বাংলা নিউজ > ঘরে বাইরে > বিমানসেবিকা ও চিকিৎসক সহযাত্রীর সহায়তায় মাঝ-আকাশেই জন্ম শিশুর
জয়পুর বিমানবন্দরে চিকিত্সককে ধন্যবাদ জানানো হয়। ছবি : ইন্ডিগো (Indigo)
জয়পুর বিমানবন্দরে চিকিত্সককে ধন্যবাদ জানানো হয়। ছবি : ইন্ডিগো (Indigo)

বিমানসেবিকা ও চিকিৎসক সহযাত্রীর সহায়তায় মাঝ-আকাশেই জন্ম শিশুর

বিমানসেবিকাদের বিভিন্ন ধরণের মেডিকেল এমার্জেন্সি মোকাবিলার প্রাথমিক প্রশিক্ষণ থাকে। তাই এমন পরিস্থিতিতেও ঘাবড়ে যাননি তাঁরা। প্রসব বেদনার কথা শুনেই সঙ্গে সঙ্গে সমগ্র বিমানে কোনও চিকিত্সক যাত্রী আছেন কিনা তা অ্যানাউন্স করে দেন এক বিমানসেবিকা।

বেঙ্গালুরু থেকে জয়পুর যাচ্ছিল ইন্ডিগোর ফ্লাইট 6E 469 । হঠাত্ মাঝ আকাশে প্রসব বেদনা শুরু হয় এক যাত্রীর। সঙ্গে সঙ্গে ছুটে আসেন বিমানসেবিকারা। তাঁদের ও এক সহযাত্রীর সহযোগিতায় মধ্যগগনেই জন্ম নিল ছোট্ট শিশুকন্যা।

বিমানসেবিকাদের বিভিন্ন ধরণের মেডিকেল এমার্জেন্সি মোকাবিলার প্রাথমিক প্রশিক্ষণ থাকে। তাই এমন পরিস্থিতিতেও ঘাবড়ে যাননি তাঁরা। প্রসব বেদনার কথা শুনেই সঙ্গে সঙ্গে সমগ্র বিমানে কোনও চিকিত্সক যাত্রী আছেন কিনা তা অ্যানাউন্স করে দেন এক বিমানসেবিকা।

সেই সময়েই এগিয়ে আসেন চিকিত্সক সুবাহানা নাজির। প্রথমেই আশস্ত করেন বিমানসেবিকা ও অন্যান্য যাত্রীদের। এরপর বিমানসেবিকাদের সহযোগিতা করার জন্য বিভিন্ন নির্দেশ দিতে শুরু করেন।

এরপর সকলের সম্মিলিত প্রচেষ্টায় মাঝ-আকাশেই 'ভূমিষ্ঠ' হয় ফুটফুটে শিশুকন্যা।

ততক্ষণে খবর পৌঁছে গিয়েছে জয়পুর বিমানবন্দরে। সেখানে অ্যাম্বুলেন্সের ব্যবস্থাও করে ফেলে ইন্ডিগো। বিমান অবতরণের সঙ্গে সঙ্গেই মা-মেয়েকে হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়।

আপাতত মা-মেয়ে দুজনেই সুস্থ আছেন। পরিবারের সকলে ধন্যবাদ জানাচ্ছেন বিমানকর্মী ও চিকিত্সকের।

বিমানকর্মী ও চিকিত্সককে ধন্যবাদ জানিয়েছে ইন্ডিগোও। জয়পুর বিমানবন্দরের অ্যারাইভাল হল-এ চিকিত্সককে আলাদা করে অভ্যর্থনা জানানো হয়। ধন্যবাদস্বরূপ তাঁর হাতে একটি থ্যাঙ্কিউ কার্ড-ও তুলে দেওয়া হয়।

বন্ধ করুন