বাংলা নিউজ > ঘরে বাইরে > চিনা টিকার পর জনসন অ্যান্ড জনসনের ভ্যাকসিন কিনছে বাংলাদেশ
জনসন অ্যান্ড জনসনের  ভ্যাকসিন: ছবি (‌সৌজন্য রয়টার্স)‌ (REUTERS)
জনসন অ্যান্ড জনসনের  ভ্যাকসিন: ছবি (‌সৌজন্য রয়টার্স)‌ (REUTERS)

চিনা টিকার পর জনসন অ্যান্ড জনসনের ভ্যাকসিন কিনছে বাংলাদেশ

  • এবার জনসন অ্যান্ড জনসনের কাছ থেকে সাত কোটি ডোজ কিনতে যাচ্ছে বাংলাদেশ প্রশাসন।

‌বাংলাদেশের সকল নাগরিকের করোনার টিকা দান নিশ্চিত করতে চায় শেখ হাসিনা সরকার। এবার চিনের পাঠানো ভ্যাকসিনের পাশাপাশি মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের সংস্থা জনসন অ্যান্ড জনসনের কাছ থেকে ভ্যাকসিন নেবে বাংলাদেশ। গত মাসেই বাংলাদেশকে টিকা পাঠিয়েছে চিন। এবার জনসন অ্যান্ড জনসনের কাছ থেকে সাত কোটি ডোজ কিনতে যাচ্ছে বাংলাদেশ প্রশাসন।

বাংলাদেশের স্বাস্থ্য মন্ত্রকের তরফে জানানো হয়েছে, জনসন অ্যান্ড জনসনের তৈরি জ্যানসেন নামে এই টিকা কেনার ব্যাপারে নীতিগত সিদ্ধান্ত হয়েছে। আগামী বছরের জুন মাসে পাওয়া যাবে এই টিকা। বাংলাদেশের স্বাস্থ্যমন্ত্রী জাহিদ মালেক জানিয়েছেন, 'কোভ্যাক্স থেকে জানতে চাওয়া হয়েছিল মডার্না ও জনসন অ্যান্ড জনসনের মধ্যে কারও ভ্যাকসিনটা আমাদের চাই। জনসনের টিকা এক ডোজের হওয়ায় আমরা সেটাই নেওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছি। এশিয়ান ডেভেলপমেন্ট ব্যাঙ্কের তহবিল ব্যবহার করে এই টিকা কেনা হবে।' স্বাস্থ্যমন্ত্রী জানিয়েছেন, 'সরকারের নেওয়া এই সিদ্ধান্ত দু'তিন দিনের মধ্যেই কোভ্যাক্সকে জানানো হবে। কোল্ডচেইনের সীমাবদ্ধতার জন্য মোডার্নার ভ্যাকসিন আমরা নেব না।'

উল্লেখ্য, গত মাসেই বাংলাদেশকে ৫ লাখ ডোজ সিনোডার্মা টিকা পাঠিয়েছে চিন। গত ১৩ জুন বাংলাদেশ সেনাবাহিনীর জাহাজ গিয়ে আরও ৬ লাখ ডোজ টিকা দেশে নিয়ে আসে। কিন্তু তাতে এখনও বাংলাদেশের ভ্যাকসিন দেওয়ার ক্ষেত্রে চাহিদা পূরণ হয়নি। এরপর গত ১৫ জুন বাংলাদেশ প্রশাসনের তরফে জনসন অ্যান্ড জনসনের করোনার টিকা জরুরিভিত্তিতে ব্যবহারের অনুমোদন দেয়। এক ডোজের এই করোনা টিকা ব্যবহারের অনুমোদন দেওয়া এই প্রথম ঘটনা। এর আগে বাংলাদেশে পাঁচটি দুই ডোজের করোনা টিকা ব্যবহারের অনুমোদন দেওয়া হয়। একটা সময়ে সিরামের তরফে কোভিশিল্ডও ভারত থেকে বাংলাদেশে পাঠানোর কথা ছিল। কিন্তু ভারত থেকে ভ্যাকসিন রপ্তানির ওপর সাময়িকভাবে নিষেধাজ্ঞা জারি করা হয়।

বন্ধ করুন