বাংলা নিউজ > ঘরে বাইরে > অযোধ্যায় মসজিদের নামকরণ হচ্ছে স্বাধীনতা সংগ্রামীর নামে
শিল্পীর চোখে অযোধ্যায় মসজিদ। (ছবি সৌজন্য টুইটার)
শিল্পীর চোখে অযোধ্যায় মসজিদ। (ছবি সৌজন্য টুইটার)

অযোধ্যায় মসজিদের নামকরণ হচ্ছে স্বাধীনতা সংগ্রামীর নামে

  • বোর্ডের তরফে জানানো হয়, স্বাধীনতা সংগ্রামীকে শ্রদ্ধা জানানোর জন্যই নতুন এই মসজিদের নামকরণ তাঁর নামেই রাখা হয়েছে।

অযোধ্যায় পাঁচ একর জমির ওপর তৈরি প্রস্তাবিত নতুন মসজিদের নামকরণ হবে স্বাধীনতা সংগ্রামীর নাম। সোমবার উত্তরপ্রদেশ সুন্নি সেন্ট্রাল ওয়াকফ বোর্ডের তরফে এই কথাই ঘোষণা করা হয়েছে।বোর্ডের তরফে জানানো হয়েছে, অযোধ্যার ধন্নিপুর গ্রামে তৈরি নতুন এই মসজিদটির নাম হবে মৌলবী আহমদুল্লা শাহ ফৈজাবাদীর নামে।এর আগে ওই নতুন মসজিদটি জায়গার নামেই ছিল।কিন্তু পরে বোর্ডের তরফে জানানো হয়, ১৮৫৭ সালে সিপাহী বিদ্রোহের স্বাধীনতা সংগ্রামীকে শ্রদ্ধা জানানোর জন্যই নতুন এই মসজিদের নামকরণ তাঁর নামেই রাখা হয়েছে।

ইন্দো ইসলামিক কালচারাল ফাউন্ডেশনের মুখপাত্র আথার হুসেন জানান, বোর্ডের সদস্যদের থেকে প্রস্তাব এসেছিল।তাঁদের প্রস্তাব মতোই একজন স্বাধীনতা সংগ্রামীর নামে এই মসজিদের নাম রাখা হল।তাঁকে গঙ্গা, যমুনা এবং হিন্দু ও মুসলিম ঐক্যের প্রতীক হিসাবে দেখা হয়।জানা গিয়েছে, ওই পাঁচ একর জমিতে মসজিদ ছাড়াও তৈরি হতে চলেছে কমিউনিটি কিচেন, হাসপাতাল, মিউজিয়াম ও ইন্দো–ইসলামিক রিসার্চ সেন্টার।

এর আগে অবশ্য উত্তরপ্রদেশ সুন্নি ওয়াকফ বোর্ডের তরফে জানানো হয়েছিল, নতুন এই মসজিদটি মুঘল সম্রাট বাবর বা অন্য কোনও মুঘল সম্রাটের নামে রাখা যাবে না।তখন থেকেই মসজিদের নামকরণ কার নামে রাখা যায়, তা নিয়ে একটা চর্চা চলছিলই।বোর্ডের কাছে মসজিদের নামকরণ সুফি মসজিদ বা আমন মসজিদ করার প্রস্তাব এসেছিল।তখন বোর্ডের তরফে সিদ্ধান্ত করা হয়, মসজিদের নামকরণ এমন একজনের নামে রাখতে হবে যাতে তা ইন্দো–ইসলামিক মতাদর্শের সঙ্গে খাপ খায়।উল্লেখ্য, সুপ্রিম কোর্টের নির্দেশ মতোই রাজ্য সরকারের তরফে সুন্নি ওয়াকফ বোর্ডকে মসজিদ তৈরির ব্যাপারে ৫ একর জমি দেওয়া হয়।‌

বন্ধ করুন