বাংলা নিউজ > ঘরে বাইরে > শুক্রবারের প্রার্থনার পর ‘কাশ্মীরে মসজিদের ভিতরে আজাদি স্লোগান’, শুরু বিতর্ক

শুক্রবারের প্রার্থনার পর ‘কাশ্মীরে মসজিদের ভিতরে আজাদি স্লোগান’, শুরু বিতর্ক

‘আজাদি’ স্লোগান বিতর্কে উত্তাপ বাড়ল শ্রীনগরে। (ছবি সৌজন্যে এএফপি)

কাশ্মীরের অন্যতম বড় মসজিদ হল জামা মসজিদ। যা বছরের পর বছর ধরে কাশ্মীর উপত্যকার একাধিক গুরুত্বপূর্ণ ঘটনার সাক্ষী থেকেছে। আগে হুরিয়ত নেতা মিরওয়েজ উমর ফারুখ সেখানে সাপ্তাহিক ধর্মীয় ভাষণ দিতেন।

‘আজাদি’ স্লোগান বিতর্কে উত্তাপ বাড়ল শ্রীনগরে। রমজান মাসের প্রথম শুক্রবার শ্রীনগরের জামিয়া মসজিদে কয়েকজন ‘আজাদি’ স্লোগান দিয়েছেন বলে অভিযোগ উঠেছে।

করোনাভাইরাসের ধাক্কায় দীর্ঘদিন জামিয়া মসজিদ বন্ধ ছিল। গত মাসেই খুলেছে সেই মসজিদ। অভিযোগ, শুক্রবার প্রার্থনা শেষের পর একদল যুবক মসজিদের ভিতরেই ‘আজাদি’ স্লোগান দেন। বিক্ষোভও দেখানো হয়। কিছুক্ষণ পর বিক্ষোভ উঠে যায় এবং জনতা ছত্রভঙ্গ হয়ে যায়।

উল্লেখ্য, কাশ্মীরের অন্যতম বড় মসজিদ হল জামা মসজিদ। যা বছরের পর বছর ধরে কাশ্মীর উপত্যকার একাধিক গুরুত্বপূর্ণ ঘটনার সাক্ষী থেকেছে। আগে হুরিয়ত নেতা মিরওয়েজ উমর ফারুখ সেখানে সাপ্তাহিক ধর্মীয় ভাষণ দিতেন। তবে ২০১৯ সালের ৫ অগস্ট জম্মু ও কাশ্মীরে সংবিধানের ৩৭০ ধারা প্রত্যাহারের পর থেকে তাঁকে গৃহবন্দি করে রাখা হয়েছে।

এই ঘটনা এমন একটা সময় ঘটেছে, যখন কাশ্মীরে একাধিক জঙ্গি হামলার ঘটনা ঘটেছে। সম্প্রতি কেন্দ্র অবশ্য জানিয়েছে, ৩৭০ ধারা প্রত্যাহারের পর জম্মু ও কাশ্মীরে সাধারণ নাগরিকদের হত্যা ৫০ শতাংশ কমে গিয়েছে। রাজ্যসভায় লিখিত বিবৃতিতে কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্র মন্ত্রকের রাষ্ট্রমন্ত্রী নিত্যানন্দ রাই জানান, ‘‌২০১৪ সালের মে থেকে ২০১৯ সালের অগস্ট পর্যন্ত কাশ্মীরে ১৭৭ জন সাধারণ মানুষ ও ৪০৭ জন নিরাপত্তারক্ষীর মৃত্যু হয়েছিল। ২০১৯ সালের অগস্টে ৩৭০ ধারা রদের কথা ঘোষণা করা হয়। এরপর থেকে গত বছরের নভেম্বর পর্যন্ত পরিসংখ্যান বলছে, কাশ্মীরে সাধারণ মানুষ ও নিরাপত্তারক্ষীর হত্যার পরিমাণ কমে এসেছে। এই সময়ের মধ্যে সন্ত্রাসবাদীদের হাতে ৮৭ জন সাধারণ নাগরিকের মৃত্যু হয়েছে। নিরাপত্তা বাহিনীর ৯৯ জন সদস্য মারা গিয়েছেন।’‌

বন্ধ করুন