বাংলা নিউজ > ঘরে বাইরে > UP Election 2022: ‘মানুষ প্রভাবিত হচ্ছে, নির্বাচন করে আর লাভ কি?’ জনমত সমীক্ষা বন্ধের দাবি SP-র
অখিলেশ যাদব (ফাইল ছবি পিটিআই) (PTI)
অখিলেশ যাদব (ফাইল ছবি পিটিআই) (PTI)

UP Election 2022: ‘মানুষ প্রভাবিত হচ্ছে, নির্বাচন করে আর লাভ কি?’ জনমত সমীক্ষা বন্ধের দাবি SP-র

  • সমাজবাদী পার্টির বক্তব্য, ‘অবাধ, সুষ্ঠু, নির্ভীক নির্বাচনের জন্য অবিলম্বে টেলিভিশন নিউজ চ্যানেলে জনমত সমীক্ষা নিষিদ্ধ করা প্রয়োজন।’

টিভি চ্যানেলগুলিকে অবিলম্বে জনমত সমীক্ষা প্রচার বন্ধ করার নির্দেশ দেওয়া হোক। ভারতের নির্বাচন কমিশনের কাছে সমাজবাদী পার্টি চিঠি লিখে এই দাবি জানিয়েছে। এই বিষয়ে নির্বাচন কমিশনকে চিঠি লেখেন সমাজবাদী পার্টির উত্তরপ্রদেশের রাজ্য সভাপতি নরেশ উত্তম প্যাটেল।

নরেশ প্যাটেলের বক্তব্য, ‘উত্তরপ্রদেশ বিধানসভার সাধারণ নির্বাচনের তারিখ গত ৮ জানুয়ারি ঘোষণা করা হয়েছিল এবং নির্বাচনের প্রথম ধাপের জন্য মনোনয়ন দাখিল ইতিমধ্যেই শেষ হয়েছে। রাজ্যে সাত দফায় ভোট হতে চলেছে যার জন্য ভোটগ্রহণের শেষ তারিখ ৭ মার্চ এবং ভোট গণনা ১০ মার্চ অনুষ্ঠিত হবে। বেশ কয়েকটি টেলিভিশন নিউজ চ্যানেল জনমত সমীক্ষা চালাচ্ছে যা ভোটারদের বিভ্রান্ত করছে এবং নির্বাচন এর জেরে প্রভাবিত হতে পারে। একই সাথে এটি নির্বাচনের আদর্শ আচরণ বিধির প্রকাশ্য লঙ্ঘন। তাই অবাধ, সুষ্ঠু, নির্ভীক নির্বাচনের জন্য অবিলম্বে টেলিভিশন নিউজ চ্যানেলে জনমত সমীক্ষা নিষিদ্ধ করা প্রয়োজন।’

সমাজবাদী পার্টির মুখপাত্র আবদুল হাফিক গান্ধী এই বিষয়ে বলেন, ‘ভোটারদের মানসিকতায় প্রভাব ফেলতে পারে এমন রায় যদি টিভি চ্যানেলগুলো দিয়ে থাকে তাহলে নির্বাচন করে লাভ কী। সকলের জন্য সমান ক্ষেত্র তৈরি করার জন্য জনমত সমীক্ষা নিষিদ্ধ করা প্রয়োজন। আমরা সকলেই জনমত সমীক্ষার ইতিহাস সম্পর্কে ভালোভাবে অবগত। এই ধরনের সমীক্ষার বিশ্বাসযোগ্যতা নিয়েও বিতর্ক আছে। এই সমীক্ষাগুলি কখন হয়, কে করে? সমীক্ষার সঙ্গে যুক্ত কারোর সঙ্গে আজও পর্যন্ত আমার দেখা হয়নি। তারপরে এই ধরনের সমীক্ষার নমুনার আকার নিয়েও একটি সমস্যা রয়েছে। রাজ্যের বিশাল জনসংখ্যার বদলে একটি ক্ষুদ্র নমুনা আকার কীভাবে সমগ্র রাজ্যের একটি সত্য চিত্র প্রতিফলিত করবে? তাই আমাদের মতে এই সমীক্ষা নিষিদ্ধ করা আবশ্যক।’

বন্ধ করুন