বাংলা নিউজ > ঘরে বাইরে > Banking License Cancelled By RBI: বাতিল হচ্ছে এই ব্যাঙ্কের লাইসেন্স, কী হবে আমানতকারীদের গচ্ছিত অর্থের?
২০১৭ সালের ১২ সেপ্টেম্বর মুম্বই হাইকোর্টের আদেশের ভিত্তিতে পুনের রুপি সমবায় ব্যাঙ্ক লিমিটেডের লাইসেন্স বাতিল করা হয়েছে। (ছবিটি প্রতীকী, সৌজন্য রয়টার্স)

Banking License Cancelled By RBI: বাতিল হচ্ছে এই ব্যাঙ্কের লাইসেন্স, কী হবে আমানতকারীদের গচ্ছিত অর্থের?

  • ব্যাঙ্কিং রেগুলেশন অ্যাক্ট, ১৯৪৯-এর ধারা ১১(১) এবং ধারা ২২(৩)(ডি)-এর পাশাপাশি ৫৬ ধারার বিধান অনুসারে কাজ করতে পারেনি ব্যাঙ্কটি। তাছাড়া ধারা ২২(৩)(এ), ২২(৩)(বি), ২২(৩)(সি), ২২(৩)(ডি) এবং ২২(৩)(ই)-এর বিধিও মেনে চলতে ব্যর্থ হয় ব্যাঙ্কটি।

ভারতীয় রিজার্ভ ব্যাঙ্কের নির্দেশে বন্ধ হয়ে যাচ্ছে একটি সমবায় ব্যাঙ্ক। জানিয়েছে ২২ সেপ্টেম্বর রুপি সমবায় ব্যাঙ্কটি বন্ধ হয়ে যাবে। রিজার্ভ ব্যাঙ্ক জানিয়েছে, এই ব্যাঙ্কে যাদের টাকা আছে, তারা ২২ সেপ্টেম্বরের পর থেকে এই ব্যাঙ্ক থেকে আর টাকা তুলতে পারবে না। প্রসঙ্গত, বিগত কয়েক মাসে অনেক ব্যাঙ্ক এবং আর্থিক প্রতিষ্ঠানের লাইসেন্সই বাতিল করেছে আরবিআই। এবার বাতিল হওয়া সংস্থাগুলির তালিকায় নাম লেখাতে চলেছে ‘রুপি কোঅপারেটিভ ব্যাঙ্ক’। (আরও পড়ুন: ‘অবৈধ ঋণ প্রদানকারী অ্যাপের বিরুদ্ধে কড়া পদক্ষেপ করা হোক’, গুগলকে বলল কেন্দ্র)

২০১৭ সালের ১২ সেপ্টেম্বর মুম্বই হাইকোর্টের আদেশের ভিত্তিতে পুনের রুপি সমবায় ব্যাঙ্ক লিমিটেডের লাইসেন্স বাতিল করা হয়েছে। বিজ্ঞপ্তিতে কেন্দ্রীয় ব্যাঙ্ক বলে যে রুপি কো-অপারেটিভ ব্যাঙ্ককে তাদের ব্যবসা চালিয়ে যাওয়ার অনুমতি দেওয়া হলে এটি জনস্বার্থের হিতে হবে না। ব্যাঙ্কটির বর্তমান আর্থিক অবস্থা খুব একটা ভালো নয়। ব্যাঙ্কের যথেষ্ট মূলধন এবং উপার্জনের সম্ভাবনা নেই। এটি তার আমানতকারীদের পুরো টাকা ফেরত দেওয়ার অবস্থায় নেই।

আরবিআই জানিয়েছে যে রুপি সমবায় ব্যাঙ্কের 'ব্যাঙ্কিং' ব্যবসা নিষিদ্ধ করা হবে। এই বিধিনিষেধের জেরে জনগণের নগদ অর্থ জমা করা বা জমা অর্থ পরিশোধ করতে পারবে না সমবায় ব্যাঙ্কটি। গ্রাহকরা সর্বাধিক ৫ লক্ষ টাকা পর্যন্ত তাদের আমানত ফেরত পাবেন। আরবিআই বলেছে যে ব্যাঙ্কের দেওয়া তথ্য অনুসারে, আমানতকারীদের ৯৯ শতাংশেরও বেশি তাঁদের আমানত ফেরত পাবেন বিমার টাকা বাবদ।

এর আগে মহারাষ্ট্রের কো-অপারেটিভস কমিশনার এবং কো-অপারেটিভ সোসাইটিজের রেজিস্ট্রারকে ব্যাঙ্ক বন্ধ করতে এবং ব্যাঙ্কের জন্য একটি লিকুইডেটর নিয়োগ করতে বলেছিল আরবিআই। এটি ব্যাঙ্কিং রেগুলেশন অ্যাক্ট, ১৯৪৯-এর ধারা ১১(১) এবং ধারা ২২(৩)(ডি)-এর পাশাপাশি ৫৬ ধারার বিধান অনুসারে কাজ করতে পারেনি রুপি সমবায় ব্যাঙ্ক। তাছাড়া ধারা ২২(৩)(এ), ২২(৩)(বি), ২২(৩)(সি), ২২(৩)(ডি) এবং ২২(৩)(ই)-এর বিধিও মেনে চলতে ব্যর্থ হয়েছে রুপি সমবায় ব্যাঙ্ক।

বন্ধ করুন