বাংলা নিউজ > ঘরে বাইরে > গ্রেনেড-বোমা-গুলির সম্মুখীন হয়েছি, মানুষের ভোট কেড়ে ক্ষমতায় থাকবে না: হাসিনা
শেখ হাসিনা। (ফাইল ছবি, সৌজন্যে রয়টার্স)

গ্রেনেড-বোমা-গুলির সম্মুখীন হয়েছি, মানুষের ভোট কেড়ে ক্ষমতায় থাকবে না: হাসিনা

  • প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেন, ‘মিলিটারি ডিকটেটররা যা করেছেন, তার বিরুদ্ধে আমিই সংগ্রাম করেছি, আমিই আন্দোলন করেছি৷ জেল-জুলুম, গ্রেনেড-বোমা-গুলির সম্মুখীন আমিই হয়েছি, কিন্তু গণতন্ত্রটা করতে পেরেছি বলেই ধারাবাহিকতা আছে বলেই আজকের এই উন্নতিটা৷’

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, জনগণের ভোট কেড়ে নিয়ে ক্ষমতায় থাকতে চাই না। সেটা থাকবে না। প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের শাপলা হলে সংবাদ সম্মেলনে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে তিনি এ কথা বলেন।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, জনগণের ভোট কেড়ে নিয়ে ক্ষমতায় থাকতে চান না তিনি৷ তিনি আরও বলেন, ‘মিলিটারি ডিকটেটররা যা করেছেন, তার বিরুদ্ধে আমিই সংগ্রাম করেছি, আমিই আন্দোলন করেছি৷ জেল-জুলুম, গ্রেনেড-বোমা-গুলির সম্মুখীন আমিই হয়েছি, কিন্তু গণতন্ত্রটা করতে পেরেছি বলেই ধারাবাহিকতা আছে বলেই আজকের এই উন্নতিটা৷’

আরও পড়ুন: বাংলাদেশ: প্রবল বর্ষার জের, টানা ৬দিন পর চালু হল সিলেট বিমানবন্দর

আগামী শনিবার পদ্মা নদীর ওপর নিজস্ব অর্থায়নে নির্মিত সেতুর উদ্বোধন করা হবে৷ সেতু নির্মাণের পরিকল্পনা নেওয়ার পর শত প্রতিকূলতার মধ্যেও তা বাস্তবায়নের কঠিন যাত্রায় সঙ্গে থাকায় দেশের মানুষের প্রতি ধন্যবাদ ও কৃতজ্ঞতা জানিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী৷ 

তিনি বলেন, ‘মানুষের কাছ থেকে যে অভূতপূর্ব সাড়াটা আমি পেয়েছিলাম, সেটাই কিন্তু আমার সাহস আর শক্তি৷… মানুষ আমার পাশে দাঁড়িয়েছিল৷ তাদেরই সাহসে এই পদ্মা সেতু আজ মাথা উঁচু করে দাঁড়িয়েছে৷’

দেশে বন্যার ঝুঁকি সেপ্টেম্বর পর্যন্ত থাকে, সে কথা তুলে ধরে সরকারের প্রয়োজনীয় প্রস্তুতি থাকার কথাও জানান প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা৷ তিনি বলেন, ‘বন্যা শুরু হয়েছে, সেপ্টেম্বর পর্যন্ত বন্যার ঝুঁকিটা আমাদের থাকে, জলটা নেমে আসবে দক্ষিণ অঞ্চলে৷ সেজন্য আগাম প্রস্তুতি আমাদের আছে৷’

সিলেট অঞ্চলে এবারের ভয়াবহ বন্যার কথা তুলে ধরে সেখানে ত্রাণ ও উদ্ধার তৎপরতার বিস্তারিত বিবরণ দিয়ে তিনি বলেন, ‘আমি আগেই নির্দেশ দিয়েছিলাম, জল যাতে দ্রুত নেমে যেতে পারে, প্রয়োজনে রাস্তা যেন কেটে দেয়৷ এটাও আমাদর একটা শিক্ষা, কোন জায়গা থেকে জল নিষ্কাশন হচ্ছে, কারণ আমাদের এখানে তো বন্যা আসবেই৷ সেটা চিহ্নিত করে রাখতে বলেছি, সেখানে ব্রিজ কালভার্ট এমনভাবে করে দেব, যাতে জল জমা থাকতে না পারে৷’ 

আরও পড়ুন: বাংলাদেশ: কক্সবাজারে রোহিঙ্গা শরণার্থী শিবিরে চলল গুলি, মৃত ১

ওই অঞ্চলে আরও বন্যা আশ্রয় কেন্দ্র করার পাশাপাশি বন্যার কথা মাথায় রেখে অবকাঠামো করার কথাও বলেন সরকার প্রধান৷ তিনি বলেন, ‘অনেকদিন এরকম বন্যা হয়নি, আবার বন্যা আসল৷ সেইভাবে অবকাঠামো তৈরি করতে হবে৷’

বন্যার পর কৃষক যেন কৃষিকাজ করতে পারে, সেজন্য বীজ, সারের ব্যবস্থা করা হয়েছে বলেও জানান তিনি৷ বন্যা পরিস্থিতি মোকাবিলায় সরকার আন্তরিকভাবে কাজ করছে জানান৷ এছাড়াও যাঁরা বন্যার মধ্যে কষ্ট করে কাজ করেছেন, তাঁদের সবাইকে ধন্যবাদ জানান প্রধানমন্ত্রী৷

(বিশেষ দ্রষ্টব্য : প্রতিবেদনটি ডয়চে ভেলে থেকে নেওয়া হয়েছে। সেই প্রতিবেদনই তুলে ধরা হয়েছে। হিন্দুস্তান টাইমস বাংলার কোনও প্রতিনিধি এই প্রতিবেদন লেখেননি।)

বন্ধ করুন