বাংলা নিউজ > ঘরে বাইরে > ১০০ বছর ধরে আটকে থাকা অঙ্কের সমাধান প্রবাসী বাঙালী গণিতবিদের, বিশ্বজুড়ে প্রশংসা
ছবি : টুইটার  (Twitter)
ছবি : টুইটার  (Twitter)

১০০ বছর ধরে আটকে থাকা অঙ্কের সমাধান প্রবাসী বাঙালী গণিতবিদের, বিশ্বজুড়ে প্রশংসা

  • এমন বহু গাণিতিক সমস্যা আছে, যার আজও কোনও উত্তর মেলেনি। কয়েক যুগ ধরে গণিতবিদরা চেষ্টা করে গিয়েছেন এর সমাধান খোঁজার।

গাণিতিক সমস্যায় অনেকক্ষেত্রেই একটি সহজ ইতিবাচক বা নেতিবাচক কাঠামো থাকে। অর্থাত্ কোনও বিবৃতিটি কি সত্য নাকি মিথ্যা? তারই প্রমাণ হয় বহু সমাধানে। কিন্তু এমন বহু গাণিতিক সমস্যা আছে, যার আজও কোনও উত্তর মেলেনি। কয়েক যুগ ধরে গণিতবিদরা চেষ্টা করে গিয়েছেন এর সমাধান খোঁজার।

আজ থেকে প্রায় ১২০ বছর আগের কথা। ১৯০০ সালে জার্মান গণিতবিদ ডেভিড হিলবার্ট ২৩টি উল্লেখযোগ্য অমীমাংসিত গাণিতিক সমস্যার একটি তালিকা প্রকাশ করেছিলেন। তার পর কেটে গিয়েছে এক শতাব্দীরও বেশি সময়। এখনও বেশ কিছু সমস্যার উত্তর খুঁজে চলেছেন বিশ্বের তাবড় গণিতবিদরা। বিশ্বজুড়ে এগুলি 'হিলবার্টস প্রবলেমস' নামে পরিচিত।

হিলবার্টের এই তালিকার ১২তম সমস্যাটি নিয়েই কাজ করছিলেন সমিত দাশগুপ্ত। ডিউক বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক-গবেষক এই প্রবাসী বাঙালী। প্রায় ২০ বছর ধরে এটির সমাধান খোঁজেন তিনি। পাশে ছিলেন বন্ধু ও সহ গবেষকরাও। ইন্ডিয়ান ইনস্টিটিউট অব সায়েন্সের অধ্যাপক মহেশ কাকড়েও তাঁকে এই সমাধানে সাহায্য করেন।

প্রখ্যাত মার্কিন জার্নাল 'কোয়ান্টা'-তে তাঁদের এই সাফল্য প্রকাশিত হয়। আর তারপরেই শোরগোল পড়ে যায় গোটা বিশ্বে গণিদবিদ মহলে।

সমিত ১৯৯৫ সালে মন্টগোমেরি ব্লেয়ার হাই স্কুল থেকে স্নাতক হন। এরপর ১৯৯৫ সালে ওয়েস্টিংহাউস সায়েন্স ট্যালেন্ট সন্ধানে শিনজেলের হাইপোথিসিস এইচ নিয়ে একটি প্রকল্পে কাজ করেন। সেখানে চতূর্থ স্থান লাভ করেন তিনি। এরপর হার্ভার্ড বিশ্ববিদ্যালয়ে সুযোগ পান। ১৯৯৯ সালে সেখানে ডিগ্রি লাভ করেন। ২০০৪ সালে তিনি গণিতবিদ কেন রিবেট এবং হেনরি ডারমন-এর তত্ত্বাবধানে ক্যালিফোর্নিয়া বিশ্ববিদ্যালয় থেকে গণিতে পিএইচডি করেন। ২০০৯ সালে তিনি বিখ্যাত স্লোয়ান রিসার্চ ফেলোশিপ পান।

এরপর ক্যালিফোর্নিয়া ও সান্তা ক্রুজ বিশ্ববিদ্যালয়ে অধ্যাপনা করেন তিনি। এরপর প্রখ্যাত ডিউক বিশ্ববিদ্যালয়ে গণিতের অধ্যাপনায় যোগ দেন। এর পাশাপাশি বীজগানিতিক সংখ্যা তত্ত্ব নিয়ে কাজ চলতে থাকে তাঁর।

বন্ধ করুন