বাড়ি > ঘরে বাইরে > করোনা ঠেকাতে কারও কোষ কতটা শক্তিশালী জানতে ডিভাইস আনলেন বেঙ্গালুরুর ২ চিকিৎসক
চিকিৎসক সোনাল আস্থানা ও বিষ্ণু কুর্পাদ।
চিকিৎসক সোনাল আস্থানা ও বিষ্ণু কুর্পাদ।

করোনা ঠেকাতে কারও কোষ কতটা শক্তিশালী জানতে ডিভাইস আনলেন বেঙ্গালুরুর ২ চিকিৎসক

  • এ ক্ষেত্রে পরীক্ষার জন্য‌ সামান্য পরিমাণ রক্তের প্রয়োজন পড়ে। সেটি পরীক্ষা করে জানা যায়, করোনা ঠেকাতে কারও কোষ বা সেলগুলি কতটা শক্তিশালী।

করোনা সংক্রমণ হয়েছে কিনা জানতে ভারতীয় বাজারে বেশ কয়েক ধরণের পদ্ধতিতে পরীক্ষার উপায় রয়েছে। এবার কেউ করোনা পজিটিভ কিনা তা জানতে আর এক উপায় আবিষ্কার করলেন বেঙ্গালুরুর ২ চিকিৎসক। অ্যাস্টর সিএমআই হাসপাতালের হেপাটোবিলিয়ারি ও ট্রান্সপ্ল্যান্ট সার্জেন ডাঃ সোনাল আস্থানা এবং শ্রীশঙ্করা ক্যানসার হাসপাতালের সার্জিকাল অঙ্কোলজিস্ট ডাঃ বিষ্ণু কুর্পাদ যৌথভাবে গবেষণা চালিয়ে কোভিড–১৯–এর জন্য ভারতে প্রথম স্পেসিফিক টি সেল ইমিউনিটি টেস্টের আবিষ্কার করেছেন।

কী এই স্পেসিফিক টি সেল ইমিউনিটি টেস্ট? চিকিৎসক সোনাল আস্থানা ও বিষ্ণু কুর্পাদ জানান, এ ক্ষেত্রে পরীক্ষার জন্য‌ সামান্য পরিমাণ রক্তের প্রয়োজন পড়ে। সেটি পরীক্ষা করে জানা যায়, করোনা ঠেকাতে কারও কোষ বা সেলগুলি কতটা শক্তিশালী। একইসঙ্গে জানানো যায় সংক্রমণের সম্ভাবনা। 

অ্যান্টিবডি ছাড়াও একটি শক্তিশালী টি কোষের প্রতিক্রিয়া কোভিড সংক্রমণ রুখতে সাহায্য করে। বেশিরভাগ করোনা টেস্ট শরীরে তৈরি অ্যান্টিবডির নিরিখে ফলাফল দেয়। কিন্তু অনেকেরই সেই অ্যান্টিবডি তৈরি হয় না। সে ক্ষেত্রে দেখতে হয় কোষ বা সেলগুলির কতটা রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা আছে অর্থাৎ সংক্রমণের সম্ভাবনা কতটা। আর তা জানার জন্যই বেঙ্গালুরুর ওই ২ চিকিৎসক একটি সহজ ইন–টিউব ডিভাইস তৈরি করেছেন। সাইটোকাইন্স নামে এক রাসায়নিক দ্বারা ওই ডিভাইসে কারও রক্ত পরীক্ষা করা হলে ২৪ ঘণ্টার মধ্যে নির্ভুল ফলাফল পাওয়া যাবে। জানা যাবে, কারও কোষ বা সেল করোনাভাইরাস ঠেকাতে কতটা শক্তিশালী বা কতটা তার রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা।

বন্ধ করুন