বাংলা নিউজ > ঘরে বাইরে > ভারতে থাকার সময় ইসলাম নিয়ে ‘কটূক্তি’, বাংলাদেশে ফিরতে হিন্দু যুবকের বাড়ি ও মন্দিরে চলল হামলা
হামলা চালানো হয়েছে বাংলাদেশের এক হিন্দু যুবকের বাড়ি ও মন্দিরে (ছবি সৌজন্যে বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম/ডয়চে ভেলে)

ভারতে থাকার সময় ইসলাম নিয়ে ‘কটূক্তি’, বাংলাদেশে ফিরতে হিন্দু যুবকের বাড়ি ও মন্দিরে চলল হামলা

  • মোড়েলগঞ্জের উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো. জাহাঙ্গীর আলম বলেন, সপ্তাহখানেক আগে ওই যুবক ভারতে অবস্থানকালে ফেসবুকে ‘ইসলাম ধর্ম ও নবীকে কটূক্তি করে' একটি পোস্ট দেন বলে অভিযোগ ওঠে। সম্প্রতি ওই যুবক দেশে ফিরলে ওই পোস্ট নিয়ে স্থানীয়দের মধ্যে আলোচনা শুরু হয়।

বাগেরহাটের মোড়েলগঞ্জ উপজেলায় ইসলাম ধর্ম নিয়ে ফেসবুকে ‘কটূক্তির' অভিযোগে এক হিন্দু যুবকের বাড়ি ও স্থানীয় মন্দিরে হামলা ও ভাঙচুর চালানো হয়েছে। ডয়চে ভেলের কন্টেন্ট পার্টনার বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম এ খবর জানায়৷

মোড়েলগঞ্জ উপজেলার নিশানবাড়িয়া ইউনিয়নের আমুরবুনিয়া গ্রামে সোমবার রাতে এ ঘটনা ঘটে৷ ঘটনার পর ফেসবুকে পোস্ট দেওয়া ২৩ বছর বয়সি ওই যুবককে আটক করে থানা হেফাজতে নেওয়া হয় বলে বাগেরহাটের পুলিশ সুপার কে এম আরিফুল হক বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকমকে জানান৷

মোড়েলগঞ্জের উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো. জাহাঙ্গীর আলম বলেন, সপ্তাহখানেক আগে ওই যুবক ভারতে অবস্থানকালে ফেসবুকে ‘ইসলাম ধর্ম ও নবীকে কটূক্তি করে' একটি পোস্ট দেন বলে অভিযোগ ওঠে। সম্প্রতি ওই যুবক দেশে ফিরলে ওই পোস্ট নিয়ে স্থানীয়দের মধ্যে আলোচনা শুরু হয়। বিষয়টি মীমাংসার জন্য সোমবার প্রাক্তন ইউপি সদস্য আবদুর মালেক গাজি ও স্থানীয় লোকজন বৈঠক করে। বৈঠককে সেই যুবক তাঁর পোস্টের জন্য ক্ষমা চাইলে মিটমাট হয়ে যায়।

কিন্তু রাত ৮টার দিকে একদল লোক ওই যুবকের ‘দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবিতে' মিছিল শুরু করে৷ সেই মিছিল থেকেই ওই যুবকের বাড়িতে হামলা চালানো হয়৷ পুলিশ সুপার আরিফুল হক বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকমকে বলেন, ‘ওই যুবকের বাড়ি থেকে আধা কিলোমিটার দূরে একটি মন্দিরেও ভাঙচুর চালানো হয়েছে। খবর পেয়ে পুলিশ গিয়ে রাতেই পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে এবং তাকে আটক করে।’

বর্তমানে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আছে, তবে নতুন কোনো বিশৃঙ্খলা এড়াতে ঘটনাস্থলে বাড়তি পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে বলে জানিয়েছেন পুলিশ সুপার।তিনি বলেন, ‘যারা এই ঘটনা ঘটিয়েছে, তাদের খুঁজে বের করতে তদন্ত শুরু হয়েছে। যারা জড়িত আছে, তাদের বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা নেওয়া হবে।’

(বিশেষ দ্রষ্টব্য : প্রতিবেদনটি ডয়চে ভেলে থেকে নেওয়া হয়েছে। সেই প্রতিবেদনই তুলে ধরা হয়েছে। হিন্দুস্তান টাইমস বাংলার কোনও প্রতিনিধি এই প্রতিবেদন লেখেননি।)

বন্ধ করুন