা হয়েছে। যাঁর ফোন করেছেন, তাঁদের প্রত্যেককে একটি ফর্মে ব্যক্তিগত ব্যাঙ্ক অ্যাকাউন্ট সংক্রান্ত বিশদ তথ্য জানাতে বলা হয়েছে।

সংগৃহীত তথ্য এরপর পাঠানো হয়েছে সংশ্লিষ্ট জেলা প্রশাসনের কাছে। জানা গিয়েছে, হেল্পনাইনে মোট ৪.৩ লাখ ব্যক্তি ফোন করেন। তাঁদের মধ্যে ২.২৮ লাখ অসমবাসী তাঁদের ব্যাঙ্ক কাউন্ট সংক্রান্ত তথ্য পাঠান। সেই সমস্ত অ্যাকাউন্টের মধ্যে এক লাখ অ্যাকাউন্ট বৈধ, জানিয়েছে অসম সরকার।

এই প্রক্রিয়ার মাধ্যমে পেশার খাতিরে রাজ্যের বাইরে থাকা জনসংখ্যা সম্পর্কে ধারণা তৈরি করতে সক্ষম হয়েছে প্রশাসন।

এ দিন স্বাস্থ্যমন্ত্রী জানিয়েছেন, করোনা সংক্রমণ নির্ণয়ে এখনও পর্যন্ত কেন্দ্রের থেকে ৯,৬০০ র‌্যাপিড টেস্টিং কিট পেয়েছে অসম। তার আগে চিন থেকে ৫০,০০০ পিপিই কিট জোগাড় করে অসম সরকার।

বন্ধ করুন